‘ওরা কী যে গালাগালি করেছে!’

0

রাজিন সালেহ- বাংলাদেশের ঐতিহাসিক সেই ফতুল্লা টেস্টের অন্যতম নায়ক। ঐ টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বসেরা বোলিং লাইনআপের বিপক্ষে দুই ইনিংস মিলিয়ে মোকাবেলা করেছিলেন ৩২১ বল। আরেক অস্ট্রেলিয়া সিরিজ যখন একদম দোরগোড়ায়, রাজিন সালেহ তখন আগের চেয়ে অনেক পাল্টে মাঝেমাঝে একজন ক্রিকেট বিশ্লেষকের ভূমিকায়।

সম্প্রতি দেশের শীর্ষস্থানীয় দৈনিককালের কণ্ঠর সাথে আলাপচারিতায় মেতে উঠেছিলেন সিলেটের এই ছেলে। সেসময় তুলে ধরেন ফতুল্লার ঐ ম্যাচ সহ বিভিন্ন স্মৃতিময় ব্যাপারস্যাপার।

Also Read - একসঙ্গে মাইলফলকের পথে সাকিব-তামিম

ব্রেট লি, জ্যাসন গিলেস্পি, শেন ওয়ার্ন, স্টুয়ার্ট ম্যাকগিলদের মতো বোলারদের বিপক্ষে খেলে মাটি কামড়ে উইকেটে বসেছিলেন। সেটি ‘টেস্ট ব্যাটসম্যান’ তকমা গায়ে মেখে থাকার প্রত্যয়েই। রাজিন বলেন, সবাই তো আমাকে ‘টেস্ট ব্যাটসম্যান’ বলেন। তা আমিও ঠিক করেছিলাম, নিজের উইকেট কিছুতেই সহজে দিয়ে আসব না। ওদের ফাস্ট বোলারদের সামলানো ততটা কঠিন না, যতটা ওয়ার্ন-ম্যাকগিলকে খেলা। বিশেষত ওয়ার্ন কিংবদন্তী বোলার। লেগ স্টাম্পের বাইরে বল পিচ করিয়েও কত ব্যাটসম্যানকে আউট করেছে!

রাজিনকে আউট করতে না পেরে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা তাকে গালিগালাজও করেছিলেন! এ বিষয়ে রাজিন বলেন, আমি সিরিজ শুরুর আগেই ঠিক করেছিলাম, ওয়ার্নকে কিছুতেই উইকেট দেব না। ক্রিজে সবচেয়ে বেশি সময় ছিলাম। ওরা কী যে গালাগালি করেছে! বোলিংয়ের সময় ছাড়াও স্লিপে দাঁড়িয়ে ওয়ার্ন গালি দিয়েছে সবচেয়ে বেশি। ফাস্ট বোলার ব্রেট লি হোটেলে আমাদের রুম থেকে ডেকে সুইমিংপুলের পাশে বসে গিটার বাজিয়ে গান শোনাত। কিন্তু মাঠে ঢুকেই গালাগালি। আমার অবশ্য মজাই লেগেছে। অমন কিংবদন্তি বোলারদের হতাশ করতে পারা তো কম কথা নয়।

সেবার বাংলাদেশ ম্যাচ ড্র করেই তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলতে চেয়েছিল। তবে দলের শক্তিমত্তা বেড়েছে, পাল্টেছে মানসিকতা। অন্যদের মতো রাজিন সালেহও আশা করছেন টাইগারদের জয়,২০০৬ সালের তুলনায় অস্ট্রেলিয়া দুর্বল কিনা, সে আলোচনা করব না। তবে বাংলাদেশ যে অনেক বেশি শক্তিশালী, তাতে সন্দেহ নেই। আমার প্রত্যাশা, এবার যেন বাংলাদেশ সিরিজ জেতে।

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম