SCORE

ফিল্ডিং নেওয়াটা মুশফিকের একার সিদ্ধান্ত নাঃ তামিম

Share Button

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজ শুরু হওয়ার আগেই চোট পেয়েছিলেন তামিম ইকবাল। চোট নিয়ে প্রথম টেস্ট খেললেও দ্বিতীয় টেস্টে ঝুঁকি থাকায় তাকে ছাড়াই মাঠে নামতে হয়েছে বাংলাদেশ দলকে। ফলে ইনিংস ব্যবধানে পরাজয়ের স্বাদ পেয়েছে দল।

'আমার অধিনায়ক মুশফিকই'

দ্বিতীয় টেস্টে না খেলার পাশাপাশি নাও খেলতে পারেন প্রথম ওয়ানডে। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ৪ সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে বলা হয়েছে তামিমকে। তবে পুরোপুরি ফিট না হলেও ৮০ ভাগ ফিট হলেই মাঠে নামবেন দেশ সেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। একইদিনে সাকিব আল হাসানকে ছাড়াই প্রথম টেস্টে খেলতে নেমেছিল দল।

Also Read - মাশরাফির নৈপুণ্যে ভাস্বর ৯ অক্টোবর

দ্বিতীয় টেস্টে ইনজুরির কারণে ছিটকে গিয়েছিলেন তামিমও। তামিম-সাকিব বিহীন দলকে নেতৃত্ব দেওয়া কঠিনই ছিল মুশফিকের কাছে। তার পাশাপাশি মুশফিকের অধিনায়কত্ব নিয়ে সমলোচনা তো আছেই। তবে এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। বরাবরের মতো আবারো সমলোচনার সম্মুখীন হতে হয়েছে মুশফিককে।

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে অবাক করেছিলেন সবাইকে। যার ফলাফল হাতেনাতে পেয়েছে দল। এমন ব্যাটিং পিচে কেন ফিল্ডিং নিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সেটি নিয়ে আলোচনা-সমলোচনা শেষ নেই।

দ্বিতীয় টেস্টেও টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্কের মুখে পড়েছেন মুশফিকুর রহিম। তবে প্রথম টেস্টে পিচ রিড করতে না পারার বিষয়টি অকপটেই শিকার করেছেন মুশফিক। তবে দ্বিতীয় টেস্টে বোলিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত যে একবারে ফেলে দেওয়ার মতো সেটাও নয়।

উইকেটে প্রথম কয়েক ঘন্টা পেসাররা সুবিধা পাবে বিধায় বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মুশফিক। তবে বর্তমানে দলের অন্দরমহলের যে অবস্থা সেটা পরিষ্কারভাবে বুঝা যায় কোন কিছুই একার সিদ্ধান্তে হচ্ছেনা। দ্বিতীয় টেস্টে বাউন্ডারি লাইনে ফিল্ডিং করেছেন মুশফিক।

টসে জিতে ফিল্ডিং নেওয়াতে কঠোর সমলোচনার মুখে পড়তে হয় মুশফিককে। মূলত টসের ব্যাপারটি দলীয় সিদ্ধান্তে হলেও একপ্রকার মুশফিকের উপরই দোষ চাপিয়ে দিয়েছেন সবাই। ফিল্ডিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত যে মুশফিকের একার ছিল না সেটি জানিয়েছেন সহ-অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

“টসে জিতে ফিল্ডিং করা অবশ্যই দলের সিদ্ধান্ত। এটা কোন সময় কারো একার হতে পারে ন। কোচ, অধিনায়ক, সহ- অধিনায়ক, সবারই মতামত থাকে এতে। আগের টেস্টের চিত্র দুই-একটা হয়ত ভিন্ন ছিল কিন্তু এই টেস্টে আমাদের চিন্তা পরিষ্কার ছিল।”

“আমরা সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে টসে জিতলে বোলিং নিব। অধিনায়ক যে-ই- হোক, দিনশেষে আমরা সবাই তো মানুষ। ভুল হতেই পারে।” 

আগের টেস্টে টসে জিতে ফিল্ডিং নেওয়াটা যে ভুল ছিল সেটি শিকার করেন এই দেশসেরা ওপেনার। ব্যাটিং নিলে ভাল হত বলে মনে করেন তিনি। তবে সেটি যে মুশফিকের একার সিদ্ধান্ত ছিল না সেটিও বলেন তামিম। সবার সম্মিলিত সিদ্ধান্তে বোলিং বেছে নিয়েছিল মুশফিক।

“পচেফস্ট্রুমে বলতে পারেন ভুল সিদ্ধান্ত ছিল। ওখানে আগে ব্যাটিং করলে হয়ত ভালো হতো। তবে আবারও বলছি, সেটি অধিনায়কের একার সিদ্ধান্ত ছিল না। সবাই একমত হয়েই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। মুশফিক যেহেতু অধিনায়ক, তার ঘাড়ে দোষ চাপানো সহজ।”

তিনি আরো যোগ করেন, “দোষটা আসলে আমাদের ২৪-২৫ জনের উপরই আসা উচিত। তবে দ্বিতীয় টেস্টের আগে আমারও মনে হয়েছিল ফিল্ডিং নিলে ঠিক হবে এখানে। কারণ প্রথম দিনে উইকেট বোলারদের জন্য একটু সাহায্য ছিল।”

Related Articles

টিভি পর্দায় টি-১০ প্রতিযোগিতা

শুনানি শেষ, দুবাইয়ে খেলতে যাচ্ছেন তামিম

তামিমের শুনানি আজ

টি-টেন খেলতে দুবাইয়ে সাকিব

টি-টেনে খেলার অনাপত্তিপত্র পাননি মুস্তাফিজ