‘নিজেদের কোচ থাকতে বিদেশি কোচ কেন?’

গোলাম নওশের প্রিন্স। বাংলাদেশ দলের সাবেক বোলার। দেশের ক্রিকেটের উত্থানের পেছনে যাদের অবদানের দেয়াল রয়েছে, সেখানে ছোঁয়া আছে তারও।

'নিজেদের কোচ থাকতে বিদেশি কোচ কেন?'

মিরপুরে অনুশীলনরত ক্রিকেটারদের সাথে বৃহস্পতিবার সময় কাটালেন প্রিন্স। কাছ থেকে দেখলেন উত্তরসূরিদের, দিলেন অনেক পরামর্শ। শেষে কথা বললেন সংবাদমাধ্যমের সাথেও। যার শেষদিকে তিনি জানতে চাইলেন, দেশি কোচ থাকতেও কেন বিদেশি কোচ খুঁজছে বোর্ড।

Also Read - মুখ খুলতে চাইছেন না সাব্বির

অনেকদিন পর ক্রিকেট মাঠের ছোঁয়া পেয়ে রোমাঞ্চ যেন ছুঁয়ে গেল তাকে, ‘বিশ্বাস করেন মনে হল যে আমার সেই পুরনো দিনের কথা, ক্রিকেটারদের সাথে গল্প করছি। মজা করছি। আামি তাদের সঙ্গে সময়টা বেশ উপভোগ করেছি। ভালো দিক হলো তারাও খুব মনোযোগ সহকারে কথাগুলো শুনেছে। আশা করবো ওখান থেকে ভাল জিনিসগুলো ওরা নেবে। আমি তো আর কোচ না। সারাজীবন কষ্ট করে ক্রিকেট শিখেছি। যেটা আমি জানি সেটা আমি দেওয়ার চেষ্টা করেছি।’

দলের অন্যতম প্রধান অস্ত্র মুস্তাফিজুর রহমানকেও দিয়েছেন বিশেষ টিপস, ‘সবাই বলে ইনসুইং, আমি যতবার আসি ততবার বলি ওর ইনসুইং দরকার। কিন্তু ইনসুইংটা কত ক্লোজ কত কীভাবে করতে হবে কিছু টেকনিক আমি বলেছি।’

প্রিন্স বলেন, ‘সবার জন্যই বোলিংয়ের কিছু সাজেশন দেওয়ার চেষ্টা করেছি। কীভাবে আমি করতাম। দিন তো পরিবর্তন হয়েছে, এখন কোচ আসছে। কোচ তো আসবে যাবে। কিন্তু এটা তোমাদের নিজেদের মাথায় রেখে করতে হবে। মাঠের ভেতরে বোলিং করার ট্যাকটিসটা কিন্তু ওটা তোমার।’

ক্রিকেটারদের প্রতি পরামর্শ রেখে তার ভাষ্য, ‘আমি পেসারদের বলেছি দেখ ভালো বোলিং করার জন্য, সুস্থ থাকার জন্য বিভিন্ন জায়গায় বসে খেতাম না। আর সব সময় একটা ক্রিকেট সংস্কৃতির মধ্যে থাকতাম। ক্রিকেট সংস্কৃতির মধ্যে থাকাটা খুব জরুরী। এটা তো সিরিয়াস গেম। আমি ওটা বলেছি যে তোমার নিজেকে ক্যারি করতে হবে ওইভাবে। মর্যাদাশীল হতে হবে। কারণ তুমি আমাদের দেশের সম্পদ। ওদেরকে ওইভাবেই চলতে হবে।’

এদিকে দেশের ক্রিকেটে যখন বিদেশি কোচ রাখা-না রাখা নিয়ে তুমুল আলোচনা, তখন প্রিন্সও প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন- বিদেশি কোচ আমাদের আদৌ দরকার কি না। তিনি বলেন, ‘আমাদের কী আসলেই বিদেশি কোচ দরকার? নিজেদের দেশে এত কোচ থাকতে! আমরা তো জানি লেভেল ১, ২, ৩ করা লোক আছে অনেক। আমাদের খেলোয়াড়, কোচরাও কিন্তু অনেক কোচের সঙ্গেই কাজ করেছে। কোচিং তো আর রকেট সায়েন্স না! আমার ধারণা স্থানীয় কোচদের কথা খেলোয়াড়রা সুন্দরভাবে বুঝতে পারে, নিজেদের কথাও সুন্দরভাবে প্রকাশ করতে পারে। দেশি কোচ হলেই এ দলটার জন্য ভালো হয়।’

আরও পড়ুনঃ বাংলাদেশ-বধের জন্য মনোবিদও এনেছে শ্রীলঙ্কা!