যেভাবে প্রস্তুতি নেন তামিম

0

বাংলাদেশের অবিসংবাদিত সেরা ব্যাটসম্যান তিনি। দেশের ক্রিকেটের বেশ কয়েকটি রেকর্ড তার দখলে, ছাড়িয়ে গেছেন সমসাময়িক ও আগেরকার যুগের স্বদেশী ক্রিকেটারদেরও। তামিম ইকবালের যথারীতি অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও ছিল চওড়া।

ঢাকা টেস্টে দুই ইনিংসে যথাক্রমে ৭১ ও ৭৮ রান করেন তামিম। সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ থাকছেই, তবে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ঢাকা টেস্ট জয়ে সাকিবের পরই যে তামিমের চওড়া ব্যাটিংয়ের অবদান, সেটি স্বীকার করতে হচ্ছে নির্দ্বিধায়ই।

Also Read - ঢাকা টেস্ট নিয়ে পড়ে নেই তামিম

এই যে বিশ্বসেরা বোলারদের বিপক্ষে ত্রাস সৃষ্টি করেন তামিম, নিজের প্রস্তুতিটুকু কীভাবে নেন তিনি? সম্প্রতি বাঁহাতি ওপেনার জানিয়েছেন তার প্রস্তুতির কথা।

দেশের শীর্ষস্থানীয় দৈনিক প্রথম আলোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তামিম বলেন, ‘এই প্রস্তুতির মধ্যে ঘুমটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আগে হয়তো ম্যাচের আগে ঘুমাতে ঘুমাতে রাত সাড়ে বারোটা-একটা বাজিয়ে ফেলতাম। লেট নাইট-টাইটের জন্য নয়, আমি কেমন ছেলে, তা তো আপনি জানেনই। হয়তো রুমেই এটা-ওটা করতে করতে ঘুমাতে দেরি হয়ে যেত। গত দুই বছরে বুঝেছি, ঘুম কতটা গুরুত্বপূর্ণ।’

লম্বা সময় ধরে অনুশীলন করার চেয়ে লপ সময় কিন্তু যথার্থভাবে অনুশীলন করাটাই মুখ্য তামিমের কাছে। তিনি বলেন, ‘প্র্যাকটিসে কত বল খেললাম, সেটি আর আমার কাছে কোনো ব্যাপার নয়। ২-৩ ঘণ্টা প্র্যাকটিসও করি না। হয়তো পনেরো মিনিট ব্যাটিং করি, তবে সেটি খুব কঠিনভাবে।’

ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ভালো সময় পার করছেন- সাক্ষাৎকার গ্রহীতার এমন কথায় তামিম বলেন, ‘আপনি ভালো সময়ের কথা বলছেন, তবে আমি কিন্তু পুরোপুরি খুশি না। অনেক রান করেছি, কিন্তু আরও ভালো করতে পারতাম। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে (দ্বিতীয় টেস্টে) ৮২ রানে আউট হয়ে গেলাম, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৯৫ রানে (চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে)—এগুলো তো সুযোগ নষ্ট করা।

এ সময় তামিম জানান সবচেয়ে বেশিবার বিশ্বকাপ জেতা দল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলা নিজের প্রথম টেস্টের অভিজ্ঞতাও, ‘ওদের খেলা অনেক দেখেছি, অনেকের খেলা আমার পছন্দও ওদের সঙ্গে একই মাঠে টেস্ট খেলছি, এটাতে তো একটু বাড়তি রোমাঞ্চ ছিলই দেখেছি, ওরা কীভাবে কী করে।’

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম