বাংলাদেশ থেকে সরে যাচ্ছে বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব

0

Shere_Bangla_National_Stadium

বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সর্বশেষ আসর বসেছিল ২০১৫ সালে, যৌথভাবে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে। সেবার টেস্ট খেলুড়ে সবগুলো দেশ অংশগ্রহণ করলেও আইসিসির নতুন নিয়ম অনুযায়ী এর পরের আসরগুলোতে সরাসরি খেলতে পারবে না সবগুলো টেস্ট খেলুড়ে দল। র‍্যাংকিংয়ের সেরা আট দল মূলপর্বের জন্য কোয়ালিফাই করলেও বাকি দলগুলোকে সহযোগী দলগুলোর সাথে বাছাইপর্ব পেরিয়ে আসতে হবে মূলপর্বে।

নব্য টেস্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্ত আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ড সহ বর্তমানে আইসিসির সদস্য দেশের সংখ্যা চার, যারা ওয়ানডে শীর্ষ আটে নেই। এদিক থেকে ভালো অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। বর্তমানে র‍্যাংকিংয়ের সপ্তম অবস্থানে রয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল, আর তাতে অনেকটাই নিশ্চিত ২০১৯ বিশ্বকাপে সরাসরি অংশগ্রহণ। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য সেই আসরে বাংলাদেশ খেলবে কোনো বাছাইপর্ব ছাড়াই।

Also Read - বাংলাদেশ সফরে স্বস্তিতে থাকবে না অস্ট্রেলিয়া

বাংলাদেশের এমন সুসময় পরিবর্তন এনেছে আইসিসির সূচিতে। ২০১৯ বিশ্বকাপের জন্য যে বাছাইপর্ব অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা, সেটির আয়োজক ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু র‍্যাংকিংয়ে ভালো অবস্থানে থাকায় বাছাইপর্বে অংশ নিতে হচ্ছে না বাংলাদেশকে। আর তাই বাছাইপর্বও অনুষ্ঠিত হচ্ছে না বাংলাদেশে। ২০১৯ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব বাংলাদেশ থেকে সরে যাওয়ার ব্যাপারটি তাই এখন অনেকটাই নিশ্চিত।

বাংলাদেশ থেকে সরে গিয়ে বাছাইপর্বের নতুন আয়োজক হতে পারে জিম্বাবুয়ে- র‍্যাংকিংয়ের দশম অবস্থানে থেকে যারা অংশ নেবে বাছাইপর্বে। আয়োজক দেশ হওয়ার দৌড়ে আছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, স্কটল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের নামও। যৌথ আয়োজক হিসেবেও দেখা যেতে পারে এসব দেশকে।

আগামী বছরের জুলাই-আগস্ট মাসে অনুষ্ঠিত হবে বহুল আকাঙ্ক্ষিত বাছাইপর্ব। বাছাইপর্ব থেকে মূলপর্বে যেতে পারবে মাত্র দুটি দল। অন্তত দুটি টেস্ট খেলুড়ে দলের বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়াটা তাই নিশ্চিতই।

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম