‘মুশফিককে তার মতই খেলতে দেওয়া উচিত’

0

মুশফিকের অভিষেক হয়েছিল একজন ব্যাটসম্যান হিসেবে। দলে আরেক উইকেটকিপার খালেদ মাসুদ পাইলট থাকায় উইকেটের পেছনে দাঁড়াতে পারেননি মুশফিক। তবে ২০০৭ সালে খালেদ মাসুদকে হটিয়ে কিপার হিসেবে প্রথম চয়েজের তালিকায় নাম আসে মুশফিকের।

'মুশফিককে তার মতই খেলতে দেওয়া উচিত'

এর পর থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি মুশফিককে। ক্যারিয়রের শুরুর দিক দিয়ে একটু হোঁচট খেলেও আবারো ঘুরে দাঁড়ান তিনি। দীর্ঘ সময় ধরে দলকে উইকেটের পেছন থেকে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন মুশফিকুর রহিম কিন্তু বয়স বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে দায়িত্বও।

Also Read - সাকিবের পর অর্ধশতক করলেন সাব্বির

দলের ব্যাটিং স্তম্ভ হওয়ায় তাকে উপরেই ব্যাটিং করতে হয়। ওয়ানডেতে নিয়মিত চারে ব্যাট করলেও টেস্টে কিপিং করে ছয়ে ব্যাটিং করতে হয় মুশফিককে। অধিনায়কত্বের চাপ, সেরা ব্যাটসম্যানের চাপ যেন দায়িত্বটা আরো বেড়ে যায় মুশফিকের। তবে গত দুই বছর থেকে টেস্টে ব্যাটিং পজিশন পরিবর্তন হয়েছে মুশফিকের।

ছয়ে থেকে চারে উঠে এসেছেন তিনি সঙ্গে ছাড়তে হয়েছে নিজের সবচেয়ে পছন্দের কিপিংয়ের দায়িত্বটাও। মূলত টিম ম্যানেজমেন্টের চাওয়া অনুযায়ী কিপিং গ্লাভস ছেড়ে চারে ব্যাট করতে নামেন তিনি। আর কেনই বা চাইবে না টিম ম্যানেজমেন্ট; দলের সেরা ব্যাটসম্যানরা তো এই পজিশনেই ব্যাট করে থাকেন।

তবে কিপিংয়ের দায়িত্বটা ছাড়তে একটু নারাজ মুশফিক। দীর্ঘ সময় ধরে উইকেটের পেছনে থাকার কারণে এক ধরণের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। কিপিং না করলে যেন গা-ছাড়া ভাব নিয়ে মাঠে নামেন মুশফিক। যার কারণে প্রভাব ফেলে দলেও। তবে এইদিক থেকে ভিন্ন কথা বললেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক আশরাফুল।

টিম ম্যানেজমেন্ট যেখানে দলের ভালোর জন্য টেস্টে মুশফিককে উপরে খেলাতে চাইছেন সেখানে মোহাম্মদ আশরাফুল বললেন ভিন্ন। তার মতে মুশফিক যেটাতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন সেটাই করতে দেওয়া উচিত তাকে এবং চার নম্বর পজিশনের জন্য অন্য ব্যাটসম্যানের সন্ধান করা উচিত বলে মনে করেন তিনি।

“আমার মনে হয় মুশফিককে ওর মতোই খেলতে দেওয়া উচিৎ। ও উইকেটকিপিং করতে পছন্দ করে আর ছয় নম্বরে ব্যাট করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। ওকে তাই করতে দেওয়া উচিৎ। কিপিং ছাড়া ওর আত্মবিশ্বাস কাজ করেনা। আর চার নম্বরে ও ব্যাট করতে কমফোর্টেবল বোধ করে না। আমাদের চার নম্বরের জন্য অন্য ব্যাটসম্যান খোঁজা উচিত।”