আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রিয়াদের দশ বছর

0

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে রিয়াদের দশ বছর
অনেক উত্থান-পতন। কখনো দলের দায়িত্ব নিয়েছেন সামনে থেকে। কখনো পর্দার আড়ালে সবার অগোচরে সেরে গিয়েছেন নিজের দায়িত্ব। কখনো ইনিংস ফিনিশিং, কখনো মিডল অর্ডারে দায়িত্ব নেওয়া- মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ক্যারিয়ারটা এমন নানান চিত্রে বৈচিত্র্যময়। আর এ বৈচিত্র্যময় ক্যারিয়ারের দশ বছর পূর্ণ হলো।

শুরুটা হয়েছিল ২০০৭ সালের ২৫ জুলাই। শ্রীলঙ্কা অলআউট ১৯৬ রানে। জয়ের আশার আলো জ্বলছে। সেই আলো নিভিয়ে দিলেন ব্যাটসম্যানরা। বাংলাদেশ গুটিয়ে গেল ১৫৭ রান করে। আটজন দুই অঙ্কের ঘরে পা দিতে পারেননি।

ওপেনিংয়ে তামিম করলেন ৫৪। আর কেউ দাঁড়াতে পারলেন না। সাত নম্বরে রিয়াদ নেমে সঙ্গ দিলেন। গড়লেন ৬০ রানের জুটি। জানান দিলেন লড়াইটা ভালোই করতে পারেন।  ৫৪ বলে ৩৬ রান করে বিদায় নেন। বোলিংয়ে পাঁচ ওভার করে দুই উইকেট। শুরুটা সব মিলিয়ে মন্দ নয়।

Also Read - "২০১৮ সাল অনেক গুরুত্বপূর্ণ"

দুই বছর পর যাত্রা শুরু করলেন টেস্টে। সাদা পোষাকের অভিষেকটা হলো বেশি রঙিন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাদের মাটিতে টেস্ট জয়। প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারলেন না। কিন্তু বোলিংয়ে শিকার করলেন তিনটি উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে করলেন ৮। দুই ইনিংস মিলিয়ে রিয়াদের ব্যাটে রান ১৭ রান। বল হাতে ঝলকানি দ্বিতীয় ইনিংসেও। একাই নিলেন পাঁচ উইকেট। টেস্ট জয়ের আনন্দে মাতলো বাংলাদেশ। এবার আর হারের দুঃখে ম্লান হলো না কিছু।

২০১০ সালে বাংলাদেশের ভারত সফরে আবার সুযোগ পেলেন টেস্টে। প্রথম টেস্টে একটা ৬৯ রানের ইনিংস খেলেন। দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৫১ রানে বাংলাদেশের অর্ধেক সাজঘরে। রিয়াদ হাল ধরলেন। ৯৬ রান করেছিলেন রিয়াদ।  লড়াই চালিয়ে যেতে পারেননি সহযোদ্ধার অভাবে। অপরাজিত হয়ে ফিরেছেন চার রানের আক্ষেপ নিয়ে।

রিয়াদের এমন হাল ধরার গল্প কম নয়। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্টে ০ রানে ৩ উইকেট নেই। ১০১ রানের ছোট্ট লক্ষ্য মনে হচ্ছে হিমালয়ের মতো দূর্গম। রিয়াদ হাল ধরলেন। করলেন ২৮।

ওয়ানডেতেও রিয়াদ লড়াই করেছেন বহুবার। বিশ্বকাপে যখন শতকের খরা বাংলাদেশের, রিয়াদ তখন হাঁকালেন টানা দুই শতক।

লড়াকু রিয়াদ লড়াই করে দিয়েছেন বারেবারে। কখনো  সামাল দিয়েছেন ঝড়ো হাওয়া, ঠিক করেছেন বেসামাল তরী। কখনো আবার দারুণ চলতে থাকান নৌকাকে দিয়েছেন আরো গতি। ২০১৬ এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ঝড় কিংবা পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ বের করে আনা ইনিংসটাও ভোলার মতো নয়।

ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টাতে উল্টাতে আর নানান চড়াই- উৎরাই রিয়াদের ক্যারিয়ারের বয়স হলো দশ। দশ-সংখ্যাটা বাড়তেই থাকুক। যত বাড়বে ততই যেন মঙ্গল।

-আজমল তানজীম সাকির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম ডট কম