ঢাকা টেস্ট নিয়ে পড়ে নেই তামিম

0

ঐতিহাসিক ঢাকা টেস্ট শেষে খেলোয়াড়েরা এখন আছেন অঘোষিত অল্প মেয়াদী ঈদের ছুটিতে। সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল- এরা সময় কাটাচ্ছেন পরিবারের সাথে। সমর্থকদের ঢাকা টেস্ট জয়ের রেশ এখনও কাটেনি। তবে পেশাদারিত্বের কারণে সেটি মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেছেন ক্রিকেটাররা। অন্তত তামিমের কথা থেকে বোঝা যায় সেটিই।

লর্ডসে শতক যেকোনো ক্রিকেটারের জন্য স্পেশাল

সম্প্রতি দেশের শীর্ষ স্থানীয় দৈনিক প্রথম আলোকে তামিম বলেন, ‘এমন নয় যে, এখনো শুধু এই জয় নিয়েই ভাবছি বা সকালে উঠেই তা মনে পড়েছে। হয়তো মোবাইল ঘাঁটছি, ম্যাচের হাইলাইট চলে এলো, একটু দেখলাম, এই আর কী! পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছি, খেলা-টেলা মাথায় থাকছে না।’

Also Read - ওয়ার্নারের সমতা ফেরানোর প্রত্যাশা

ঢাকা টেস্ট শেষ হয়ে গেলেও এখনও এক রহস্য হয়ে আছে এই টেস্টের উইকেট। তামিমও জানালেন সেরকম কথাই, ‘আমি আগেও বলেছি, এই উইকেটটা এমন ছিল যে, পরের বলটা কী হবে, আপনি তা জানেন না। গুড লেংথ থেকে বল লাফিয়ে উঠতে পারে, আবার গড়িয়ে গিয়ে উইকেটে লাগতে পারে।’

তামিম জানালেন উইকেট বিবেচনায় এনে তার বেছে নেওয়া কৌশলের কথাও, ‘আমি তাই এটি যে স্পিনিং উইকেট, তা ভুলে গিয়ে ফ্ল্যাট উইকেট ভেবে খেলেছি। যার মানে বল মিডল স্টাম্পে পড়লে সোজা খেলব। স্পিনের জন্য খেলতে গিয়ে যদি বল সোজা হয়ে যায়, তাহলে তো গেল!’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনি খেয়াল করলে দেখবেন, এই ম্যাচে স্পিন করা বলে কিন্তু কম আউট হয়েছে। সোজা বা ভেতরে আসা বলে বেশি।’

তামিমের মতে, এই টেস্ট পারফরমেন্সের পাশাপাশি নিয়েছে তার মানসিক পরীক্ষাও। বাঁহাতি ওপেনারের মতে, ‘মানসিক শক্তির পরীক্ষা তো নেয়ই। মনে অনেক কিছু কাজ করে। দ্বিতীয় ইনিংসে ইমরুল যে বলটায় আউট হলো, সেটি তো আমার প্রথম ওভারেও তো হতে পারত। এসব তাই মাথায় রাখিনি। ঠিক করেছি, নরমাল ক্রিকেট খেলব, খুব বেশি শট খেলব না। আবার পজিটিভও থাকব।’

সেই সাথে ক্যারিয়ারের ৫১তম টেস্ট খেলার অপেক্ষায় থাকা ক্রিকেটার জানালের ইতিবাচক মানসিকতার প্রয়োজনীয়তাও, ‘পজিটিভ মাইন্ডসেট থাকাটা খুব জরুরি। ওয়ার্নারের ব্যাটিং তো দেখেছেন। প্রথম ইনিংসে একটা বলেও ও স্বচ্ছন্দ ছিল না। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে ও পজিটিভ মাইন্ডসেট নিয়ে নেমেছে বলে সেঞ্চুরি করতে পেরেছে।’

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম