সদস্যপদ পেতে না পেতেই আফগান ক্রিকেটে অস্থিরতা!

0

আইসিসির পূর্ণ সদস্য হওয়ার দুই মাসও হয়নি, অথচ এখনই আফগানিস্তানের ক্রিকেটে দেখা দিয়েছে অস্থিরতা। জানা গেছে, দলীয়করণের কারণে বেশ অস্থির সময়ের মধ্য দিয়ে দিন পার করছে আইসিসির সর্বশেষ বোর্ড সভায় টেস্ট স্ট্যাটাস লাভ করা দেশটির ক্রিকেট বোর্ড- এসিবি।

বোর্ড সভাপতির দলীয়করণের চেষ্টার প্রতিবাদে সম্প্রতি সংস্থাটির ৩০ জন সদস্য চাকরি থেকে নিজেদের বয়কট করেন। তবে এতে যেন গায়েই লাগেনি বোর্ড সভাপতির! তিনিও সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, যারা বয়কট করেছেন তাদের আর চাকরিতে ফেরত নিবে না এসিবি।

Also Read - আবারও ক্ষেপেছেন রানাতুঙ্গা!

এসিবির বর্তমান সভাপতি আতিফ মশাল। দেশটির টেস্ট স্ট্যাটাস প্রাপ্তির পেছনে যথেষ্ট অবদান রয়েছে তাঁর। তবে তাঁর বিরুদ্ধে দলীয়করণের অভিযোগ এসেছে বেশ আগেই। আইসিসির পূর্ণ সদস্যপদ পাওয়ার পর তাঁর ক্ষমতা আরও বেড়ে যাওয়ায় কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি যাচ্ছেতাই ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

পদ বয়কট করা প্যানেলের মধ্যে আছেন এসিবির মিডিয়া ম্যানেজার, দেভেলপমেন্ত ম্যানেজার, চেয়ারম্যানের সিনিয়র উপদেষ্টা এবং আরও ২৭ জন বিভিন্ন পদস্থ কর্মকর্তা। তারা জানান, শীঘ্রই সংবাদ সম্মেলনে করে এসিবি প্রধানের বিরুদ্ধে তাদের অনাস্থা প্রকাশের কথা ভাবছেন তারা।

এ প্রসঙ্গে এসিবির মিডিয়া ম্যানেজার ও বয়কটকারী প্যানেলের অন্যতম সদস্য আজিজ ঘারওয়াল বলেন, ‘বোর্ড সভাপতি মার্শাল উচ্চপদস্থ কয়েকজন কর্মকর্তাকে সরিয়ে তাঁর নিজের লোককে নিয়োগ দিয়েছেন, যারা ক্রিকেট কী সেটাই জানে না। মার্শাল এসিবিকে নিজের প্রচারণার জন্য তাঁর ক্যাম্পেইন অফিস হিসেবে ব্যবহার করছেন। অথচ আইসিসির পূর্ণ সদস্য হিসেবে অনেক কাজ এখনও করার বাকি রয়েছে।’

তিনি আরও জানান, সম্প্রতি বোর্ড সভাপতি তাদের সঙ্গে খুব বাজে ব্যবহার করছিলেন। এমনটি এও বলেছিলেন, তাঁর সিদ্ধান্তে সমর্থন না করলে তাদের চাকরীচ্যুতও করা হবে। এসিবির চেয়ারম্যান এবং সিইও বেশিরভাগ সময়ই অকারণে বিদেশ সফরে ব্যস্ত থাকেন বলে জানান তিনি।

তবে আতিফ মশাল জানিয়েছেন, আইসিসি সভায় অংশগ্রহণের জন্যই শ্রীলঙ্কা সফরে গেছেন তিনি, যেখানে বর্তমানে তাঁর অবস্থান। ভিওএ রেডিওকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, যারা এসিবির পদ বয়কট করেছেন তাদের পুনরায় অন্তর্ভুক্ত করার ইচ্ছা নেই তাঁর।

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম