দলনেতাদের মতামতেই ত্রিদেশীয় সিরিজের স্কোয়াড

Share Button

বাংলাদেশ দলের স্কোয়াড ঘোষণা নিয়ে নিকট অতীতে কম জলঘোলা হয়নি। চন্ডিকা হাথুরুসিংহের আমলে গত এক-দেড় বছরে প্রায় প্রতিটা দল ঘোষণা জন্ম দিয়েছে বিতর্কের।

সাকিবকে হারিয়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্রিকেটার মাশরাফি

এর পেছনে অনেক কারণই খুঁজে পেয়েছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ক্রিকেট বোদ্ধারা। তবে একটা ব্যাপার কিছুটা ধোঁয়াশা রেখেই গ্রহণযোগ্য মনে হয়েছিল- আর তা হল দল বাছাইয়ে হাথুরুসিংহের প্রভাব।

Also Read - টিম ম্যানেজমেন্টকেও মিডিয়ার সাথে কথা বলায় নিষেধাজ্ঞা!

বর্তমানে শ্রীলঙ্কা দলের কোচ হিসেবে কাজ করা হাথুরুসিংহের সময় অসহায় ছিলেন খোদ অধিনায়করাও- এমন দাবিও উঠেছিল। আর এর প্রমাণও পাওয়া গিয়েছিল সংবাদমাধ্যমের সামনে মুশফিকুর রহিমের মতো টেস্ট অধিনায়কের (সাবেক) অসহায়ত্ব স্বীকারে।

তবে ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য সদ্য ঘোষিত দলে প্রাধান্য পেয়েছে অধিনায়ক ও সহ-অধিনায়কের মতামত। আর এই ব্যাপারটিকে জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু দেখছেন টিম ওয়ার্কের অংশ হিসেবেই।

হাথুরুসিংহের আমলে খেলোয়াড়দের স্বাধীনতায় ঘাটতি থাকা বা না থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এটা সত্যিকারে চাওয়ার কিছু নয়। এটা আসলে টিম ওয়ার্কের মতো কাজ করে। এই সিরিজের আগ পর্যন্ত হেড কোচ আমাদের নির্বাচক প্যানেলে অন্তর্ভূক্ত ছিল। সুজন এখনো অন্তর্ভূক্ত আছে। সে হিসেবে আমরা দল করার সময় অধিনায়ক, সহ-অধিনায়কের মতামতকে প্রাধান্য দিয়েছি। টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে আমরা দল ঘোষণা করেছি।’

এদিকে দল ঘোষণার আগে সানজামুল ইসলাম ও নাজমুল ইসলাম অপুর অন্তর্ভুক্তির ব্যাপারে শোনা গিয়েছিল জোরে-শোরে। শেষ পর্যন্ত সানজামুল স্কোয়াডে জায়গা পেলেও অবশ্য জায়গা হয়নি অপুর। এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘সানজামুল বেশ কিছুদিন ধরেই আমাদের সিস্টেমের মধ্যে ছিল। এইচপিতে ছিল, কোচের আন্ডারে ছিল। সে অনেক উন্নতি করেছে। সে হিসেবে অপু আমাদের কোথাও ছিল না। ওর এখন যথেষ্ট সময় আছে। এই কারণে সানজামুলকে এগিয়ে রেখেছি। অপুকে আমরা রেখেছি বিপিএল ভালো খেলেছে, ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো খেলেছে। এ জন্য রেখেছি, সামনে তো সময় আছে।’

আরও পড়ুনঃ ত্রিদেশীয় সিরিজে জিম্বাবুয়ে দলে ৭ পরিবর্তন

Leave A Comment