সাকিবের মন্ত্রেই পাল্টে গেলো চিত্রনাট্য!

0

প্রাণপণে লড়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশের বোলার-ফিল্ডাররা। এরই মধ্যে সেঞ্চুরি তুলে নিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। হারের শঙ্কা চেপে বসলো ঘাড়ের উপর। কাঙ্ক্ষিত ব্রেকথ্রুও আসছে না অনেক চেষ্টার পরও। দলের অনেকেই তখন বিমর্ষ, ভেঙেও পড়েছেন কেউ কেউ।

স্পিন আক্রমণের জন্য সাকিবের দিকে তাকিয়ে রাজ্জাক

এমন সময়ে সাকিবই বাংলাদেশকে শুনিয়েছিলেন জেগে উঠার মন্ত্র, আর এর পরই বদলে গেলো পুরো ম্যাচের প্রেক্ষাপট! একের পর উইকেট হারাতে থাকলো অস্ট্রেলিয়া, আর তাতে উল্লাসে ফেটে পড়ল হোম অব ক্রিকেটের গ্যালারি। শেষমেশ বাংলাদেশ জিতে নিলো ম্যাচটাই।

Also Read - 'দুঃখ কমার কী আছে!'

কী এমন মন্ত্র পড়েছিলেন সাকিব? ম্যাচ জয়ের পরদিন বৃহস্পতিবার ফুরফুরে মেজাজে থাকে স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ জানালেন উত্তর, ‘কাল পানি পানের বিরতিতে সাকিব ভাইয়ের একটি কথা আমাদের ভীষণ অনুপ্রাণিত করেছে। তিনি আমাদের বললেন, গ্যালারির দর্শকেরা এসেছে বাংলাদেশের জয় দেখতে। তাদের যদি এই বিশ্বাসটা থাকে যে আমরা জিতব, তবে সেটা আমাদের কেন থাকবে না? এ কথার পর সবাই আমরা বোলিং-ফিল্ডিংয়ে অন্য রকমভাবে চেষ্টা করেছি। সাকিব ভাই ব্রেক থ্রু এনে দিলেন। দেখতে দেখতে ওরা অলআউট হয়ে গেল।’

অজি ব্যাটসম্যানদের অনবদ্য ব্যাটিং দেখে হারের শঙ্কাও জেগে উঠেছিল মিরাজের! সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তরুণ ক্রিকেটার বলেন, ‘কখনো মনে হয়েছিল, ম্যাচটা জিততে পারি। আবার ওদের জুটি বড় হলে মনে হয়েছে হারতেও পারি!

এদিকে ফুরফুরে মেজাজে পাওয়া গেলো ঢাকা টেস্টে সাকিব-মিরাজকে যোগ্য সঙ্গ দেওয়া আরেক স্পিনার তাইজুল ইসলামকে। গত বছর ইংল্যান্ডকে অল্পের জন্য ২-০ ব্যবধানে হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। সেই আফসোস তাইজুল মিটাতে চান চলতি সিরিজে। তাইজুল বলেন, ‘গত বছর ইংল্যান্ডকে হারিয়েছি। ওদের ২-০ ব্যবধানেও হারাতে পারতাম। অল্পের জন্য পারিনি। অস্ট্রেলিয়াকে হারানো অসম্ভব কিছু নয়।’

ঢাকা টেস্টে সাকিবের পাশাপাশি মিরাজ ও তাইজুলেরও ছিল তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা। অস্ট্রেলিয়ার পতন ঘটা ২০ উইকেটের ১০টিই নিয়েছেন সাকিব, বাকি ১০ উইকেটের ৯টিই ভাগাভাগি করে নিয়েছেন এই দুই স্পিনার!

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম