SCORE

সর্বশেষ

স্বাগতিকদের চোখ রাঙাচ্ছে শ্রীলঙ্কা

টেস্ট শুরুর আগে অনেকে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন- এই ম্যাচ পঞ্চম দিনের মুখও দেখবে না। সেই ভবিষ্যদ্বাণী ফলবে না- এমন কথা বলার সুযোগও অবশ্য এখনও নেই! বাংলাদেশ তো এখনও দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট ধরার সুযোগই পায়নি! তবে স্পিন-বান্ধব উইকেটের লোভ জাগিয়ে চট্টগ্রাম টেস্ট ব্যাটিং শৈলীর যে খেল দেখাচ্ছে, তাতে বাংলাদেশের ভাবি ইতিবাচকতা ধরে নিলে এই টেস্ট নিশ্চিত যাচ্ছে শেষদিনে।

 

মেন্ডিস, সিলভার ব্যাটিং ভোগাচ্ছে বাংলাদেশকে

Also Read - প্রিমিয়ার লিগের প্রথম তিন রাউন্ডের সূচি

তৃতীয় দিন শেষে স্কোরকার্ড অন্তত তা-ই বলে। বাংলাদেশের ৫১৩ রানের জবাবটা শ্রীলঙ্কা দিচ্ছে শক্ত হাতে। সফরকারী দলটি তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে ৫০৪ রান নিয়ে, এখনও তাদের হাতে আছে সাতটি উইকেট।

কথায় আছে, ক্যাচ মিস মানে ম্যাচ মিস। চলমান চট্টগ্রাম টেস্ট হাত থেকে ফসকে গিয়েছে কিনা সেটি জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরও দুই দিন তবে আপাতত ক্যাচ মিসের খেসারত দিতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। দ্বিতীয় দিন মেহেদী হাসান মিরাজের বলে স্লিপে কুশল মেন্ডিসের ক্যাচ মিস করেন ইমরুল কায়েস। ক্যাচ মিসের সুযোগ নিয়ে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন এই লঙ্কান ব্যাটসম্যান। দ্বিতীয় দিনের মতো তৃতীয় দিনেও ব্যাট হাতে রাজত্ব করছে শ্রীলঙ্কা।

নিজেদের স্কোরবোর্ডে এক উইকেটের বিনিময়ে ১৮৭ রান তুলে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিলো শ্রীলঙ্কা। দিন শেষের আগে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। ৮৩ রান করে অপরাজিত ছিলেন মেন্ডিস। তৃতীয় দিনে প্রথম সেশনে টেস্ট ক্যারিয়ারের ৫ম সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন কুশল মেন্ডিস। অন্যদিকে প্রথমবারের মতো টেস্ট ক্যারিয়ারের ১৫০ রান পার করেছেন ডি সিলভা। সেশনের প্রথম থেকেই বাংলাদেশের বোলারদের কোন প্রকার সুযোগ দেওয়া ছাড়াই রান তোলেন দুই ব্যাটসম্যান।

যদিও উইকেট বিহীন প্রথম সেশনের পর দুটি উইকেট নিতে পেরেছে বাংলাদেশ। দিনের খেলা স্বাগতিকদের বলার মতো সফলতা কেবল এতকুই। ১৭৩ রান করে ধনঞ্জয়া ডি সিলভা এবং ১৯৬ রান করে কুশল মেন্ডিসের পর লঙ্কানদের হাল ধরেছেন অধিনায়ক দীনেশ চান্দিমাল ও রোশেন সিলভা। দিনশেষে দুজনে অপরাজিত আছেন যথাক্রমে ৩৭ ও ৮৭ রান করে।

ধনঞ্জয়া ও কুশলকে সাজঘরে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে ‘নামেমাত্র’ সফলতা এনে দিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান ও তাইজুল ইসলাম। দলীয় ৩০৮ রানে মুস্তাফিজের বলে ধনঞ্জয়াকে তালুবন্দী করেন লিটন দাস। এরপর আরও একটি বড় পার্টনারশিপের পর দলীয় ৪১৫ রানে কুশাল সাজঘরে ফেরেন তাইজুলের বলে উইকেটরক্ষক মুশফিকের অসাধারণ ক্যাচে।

এক পেসার নিয়ে খেলতে নামার ফলটা হারে হারেই টের পাচ্ছে বাংলাদেশ। স্পিনে অভ্যস্ততা তৈরি করে লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা উইকেটে সেট হয়ে যাওয়ার পর মুস্তাফিজ একাই ছুঁড়ছিলেন সব বলের গোলা। তাকে সঙ্গ দেওয়ার মতো কেউই যে নেই দলে! স্পিনিং উইকেটের দোহাই দিয়ে এতজন স্পিনার নিয়েও আলোর মুখ দেখতে না পাওয়ার বাংলাদেশ এখন তাকিয়ে আছে চতুর্থ দিনের দিকে। উইকেটে আরেকটু স্পিন ধরলে স্পিনাররা যদি তাতে সোনা ফলাতে পারেন, তাতে হয়ত কম লিড নিয়েই আটকে যাবে শ্রীলঙ্কা। সফরকারীরা এখন মাত্র পিছিয়ে আছে ৯ রানে!

সংক্ষিপ্ত স্কোর (তৃতীয় দিনের খেলা শেষে)

বাংলাদেশ (প্রথম ইনিংস) ৫১৩ (ওভার ১২৯.৫)

মুমিনুল ১৭৬, মুশফিক ৯২; লাকমল ৩-৬৮

শ্রীলঙ্কা (প্রথম ইনিংস) ৫০৪/৩ (ওভার ১৩৮)

ধনঞ্জয়া ১৭৩, কুশাল ১৯৬; মুস্তাফিজ ১-৮৮

আরও পড়ুনঃ মেন্ডিস, সিলভার ব্যাটিং ভোগাচ্ছে বাংলাদেশকে

Related Articles

চট্টগ্রাম টেস্টে সেদিন শতক হয়নি শচীনের!

‘বিশ্বাস রাখলেই ভালো ফল আসবে’

সেশন বাই সেশন খেলেই মুমিনুলের চাপ জয়

‘বাংলাদেশ নেতিবাচক মানসিকতায় চলে গিয়েছিল’

২০০ রানের লিড নিয়ে ৭১৩-তে থামল শ্রীলঙ্কা