দম্ভ ভুলে ম্যাচ বাঁচানোর লড়াই

0
cummins ban v aus
উইকেট শিকার করে উল্লসিত প্যাট কামিন্স। ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনের প্রথম সেশনে বাংলাদেশকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়েছে তার বোলিংই।

‘আবহাওয়া অফিস বলেছিল সকালে বৃষ্টি হবে। তবে সেটা যে উইকেটের বৃষ্টি, তা বলে নাই।’

ঢাকা টেস্ট নিয়ে এটি জনপ্রিয় একজন লেখক ও সাংবাদিকদের ফেসবুক স্ট্যাটাস। ১০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তখন ধুঁকছে। আবহাওয়া অফিস বেশ কদিন ধরেই বৃষ্টির পূর্বাভাস জানাচ্ছিল। তাদের দাবি অনুযায়ী, ঢাকা টেস্টের শুরুতেই হামলা করবে বৃষ্টি। রৌদ্রোজ্জ্বল মিরপুরকে দেখে যারা ভেবে নিয়েছিলেন আবহাওয়া অফিসের দেওয়া তথ্য ‘ভুল’, তাদের ‘ভুল’ প্রমাণ করতেই যেন মিরপুরে শুরু হল অমন উইকেট-বৃষ্টি। যাতে ভিজেছে কেবল বাংলাদেশই, উপভোগ করেছে অস্ট্রেলিয়া।

ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনের প্রথম সেশন উড়তে থাকা বাংলাদেশকে যেন মাটিতে নামিয়ে আনল।

Also Read - সিপিএলে রিয়াদের প্রথম হার

দেশের অন্যতম সেরা একজন ব্যাটসম্যান, বিশেষত ‘বিশেষায়িত’ টেস্ট ব্যাটসম্যান হয়েও মুমিনুল কেন দলে নেই- সাতসকালে এটিই হয়ে দাঁড়িয়েছিল ক্রিকেট পাড়ার সবচেয়ে বড় প্রশ্ন। অবশ্য মুমিনুল কার জায়গায় খেলবেন- এ নিয়ে বিতর্ক হতে পারে। ম্যাচের দৈর্ঘ্য চার ওভার হতে না হতেই যে তিনজন ব্যাটসম্যান প্রথম ইনিংসের ‘দায়মুক্তি’ করে সাজঘরের পথ ধরলেন, ব্যাটিং পজিশন এবং সাম্প্রতিক পারফরমেন্স নিয়ে আলোচিত কিংবা সমালোচিত যে এদের তিনজনই!

দৃষ্টিকটু ছিল তিনজনের বিদায়ের ধরণই। ফরম্যাটের মেজাজ ভুলে গিয়ে দুটো চার হাঁকিয়ে সৌম্য সরকার কিছুটা ভয় দেখাতে চাইলেন অস্ট্রেলিয়ার পেসারদের। ‘লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু’ প্রবাদটার দৃষ্টান্ত উপহার দিয়ে ১০০ স্ট্রাইকরেট নিয়ে ৮ রানে আউট হওয়া সৌম্যকে সাজঘরের পথ দেখালেন পেট কামিন্স। অবশ্য অফ স্ট্যাম্পের বাইরের বল খেলে হ্যান্ডসকমের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে সৌম্য নিজেই পথটা বেছে নিলেন কিনা, প্রথম সেশন শেষে বড় এক প্রশ্ন সেটিও।

সমালোচনার পথ প্রশস্ত করে দিয়ে সাজঘরে ফিরেছেন ইমরুল কায়েস ও সাব্বির রহমানও। অফ স্ট্যাম্পের বাইরের বলে টোকা দিতে গিয়েছিলেন দুজনই। অতঃপর টাইমিংয়ে গড়বড়, ফলাফল উইকেটের পেছনে উইকেটরক্ষক ম্যাথু ওয়েডের হাতে ক্যাচ; তাও কামিন্সের পরপর দুই ডেলিভারিতে। কোনো রান না করলেও ৬ বল খেলে ইমরুল টিকে থাকার মানসিকতার ‘অজুহাত’ রেখে গেছেন, সাব্বির পারেননি সেটিও। নিজের প্রথম বলেই আম্পায়ারকে বাধ্য করলেন তর্জনী উঁচিয়ে ধরতে। এর চেয়েও বড় ভুলটা সাব্বির করলেন উইকেটের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রিভিউ নিয়ে। টিভি রিপ্লেতে পরিষ্কার ‘আউট’ ব্যাটসম্যান সাব্বিরের মনে কেন সংশয় হয়ে উঁকি দিলো, সেটি দুশ্চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়ানোর যোগ্যতা রাখে।

মুমিনুলকে রেখে তাদের একাদশে জায়গা দিয়ে টিম ম্যানেজমেন্ট যে ভুল করেনি, সৌম্য-ইমরুল-সাব্বির তিনজনই সেটি প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছেন। তবে আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন নিজেদের ৫০তম টেস্ট খেলতে নামা দুই বন্ধু সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল। ধীর-স্থির ব্যাট চালিয়ে অজিদের বিরুদ্ধে গড়ে তুলেছেন শক্ত প্রতিরোধ। প্রথম সেশন শেষে বাংলাদেশের স্বস্তির জায়গা বলতে এই দুজনের শৃঙ্খল ব্যাটিংই। তা না হলে দলকে বিপদে রেখে সাজঘরে ফেরা টপ অর্ডারের বাকি তিন ব্যাটসম্যানের চঞ্চল ব্যাটিং আর মানসিকতা বাংলাদেশি সমর্থকদের ২-০ ব্যবধানে জেতার চিন্তা মন থেকে দূর করে সেখানে এনে বসিয়েছে ম্যাচ বাঁচানোর লড়াইকে।

সাকিব আর তামিমকে আপাতত সেই লড়াইটিই করতে হবে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম দিনের লাঞ্চ বিরতি শেষে)

টস- বাংলাদেশ

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস- ৯৬/৩ (২৮ ওভার)

সাকিব ৪৮ (৬২), তামিম ৩৩(৯১)

কামিন্স ৮-১-২৯-৩

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম