SCORE

সর্বশেষ

অনাকাঙ্ক্ষিত রেকর্ড থেকে বাঁচলেন হুইলার

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এ টি-২০ টা মনে রাখতে চাইবে না নিউজিল্যান্ড। ঘরের মাটিতে ২৪৩ রানের পাহাড় গড়েও সাত বল আগেই ব্ল্যাকক্যাপসরা হেরে যায় অজিদের কাছে। তিন ওভার এক বলে ৬৪ রান দিয়ে এ ম্যাচটিকে বিস্মরণযোগ্য করে তুলেছেন নিউজিল্যান্ডের পেসার বেন হুইলার। অল্পের জন্য বেঁচেছেন অনাকাঙ্ক্ষিত রেকর্ড থেকে। নয়তো মাঠ ছাড়তে হতো আরও তিক্ত রেকর্ড নিয়ে।

প্রথম তিন ওভারে ৫১ রান দিয়েছিলেন হুইলার। চতুর্থ ওভারের প্রথম বলটি হুইলার করেন ফুলটস। বল ছিল কোমরের উপরের উচ্চতায়। এতে করে দেওয়া হয় নো-বল। বলটিতে ছক্কা হাঁকান ফিঞ্চ। ফ্রি-হিটে চার আসে ফিঞ্চের ব্যাট থেকে। প্রথম বলেই আসে ১১ রান। পরের বলও ছিল ফুলটস। ফিঞ্চ ডিপ মিডউইকেটের দিকে পুল করলে তা ক্যাচ ধরলেও সেই উইকেট বাতিল হয় নো-বলের কারণে। এটি কোমরের চেয়ে উঁচুতে থাকায় নো-বল দেয়া হয়।

তিনটি ডেলিভারির মধ্যে দুইটিই বিমার করে বসেন বেন হুইলার। রান দেন ১৩। দুই বিমার দেয়ায় তাকে আর বোলিং করতে দেয়া হয়নি। বাকি ওভার সম্পন্ন করেন ট্রেন্ট বোল্ট। ঐ ওভারের শেষ দুই বলে অস্ট্রেলিয়া রান সংগ্রহ করে ১০। রান প্রসবা এ ম্যাচে অজি ব্যাটসম্যানরা তুলেছিলেন বাউন্ডারির ঝড়। বেন হুইলার যদি ওভার সম্পন্ন করতেন তবে হয়তো আন্তর্জাতিক টি-২০ তে সবচেয়ে খরুচে বোলিং ফিগারের রেকর্ড হয়ে যেত হুইলারের।

Also Read - এক ঘণ্টায়ই শেষ সিলেট ম্যাচের টিকিট!

আন্তর্জাতিক টি-২০ তে আয়ারল্যান্ডের ডানহাতি পেসার ব্যারি ম্যাকার্থি ২০১৫ সালে  আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৪ ওভারে রান দিয়েছিলেন ৬৯। এছাড়া ২০১৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৬৮ রান দিয়েছিলেন কাইল অ্যাবোট। হুইলারের মতো ৬৪ রান দিয়েছেন জেমস অ্যান্ডারসন, অ্যান্ড্রু টাই এবং সনাৎ জয়াসুরিয়া।

কমপক্ষে ২ ওভার বোলিং করা বোলারদের ইকোনমি রেটের দিক দিয়ে হুইলারের এ ইকোনমি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ৩ ওভার ১ বলে ৬৪ রান দেওয়া হুইলারের ইকোনমি ছিল ২০.৫১। ২০.৫০ ইকোনমি রয়েছে রবিচন্দ্রন অশ্বিন, জেফরে ভ্যান্ডারসে এবং মার্ক ওয়াটের। তিনজনই ২ ওভারে ৪১ রান দেন।

আরও পড়ুনঃ এক ঘণ্টায়ই শেষ সিলেট ম্যাচের টিকিট!

Related Articles

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির কফিনে আইসিসির পেরেক

পরাজয়ের বৃত্তে বন্দী অস্ট্রেলিয়া

অস্ট্রেলিয়ার চেয়েও এগিয়ে টাইগাররা

ডোপ টেস্টে ধরা পড়েছেন শেহজাদ?

বড় নাম ছাড়াই জিম্বাবুয়ের প্রাথমিক দল