‘মজা’ থেকে ‘দায়িত্বে’ সাকিব

0

Shakib-Practice আগামী ২৭ আগস্ট থেকে শুরু হতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে নতুন এক মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন বাংলাদেশি অল-রাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দেশের হয়ে তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে ৫০তম টেস্ট খেলতে যাচ্ছেন সাকিব।

এর আগে পঞ্চাশের ঊর্ধ্বে টেস্ট খেলার তালিকায় রয়েছেন মাত্র তিনজন। ৫৪ টেস্ট খেলে তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন বর্তমান অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। অজিদের বিপক্ষে খেলতে নামবেন নিজের ৫৫তম টেস্ট। ৫০ টেস্ট খেলেই অবসর নিয়েছেন সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার।

এই তালিকায় সবার উপরে রয়েছেন মোহাম্মদ আশরাফুল। বাংলাদেশের হয়ে সাদা জার্সি গায়ে খেলেছেন ৬১টি টেস্ট। সাদা পোশাকের ক্রিকেটে ১০ বছর অতিক্রম করেও ৫০ টেস্ট না খেলতে পারার আক্ষেপ কিছুটা হলেও থাকবে সেটি স্বাভাবিক। যেখানে তার পরে আসা স্মিথ, উইলিয়ামসন, কোহলিরা খেলে ফেলেছেন ৫০ এরও বেশি টেস্ট।

Also Read - বিশ্ব একাদশের স্কোয়াড ঘোষণা, ডু প্লেসিসের দলে তামিম

দীর্ঘদিন জাতীয় দলের হয়ে খেলার পরেও এতো দেরিতে ৫০তম টেস্ট খেলতে নামবে, সেটি নিয়ে আক্ষেপ নেই এই অল-রাউন্ডারের। বরং আগের চেয়ে বর্তমানে অনেক দায়িত্ব বেড়েছে বলে মনে করেন তিনি।

“প্রথম টেস্ট যখন খেলেছিলাম তখন মনে হয়নি, কতগুলো টেস্ট খেলবো বা কতটা খেলতে পারি। ঐ সময়ে যেমনটা ছিল তখন মজার ছিল, তবে সেটি এখন নাই সেটা নয়। সময়ের সাথে এখন অনেক কিছুই পরিবর্তন হয়েছে। এখন ভিন্ন পরিবেশ, দলের প্রতি ভিন্ন দায়িত্ব। সবমিলিয়ে সবকিছুই এখন ভিন্ন।”

নিজের ৫০তম টেস্ট বাদেও দাঁড়িয়ে রয়েছেন আরেকটি রেকর্ডের সামনে। টেস্ট ক্রিকেটে টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষে পাঁচ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড রয়েছে মাত্র তিনজনের। অস্ট্রেলিয়া বাদে টেস্টে সব দেশের বিপক্ষে পাঁচ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড রয়েছে সাকিবের। অজিদের বিপক্ষে এই কৃতিত্ব গড়তে পারলেই নাম লেখাবেন মুরালি, হেরাথ, স্টেইনের পাশে।

বৃহস্পতিবার মিরপুরে অনুশীলন শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসেন সাকিব। নিজের এই রেকর্ডের কথা মনে আছে বললেন সাকিব। তিনি বলেন, “রেকর্ডের কথা মনে আছে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চার ইনিংস আছে, দেখা যাক কী হয়। কতোটা বেশি অবদান রাখতে পারি সেটাই বড়।”

তিনি আরো যোগ করেন, “দেখা গেল, অন্য কেউ ভালো বোলিং করে পাঁচ উইকেট পেলো। সেটা দলের জন্য ভালো। উইকেট পাওয়া তো নিজের হাতে নাই। দেখা যাবে অনেক সময় দারুণ বোলিং করেও অন্য কেউ উইকেট পায়। আবার অনেক সময় ভালো বোলিং না করেও উইকেট পাওয়া যায়। বোলিংয়ের জুটিটাও গুরুত্বপূর্ণ। আমরা জুটি গড়ে কতোটা ভালো বোলিং করতে পারি, এটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার।”