পেরেরার ঝড়ে বিশ্ব একাদশের জয়

0

ম্যাচটা কিছুটা হেলেছিল পাকিস্তানের দিকেই। জেতার জন্য বিশ্ব একাদশের দরকার ছিল বিস্ফোরক ইনিংস। আর সেই বিস্ফোরণটা ঘটালেন শ্রীলঙ্কান অলরাউন্ডার থিসারা পেরেরা। ১৯ বলে অপরাজিত ৪৭ রানের ইনিংস খেলে সমতায় ফেরালেন বিশ্ব একাদশকে।

প্রথমে ব্যাট করতে নামে পাকিস্তান। ওপেনিং জুটিতে দলকে দারুণ সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার ফখর জামান এবং আহমেদ শেহজাদ। দলকে ৪১ রানের ভিত গড়ে দেন। ৪ চারে ১৩ বলে ২১ রান করে স্যামুয়েল বাদ্রির বলে এলবিডব্লিউ হন ফখর। এরপর হাল ধরেন বাবর আজম। শেহজাদ ও বাবর যোগ করেন ৫৯ রান। তাদের জুটি বড় স্কোরের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় পাকিস্তানকে। তাদের জুটি ভাঙেন ইমরান তাহির। ৩৪ বলে ৪৩ রানের ইনিংস খেলে আউট হন শেহজাদ।

Also Read - অজুহাত দাঁড় করাতে চান না কায়েস

বাবর আজমের সাথে ৩৫ রান তুলেন শোয়েব মালিক। ৪৫ রান করে বাদ্রির বলে বোল্ড হন বাবর। তবে শোয়েব মালিক টিকেছিলেন শেষ ওভার পর্যন্ত। ১ চার আর ৩ ছক্কায় মাত্র ২৩ বলে ৩৯ রান করেন তিনি। তার এ ইনিংসের সুবাদে পাকিস্তানের স্কোর দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ১৭৪।

দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও হাশিম আমলার ব্যাটে জবাবটা ভালোই দিচ্ছিল বিশ্ব একাদশ। তামিম ও আমলা উদ্বোধনী জুটিতে সংগ্রহ করেন ৪৭ রান। তামিম বড় ইনিংসের ইঙ্গিত দিলেও ফিরে যান ১৯ বলে ২৩ রান করে। সোহেল খানের বলে শোয়েব মালিকের হাতে ক্যাচ দেন তামিম। তার ইনিংসে ছিল ২ চার ও ১ ছক্কা।

এরপর দ্রুত ফিরে যান টিম পেইন। ৭২ রানের মাথায় পতন হয় পেইনের (১০)। ইমাদ ওয়াসিম বোল্ড করেন তাকে। এতে করে চাপে পড়ে যায় বিশ্ব একাদশ। প্লেসিসকে নিয়ে ৩৫ রানের জুটি গড়েছিলেন আমলা। প্লেসিস হাঁকান দুই ছয়। তবে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠার আগেই ২০ রান করে ফিরে যান মোহাম্মদ নওয়াজের বলে।

তারপরের গল্পটা আমলা-পেরেরার। ওপেনিং থেকেই এক প্রান্ত আগলে রেখে খেলছিলেন তিনি। সচল রাখেন রানের চাকা। পেরেরা যখন ক্রিজে আসেন তখন ৩৬ বলে দলের দরকার ছিল ৭৫ রান।

শেষ ২ ওভারে বিশ্ব একাদশের প্রয়োজন ছিল ৩৩ রান। রান আর বলের ব্যবধানটা কমাতে পারছিলেন না পেরেরা-আমলা। ১৯ তম ওভারের প্রথম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে ম্যাচে টিকিয়ে রাখেন পেরেরা। চতুর্থ বলে পেরেরা ক্যাচ ফসকে যায় মালিকের হাত থেকে। নয়তো খেলার চিত্র উলটো হতে পারতো। জীবন পাওয়ার পরের বলে আবারো বিশাল ছয় হাঁকান পেরেরা। সব মিলিয়ে সোহেল খানের করা ওভারটিতে ২০ রান নিয়ে নেয় বিশ্ব একাদশ।

পরের ওভারে প্রথম চার বলে ওয়াইড ও প্রান্ত বদল মিলিয়ে ৭ রান নিতে সক্ষম হয় বিশ্ব একাদশ। পঞ্চম বলে স্ট্রাইকে ছিলেন পেরেরা। রাইসের করা বল সোজা সীমানার বাইরে পাঠিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন এ লঙ্কান অলরাউন্ডার। আমলার অবদান ছিল ৭২ রান। শ্বাসরূদ্ধকর ম্যাচে বিশ্ব একাদশ জয় পায়ে সাত উইকেটে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ পাকিস্তান ১৭৪/৬, ২০ ওভার

বাবর ৪৫, শেহজাদ ৪৩, শোয়েব মালিক ৩৯
পেরেরা ২/২৩, বাদ্রি ২/৩১

বিশ্ব একাদশ ১৭৫/৩, ১৯.৪ ওভার

আমলা ৭২*, পেরেরা ৪৭*, তামিম ২৩
নওয়াজ ১/২৫, ওয়াসিম ১/২৭