SCORE

Trending Now

হাথুরু’র বিদায়ে শেষ সৌম্য অধ্যায়ও!

Share Button

জাতীয় দলের হয়ে দীর্ঘ সময় ফর্মের বাইরে থাকা সত্ত্বেও দল থেকে কিছুতেই বাদ দেওয়া হচ্ছিলো না কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের প্রিয় শিষ্য হিসেবে পরিচিত সৌম্য সরকারকে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম থেকে শুরু করে মূল মিডিয়াগুলোতেও ব্যাপক সমালোচনা হয়েছিলো দলে সৌম্যকে বারবার সুযোগ দেওয়ায়। অনেকেই এর পিছনে সদ্য সাবেক প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের জেদের দায় দেখেছেন। হাথুরু বিদায় নিয়েছেন, এবার প্রাথমিক দল থেকে বাদ পড়লেন সৌম্যও। অধ্যায়টা যেন একসুতোয় গাঁথা।

Image result for Soumya sarkar

আজ রোববার আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ২ ম্যাচের জন্য ১৬ জনের দল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের দল থেকে নতুন ঘোষিত দলে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। প্রথমবারের মতো পারফম্যান্সের কারণে দল থেকে বাদ পড়েছেন তাসকিন আহমেদ ও সৌম্য সরকার। মুমিনুল,লিটন দাস এবং পেস বোলার শফিউলও বাদ পড়েছেন। দীর্ঘদিন পর ফিরেছেন ওপেনার এনামুল হল বিজয়, আবুল হাসান রাজু ও মোহাম্মদ মিঠুন। ফিরেছেন নাসিরও। তবে সবচেয়ে বড় চমক সম্ভবত সৌম্য সরকারের বাদ পড়া।

Also Read - দলনেতাদের মতামতেই ত্রিদেশীয় সিরিজের স্কোয়াড

সৌম্যকে বাদ দেওয়ার প্রশ্নে সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘সৌম্য সব ফরম্যাটেই কিছুদিন ধরে খেলে যাচ্ছে। ওর প্রতিভা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। ধারাবাহিকতার মধ্যে নেই বলেই আমরা একটা বিরতি দিয়েছি। সিস্টেমের মধ্যেই আছে। সে পুলভুক্ত খেলোয়াড়। আশা করি ধারাবাহিকতায় ফিরবে। এরপর আবার বিবেচনা করা হবে। তাসকিন সাউথ আফ্রিকা সফরে ফর্মে ছিল না। ঘরোয়া ক্রিকেটে লংগার ভার্সনে কিছু ম্যাচ খেলারও দরকার আছে তার। সে হিসেবে বাদ দেওয়া হয়েছে।’

Image result for Soumya sarkar

নির্বাচকদের এমন সিদ্ধান্ত প্রশংসার দাবী রাখে। কিন্তু দিনের পর দিন ফর্মহীনতায় ভুগলেও কোচ-নির্বাচকদের আস্থা ছিল তাদের ওপর। জাতীয় দল বা ঘরোয়া ক্রিকেট, ব্যাটে রান নেই সৌম্য সরকারের। সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রথম ওয়ানডের পর জায়গা হারিয়েছিলেন একাদশে। সবশেষ ৬টি ওয়ানডেতে তার রান যথাক্রমে ০, ২৮, ৩, ৩, ০ ও ৮। রান পাননি বিপিএলেও। তবে গেল বছর টি-টোয়েন্টিতে দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেছিলেন সৌম্য।

২০১৪ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষেকের পর ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে আলো ছড়িয়েছিলেন সৌম্য। একই বছর ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঘরের মাঠে দুর্দান্ত খেলেন তিনি। এরপর আর কখনো দল থেকে বাদ পড়তে হয়নি তাকে। তবে তার পর থেকেই অধারাবাহিকতার অন্য নাম হয়ে উঠেন তিনি। কিন্তু, দল থেকে তাকে কিছুতেই বাদ দিচ্ছিলেন না নির্বাচকেরা। আর এর পিছনে সেসময়ের কোচ চন্ডিকার বিশেষ পছন্দের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা হয়েছিল।

তবে গত বছরের শুরুটা সৌম্য’র জন্য খুব একটা খারাপ ছিল না। নিউজিল্যান্ড সফরে ইমরুল কায়েসের চোটের কারণে সুযোগ পেয়ে ক্রাইস্টচার্চে করেছিলেন ৮৬ ও ৩৬। প্রথম ভারত সফরের একমাত্র টেস্টের দুই ইনিংসে ১৫ ও ৪২ রান করেন তিনি। শ্রীলঙ্কায় ড্র সিরিজে ৩ ফিফটি। কিন্তু এখানেই তার ভাল খেলার যবনিকাপাত। ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ৬ ইনিংসে কোন ফিফটি’র মুখ দেখেন নি তিনি।

Image result for Soumya sarkar

একইভাবে গতবছর ওয়ানডেতে মে মাসে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে পরপর দুই ম্যাচে ৬১ ও ৮৭ রানের ম্যাচ জেতানো দুটি ইনিংস খেলেন সৌম্য। কিন্তু এরপর আবার টানা ৬ ম্যাচ রানের দেখা নেই। এবার তারই ফল হাতে পেলেন সৌম্য। তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় দলের ভরাডুবির মাঝেও দুই টি-টোয়েন্টিতে ৩১ বলে ৪৭ ও ২৭ বলে ৪৪ রানের দুই দারুণ ইনিংস খেলেন তিনি। টি-টোয়েন্টিতে অবশ্য মোটামুটি ধারাবাহিক ছিলেন তিনি। কিন্তু, বিপিএলে আবার সেই আগের হাল।

দলে থেকে বাদ পড়ায় দারুণ এক অর্জন থেকে পিছিয়ে গেলেন সৌম্য। আর মাত্র ৩৩ রান করলেই ব্যক্তিগত ১০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করবেন তিনি। একই সুযোগ সাব্বির আর ইমরুল কায়েসের সামনেও আছে। কায়েসের সামনে অবশ্য ২০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করার সুযোগ। আর ১৫ রান করলে ১০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করবেন সাব্বির। সৌম্য’র জন্য কাজটা এখন পরেরবার সুযোগ পাওয়ার উপর নির্ভর করছে।

নির্বাচকরা অবশ্য এখন পর্যন্ত ৩২ ওয়ানডেতে ৩৪-এর বেশি গড়ে মোট ৯৬৭ রান করা সৌম্যকে ফেরার রাস্তা দেখিয়ে দিয়েছেন। নান্নু যেমন বলেছেন, ‘সৌম্যকে একটা বিরতি দেয়া হলো। যাতে সে নিজেকে ফিরে পেতে পারে। ধারাবাহিকতা রক্ষা করা খুব কঠিন। একবার ধারাবাহিকতা ভেঙে গেলে, তা ফিরে পেতে অনেক কষ্ট করতে হয়। আমাদের মনে হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে তার একটা বিরতি দরকার।’

ফেরার রাস্তা উন্মুক্ত থাকলেও এতো সহজে ফেরা হবে বলে মনে হয়না। দলে অনেকদিন পর ওপেনিং কম্বিনেশন পাল্টানো হচ্ছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে দুর্দান্ত খেলে এনামুল হক বিজয় দলে ঢুকেছেন। দীর্ঘদিন একপ্রকার অবহেলার শিকারই হতে হয়েছে তাকে। এবার জাতীয় লিগে দুটি ডাবল সেঞ্চুরিতে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ৬১৯ রান করেছেন ২৫ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান। গত ঢাকা লিগে ৫৯৬ রান করেছিলেন ৩৭.২৫ গড়ে।

বিপিএলে বিদেশিদের ভিড়ে সুযোগ কম পেলেও চিটাগং ভাইকিংসের দেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৯ ম্যাচে ২৯.৪২ গড়ে দুই হাফসেঞ্চুরিতে ২০৬ রান করেন এনামুল। বিপিএল শেষে ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে ক্রিকেট লিগে এক মৌসুমে পঞ্চম ক্রিকেটার হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরির কৃতিত্ব গড়েছেন এই ওপেনার। ৬ ম্যাচে দুই সেঞ্চুরি ও এক হাফসেঞ্চুরিতে এনামুলের রান ছিল ৬১৯। অথচ ক্যারিয়ারে মাত্র ৬ ওয়ানডে খেলার সুযোগ পেয়েছেন এনামুল।

হাথুরু’র কারণে এর আগে অনেকের ক্যারিয়ার থমকে গিয়েছিলো। শাহরিয়ার নাফীস, এনামুল হক তাদের অন্তর্ভুক্ত। ফিরেছেন এনামুল, বাকিদের ফেরার রাস্তাও এখন পরিষ্কার হলো। এবার এনামুলের ভাগ্যে শিকে ছিড়লো। হাথুরু থাকলে এটা সম্ভব হতো কি না কে জানে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, হাথুরু বিদায় নিয়েছেন বলেই এবার দলে পরিবর্তন বিশেষ করে সৌম্য-তাসকিনদের বাদ পড়া সম্ভব হলো। তবে সৌম্য সরকার অনেক প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান। নিশ্চয়ই শীঘ্রই ফিরবেন সদর্পে।

– মোয়াজ্জেম হোসেন মানিক

আরও পড়ুনঃ দলনেতাদের মতামতেই ত্রিদেশীয় সিরিজের স্কোয়াড

Related Articles

হাথুরুসিংহে’তে ভয় নেই হ্যালসলের

‘আসলে এটা হবে আমার সাবেক দল বাংলাদেশ’

‘হাথুরুসিংহেকে আমার স্যালুট’

হাথুরুর পক্ষেই ব্যাট চালালেন স্ট্রিক

হাথুরুসিংহের কারণেই স্পিনে খরা বাংলাদেশের?

Leave A Comment