SCORE

Breaking News

তামিম-মুমিনুলের ব্যাটে লড়ছে বাংলাদেশ

Share Button

তামিম ইকবাল ও মুমিনুল হককে পাড়ি দিতে হবে লম্বা পথ। তাদের জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন সময়। পচেফস্ট্রম টেস্টের তৃতীয় দিনে এ দুই ব্যাটসম্যানের দিকেই তাকিয়ে থাকবে বাংলাদেশ। ৩ উইকেটে ৪৯৬ রান করে ইনিংস ঘোষণা করেছে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। দিনশেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১২৭।

দিনের শুরুটা ভালোই করেন দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ব্যাটসম্যান ডিন এলগার ও হাশিম আমলা। শতক তুলে নেন হাশিম আমলা। ইনিংস লম্বা করে দ্বিশতকের দিকে এগিয়ে যান এলগার। ২১৫ রানের এক বিশাল জুটি গড়েন দুজন। দ্বিতীয় দিনেও ব্যাটিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা রান তুলছিল অনায়াসে। দ্বিতীয় উইকেটের পতনের জন্য বাংলাদেশের অপেক্ষা করতে হয় ১১৮ তম ওভার পর্যন্ত। ১৩৭ রানের ইনিংস খেলে শফিউল ইসলামের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে মেহেদি হাসান মিরাজের হাতে ক্যাচ তুলে দেন আমলা। ৬৩ ওভার বোলিংয়ের পর উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ।

টেমবা বাভুমাকে নিয়ে ৩৪ রান যোগ করেন এলগার। দ্বিশতকের কাছাকাছি চলে গিয়েছিলেন তিনি। রান তখন ১৯৯। বাঁহাতি ফাস্ট বোলার মুস্তাফিজুর রহমানের অফ স্টাম্পের বাইরে শর্ট বল, এলগার চাইলেন পুল করতে। তবে বল মাটিতে নামিয়ে। কিন্তু নামাতে পারলেন না। বল ভেসে গেল শূন্যে। ১৯৯ রান করে ধরা পড়লেন মুমিনুল হকের হাতে। এলগারের মুখে তখন কষ্টের হাসি। এক রানের আফসোস নিয়ে সাজঘরে ফিরে যান তিনি। ইতিহাসের দশম ব্যাটসম্যান হিসেবে ১৯৯ রান করে আউট হয়েছেন এলগার।

Also Read - জাতীয় দলের লক্ষ্যেই অনূর্ধ্ব-১৭ দলের প্রস্তুতি

এরপর টেমবা বাভুমা ও অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস ৫১ রানের জুটি গড়েন। ৩ উইকেটে ৪৯৬ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে দক্ষিণ আফ্রিকা। বাভুমা ৩১ রান ও ডু প্লেসিস ২৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন।

বাংলাদেশের হয়ে প্রথমবারের মতো ওপেনিংয়ে নামেননি তামিম ইকবাল। ইনিংস সূচনা করতে নামেন লিটন দাস ও ইমরুল কায়েস। এ জুটি বেশিক্ষণ টিকেনি। ষষ্ঠ ওভারেই ভেঙে যায় এ জুটি। পতন ঘটে প্রথম উইকেটের। দলীয় ১৬ রানের মাথায় ফাস্ট বোলার কাগিসো রাবাদার শর্ট লেন্থের বল রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে খেলতে চেয়েছিলেন ইমরুল কায়েস। কিন্তু পারেননি। ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন স্লিপে। তালুবন্দী করতে ব্যর্থ হননি এইডেন মারক্রাম। ৭ রান করে তিনি চলে যান সাজঘরে।

মরনে মরকেল আর কাগিসো রাবাদাকে ভালোই সামলাচ্ছিলেন লিটন কুমার দাস। প্রায় দেড়শো ওভার কিপিংয়ের পর ওপেনিংয়ে নামা লিটন দাসকে নিয়ে কিছুটা শঙ্কা ছিল। তবে দারুণ শটে সেই শঙ্কা দূর করেছেন তিনি। বেশ আত্মবিশ্বাসের সাথেই চালাচ্ছিলেন ব্যাট। কিন্তু ইনিংস লম্বা করতে পারলেন না। এমন দারুণ সূচনা পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। চারটি চারে ২৫ রানের ইনিংস খেলে মরনে মরকেলের অফ স্টাম্পের বাইরের বল তাড়া করতে গিয়ে স্লিপে হাশিম আমলার হাতে বল তুলে দেন লিটন কুমার দাস।

৩৬ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটলে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সেই চাপ দূরে সরাতেই যেন কিছুটা আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করছিলেন মুশফিকুর রহিম। পেসারদেরকে দারুণ সব শটে মাঠ ছাড়া করলেও কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছিল কেশব মহারাজকে সামলাতে। ব্যক্তিগত ৬ রানের মাথায় এ স্পিনারের বলে ক্যাচ দিয়েছিলেন স্লিপে থাকা ডিন এলগারের হাতে। ফসকে গিয়েছিল সে ক্যাচ। ১৫ রানের মাথায় কেশবের বলে আবারো এলগারের হাতেই ক্যাচ দেন।  এবারো ধরতে পারেননি এলগার। দুই জীবন পাওয়া মুশফিক মুমিনুলকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলেন।

মুশফিক আর মুমিনুলের ৬৭ রানের জুটি ভাঙেন কেশবই। দুইবার জীবন পেয়েও ৪৪ রানের বেশি করতে পারেননি মুশফিক। সেই কেশব মহারাজের বলেই ফিরে গিয়েছেন। শর্ট লেগে থাকা এডেইন মারক্রামকে ক্যাচ দিয়ে আউট হন মুশফিক।

এরপর হাল ধরেন তামিম ইকবাল। প্রথমবারের মতো পাঁচ নম্বরে ব্যাটিং করতে এসেছেন তামিম ইকবাল। সঙ্গী মুমিনল হককে নিয়ে এখন পর্যন্ত ২৪ রান তুলেছেন। এর মধ্যে ২২ রানই এসেছে তামিমের ব্যাট থেকে। চার হাঁকিয়েছেন তিনটি। কেশব মহারাজের করা দিনের শেষ বলে ডাউন দ্যা উইকেটে এসে হাঁকিয়েছেন ছক্কা। মুমিনুল হক অপরাজিত আছেন ২৮ রান করে।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে আরেকবার ব্য্যাটিংয়ে নামাতে চাইলে আরো ১৭০ রান করতে হবে বাংলাদেশকে। হাতে আছে সাত উইকেট। ব্যাটিংয়ে নামবেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান ও মেহেদি হাসান মিরাজরা। তবে তামিম ও মুমিনুলের দিকেই তাকিয়ে আছে বাংলাদেশ। তাদের লড়াই যত লম্বা হবে বাংলাদেশের পথ হবে তত মসৃণ। দ্বিতীয় দিনের শেষ সময়টুকু দায়িত্ব নিয়েই ব্যাট করেছেন দুই বাঁহাতি। তৃতীয় দিনের শুরুতেও প্রয়োজন দায়িত্বশীল ব্যাটিং। তাদের বড় জুটিতেই ঘুরে দাঁড়াতে পারে বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ দক্ষিণ আফ্রিকা ৪৯৬/৩, (প্রথম ইনিংস) ডিক্লেয়ার্ড
এলগার ১৯৯, আমলা ১৩৭, মারক্রাম ৯৭
শফিউল ১/৭৪, মুস্তাফিজুর ১/৯৮

বাংলাদেশ ১২৭/৩ (প্রথম ইনিংস)
মুশফিক ৪৪, মুমিনুল ২৮*, লিটন দাস ২৫
রাবাদা ১/২৩, মরকেল ১/৩৪

Related Articles

স্বেচ্ছায় নেতৃত্ব ছাড়ছেন না মুশফিক!

বাংলাদেশের সামনে কঠিন সময়

পচেফস্ট্রুম টেস্টঃ বোলিংয়ে আর দেখা যাবে না মরকেলকে

বাংলাদেশের লক্ষ্য ৪২৪

শেষ বিকেলে স্বস্তি দিল পেসাররা