SCORE

Trending Now

মুশফিকই বাংলাদেশের মূল ব্যাটিং স্তম্ভ, দাবি সুজনের

২০১১ সালে বাংলাদেশ ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটের দায়িত্ব আসে মুশফিকের কাঁধে। ২০১২-২০১৩ অধিনায়ক হিসেবে ভালো সময় কাটালেও ২০১৪ সালে অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে কঠিন সময় পার করেছেন মুশফিকুর রহিম। ব্যাট ও উইকেটের পেছনে সাফল্য পেলেও অধিনায়ক হিসেবে সাফল্যের মাত্রা ছিল শূন্যর কোটায়।

‘মুশফিক অনেক স্মার্ট, বুদ্ধিমান ছেলে’

 

Also Read - 'পাপন সাহেব অনেক চালাক'

একের পর এক পরাজয় যেন চেপে বসেছিল মুশফিককে। তবে বছরের শেষদিকে মুশফিকের কাঁধ থেক চাপ কমাতে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির অধিনায়কের দায়িত্ব পড়ে মাশরাফি মুর্তজার কাঁধে। সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব হারালেও, টেস্ট দলের ভার ছিল মুশফিকের কাঁধেই।

সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে চাপমুক্ত করাতে ব্যাট হাতে আগের চেয়েও বেশি সাফল্য পেয়েছেন মুশফিক। তবে অধিনায়কত্ব নিয়েই টেস্ট ক্রিকেটে নিজের সেরাটাই দিয়েছেন তিনি। টেস্ট ক্রিকেটে দলের সেরা সাফল্যগুলো এসেছে তার অধীনেই। ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে বধ, ঘরের মাঠে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মতো দলকে হারানো।

নিজেদের শততম টেস্টে শ্রীলঙ্কার মাটিতে, শ্রীলঙ্কাকে হারানোর; সবই এসেছে মুশফিকের অধীনেই। এতো সাফল্যের পরেও সব সিরিজেই আলোচনা-সমলোচনার আলোচ্য বিষয় ছিল মুশফিক। সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে অধিনায়ক হিসেবে দলকে শেষবারের মতো নেতৃত্ব দিয়ে ফেলেছেন মুশফিক।

মাঠে এবং মাঠের বাইরে নানান মন্তব্যে অধিনায়কত্ব হারাতে হয়েছে মুশফিককে। মূলত অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ে কেন ব্যাটিংয়ে নামেননি অধিনায়ক। ম্যাচ শেষে এই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা হলে; উপরে যারা আছেন তাঁদের কাছেই উত্তর চাইতে বলেন মুশফিক।

সংবাদ সম্মেলনে মুশফিকের এমন মন্তব্য মানতে নারাজ ছিলেন বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে টেস্ট সিরিজে নিজের ফিল্ডিং পজিশন এবং বেফাঁস মন্তব্যে মুশফিকের উপর বেশ চটেছিলেন বোর্ড প্রধান। নিজের বেফাঁস মন্তব্যে খেসারত দিতে হয়েছে মুশফিককে।

২০১৪ সালে সীমিত ওভারের পর ২০১৭ সালে শেষ হলো মুশফিকের অধিনায়কত্বের অধ্যায়। দীর্ঘ সময় ধরে দলকে টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে আসা মুশফিক আসন্ন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারবেন কিনা সেই প্রশ্ন রাখা হয়েছিলো জাতীয় দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজনের কাছে।

তবে অধিনায়কত্ব না থাকলেও নিজের স্বাভাবিকটাই খেলবেন মুশফিক, সেটিই আশা করছেন সুজন। তাছাড়াও দলের ব্যাটিং স্তম্ভ থেকে সেরাটা বের করে আনার চেষ্টাও করবেন জানিয়েছেন তিনি।

“আমি মনে করি ও অনেক প্রফেশনাল। সে জানে অধিনায়কত্ব চলে যাওয়া মানে এখন আর দশটা ক্রিকেটারের মত। কাজেই এখন আমার পারফরমেন্সটা আগের চেয়েও অনেক বেশি গুরুত্ব দিয়ে বিচার বিবেচনা করা হবে। আমি তাকে চিনি। সে খুবই স্মার্ট, বুদ্ধিমান ছেলে, অনেক ভালো ক্রিকেটার। যে নিজের দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন। টিমম্যান হিসেবে সে অবশ্যই সাপোর্ট করবে বলে আমার বিশ্বাস।”

তিনি আরো যোগ করেন, “এটা বলার অপেক্ষা রাখে না মুশফিক আমাদের দলের অন্যতম সম্পদ। অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান। বিশেষ করে টেস্টে মূল ব্যাটিং স্তম্ভ। আমার বিশেষ নজর তার দিকে থাকবে অবশ্যই। আমি চাইবো তাকে যতটা সম্ভব স্বাভাবিক রেখে তার সেরাটা বের করে আনতে।” 

আরও পড়ুনঃ ‘পাপন সাহেব অনেক চালাক’

Related Articles

টাইগার হয়ে উঠার ভিত্তি স্থাপিত হয়েছিল যেদিন

যেখান থেকে শুরু ‘নাগিন ড্যান্স’ উদযাপনের

‘আমরা বোর্ডে আছি বলেই তারা এত সুবিধা পাচ্ছে’

‘বল টেম্পারিং’ নিয়ে যা বললেন সুজন

সুজনের অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে জিতল লাল দল