কাজটা আমাদের জন্য সহজ ছিল: সাকিব

0

১০ রান তুলতেই ব্যাটিং লাইন আপের প্রথম তিনজন ব্যাটসম্যান বিদায় নিয়েছেন ক্রিজ থেকে। ১০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারায় চলে যায় বাংলাদেশ। দলকে সেখান থেকে টেনে আনেন পঞ্চাশতম টেস্ট খেলতে নামা বাংলাদেশের দুই নির্ভরতার প্রতীক তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান।

চতুর্থ উইকেটে ১৫৫ রানের জুটি গড়েন তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান। চতুর্থ উইকেটে এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি। এ জুটিতে ভর করে ধাক্কা সামাল দেয় বাংলাদেশ। দুজনেই তুলে নেন অর্ধশ্তক। তামিম করেন ৭১। সাকিব ফিরেন ৮৪ রান করে।

বিপর্যস্ত দলের ইনিংস গরাড় কাজ চ্যালেঞ্জিং হলেও সহজ ছিল বলে জানান সাকিব। প্রথম দিনের খেলাশেষে সাকিব আল হাসান বলেন, “অনেক চ্যালেঞ্জিং ছিল। আমার কাছে মনে হয় আমরা দুজন নিজেদের ভালোভাবে প্রয়োগ করতে পেরেছি। এ জুটিটা জরুরী ছিল।”

Also Read - নিজেদেরকেই চালকের আসনে দেখছেন সাকিব

জুটির মাঝে কথা হয়নি তেমন। দুজনেই শুধু নিজের ব্যাটিংটা করেছেন ঠিকঠাক মতো। আর একারণেই চ্যালেঞ্জিং কাজটা সাকিব-তামিমের কাছে হয়ে গিয়েছে সহজ।

সাকিব বলেন, ““ওভাবে কথা হয় না তো, স্রেফ ব্যাটিং করতে থাকা যতক্ষণ সম্ভব। প্রথম সেশন যাওয়ার পর আমরা আরও ভালো ব্যাটিং করছিলাম। কিন্তু দুঃখজনকভাবে দুটো বল লাফিয়ে উঠেছিল।”

দীর্ঘদিন খেলার অভিজ্ঞতাও করেছে সাহায্য। সাকিব জানান বোঝাপড়ার অভাব আছে এমন শঙ্কা অর্থহীন। তিনি বলেন, “আমার কাছে মনে হয়, আমাদের জন্য কাজটা সহজ ছিল। কারণ অনেক দিন একসঙ্গে খেলেছি। আমাদের মধ্যে বোঝাপড়ার অভাব আছে, এমনও নয় ব্যাপারটা। দুজনেরই ৫০ টেস্ট হচ্ছে। বোঝাপড়া নিয়ে শঙ্কা থাকার কথা নয়।”

৫ চার ও ৩ ছক্কার সাহায্যে ৭১ রানের ইনিংস খেলেন তামিম। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের লাফিয়ে ওঠা বলে ডেভিড ওয়ার্নারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। ৮৪ রান করা সাকিবকে ফেরান স্পিনার নাথান লায়ন। তিনিও ফিরে যান বলের বাড়তি বাউন্স না সামলাতে পেরে। ক্যাচ তুলে দেন স্লিপে থাকা স্টিভ স্মিথের হাতে।