SCORE

Trending Now

চ্যালেঞ্জ লুফে নিচ্ছেন সাকিব

Share Button

দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে খেলা স্বাগতিক ছাড়া যেকোনো দলের জন্যই কঠিন। সেটি অবশ্য স্পষ্ট হয়ে উঠছে দক্ষিণ আফ্রিকা সফররত বাংলাদেশ দলের পারফরমেন্স দেখেই। টেস্ট সিরিজে বাজেভাবে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর মুশফিক-রিয়াদ-তামিমরা হেরেছেন প্রস্তুতি ম্যাচেও।

ভনের সেরা একাদশে সাকিব

তবে এই চ্যালেঞ্জকে লুফে নিচ্ছেন দলের সেরা ক্রিকেটার ও বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। শুক্রবার অনুশীলন সেশনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি চ্যালেঞ্জ গ্রহণ প্রসঙ্গে এমন মন্তব্য করেন।

Also Read - বিশ্বকাপ বাছাইয়ের আয়োজক জিম্বাবুয়ে

দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলা সফরকারী দলগুলোর জন্য যে চ্যালেঞ্জ, সেটি মনে করিয়ে দিয়ে সাকিব বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকায় স্বাগতিকদের বিপক্ষে খেলা। আমি বার বার বলছি, আমাদের জন্য অনেক চ্যালেঞ্জিং।

তবে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে ঐ চ্যালেঞ্জটাকেই স্বাগত জানাচ্ছেন সাকিব। তিনি বলেন, ক্রিকেট যেহেতু খেলি, এই চ্যালেঞ্জটাই তো আমরা নিতে চাই। এই চ্যালেঞ্জগুলো না আসলে তো খেলার মজাটা আসবে না। আশা করি, সবাই চ্যালেঞ্জটা নিতে প্রস্তুত থাকবে আর ভালো করার চেষ্টা করবে।

বাংলাদেশ দল দক্ষিণ আফ্রিকার পাড়ি জমানোর প্রায় এক মাস হল। সাকিব দলের সাথে যোগ দিয়েছেন মাত্র সেদিন। অথচ প্রস্তুতি ম্যাচে অন্যদের চেয়ে সাকিবই ছিলেন বেশি সাবলীল ও স্বাছন্দ্য। কন্ডিশনের সাথে অল্প সময়েই খাপ খাওয়ানো কি সাকিবের স্কিলের কারসাজী? উত্তরে বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার জানান, বলা মুশকিল। একেক জনের ধরন তো একেক রকম। আমার মুভমেন্ট ভালো হচ্ছিল বলে হয়তো আমি সময় একটু বেশি পাচ্ছিলাম। এগুলো টেকনিক্যাল জিনিস আমি খুব একটা বলতে পারব না। মাঠে আমরা কিভাবে অ্যাপ্রোচ করি সেটাই আমাদের জন্য সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

দ্বিতীয় টেস্ট শুরুর আগে মুশফিকুর রহিম জানিয়েছিলেন, এমন খেললে শ্রদ্ধা হারিয়ে ফেলতে পারে বাংলাদেশ। তবে সাকিবের মতে, একটি সিরিজে শ্রদ্ধা লাভ করা বা হারানোর মতো নেই কিছুই- ক্রিকেট তো একটা খেলা, না? জিনিসগুলো ভাবা আমাদের কাছে মনে হয়, একটু হাসির মতোই। দক্ষিণ আফ্রিকা যখন শেষবার বাংলাদেশে গেছে ওরা হেরেছে। কেউ অনুমান করেনি, ওরা হারবে। তাতে কি ওদের সব অর্জন ম্লান হয়ে গেছে? অবশ্যই হয়নি। ব্যাপরাগুলো আসলে এমনই।

নিজেদের কন্ডিশনে দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য জয় তুলে নেওয়া সহজ জানিয়ে সাকিব বলেন, যেহেতু ছোটবেলা থেকে ওরা এখানে খেলে, ওদের জন্য জেতাটা অনেক সহজ হবে; আমাদের জন্য অবশ্যই হবে না। যতই আমরা দুই-তিন-চার সপ্তাহ আগে আসি, এমনকি এক মাসের ক্যাম্প করি, দুই মাসের ক্যাম্প করি। দুই মাসের ক্যাম্প আর ২০ বছরের খেলার অভিজ্ঞতা তো এক না।

তবে সবার চেষ্টায় ভালো করার প্রত্যয় সাকিবের। তিনি বলেন,আমাদের বিশ্ব মানের খেলোয়াড় আছে, বিশ্ব মানের পারফরম্যান্স আছে। বড় বড় জায়গাতেও আমরা ভালো করেছি, আমরা সেই কাজগুলোই আবার যেন করতে পারি।

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম

Related Articles

ইনজুরির কারণে টি-২০ সিরিজে নেই ডু প্লেসিস

প্রোটিয়াদের মুখে খুশির ঝিলিক

সাকিবে ভরসা মাশরাফির

‘দেশের ক্রিকেটের জন্য বিপদসংকেত’

হোয়াইটওয়াশ এড়াতে বাংলাদেশের লক্ষ্য ৩৭০