SCORE

সর্বশেষ

দাঙ্গার প্রভাব পড়বে না নিদাহাস ট্রফিতে

সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় উত্তাল শ্রীলঙ্কা। মুসলিম ও বৌদ্ধদের মধ্যে চলমান সহিংসতায় দেশটির সরকার বাধ্য হয়ে ঘোষণা করেছে ১০ দিনের জরুরী অবস্থা। এরই মধ্যে আবার নিদাহাস ট্রফির আসর, যেখানে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা ছাড়াও অংশ নিচ্ছে ভারত ও বাংলাদেশ।

দাঙ্গার প্রভাব পড়বে না নিদাহাস ট্রফিতে

তবে সহিংসতা বা জরুরী অবস্থা কোনোটাই বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে না নিদাহাস ট্রফিতে। বরং ক্রিকেট চলবে তার নিজস্ব নিয়মেই।

Also Read - কিংবদন্তীদের কাতারে মাশরাফি

দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়েছে পুরো ক্যান্ডি শহরে, যার থেকে নিদাহাস ট্রফির আয়োজক শহর কলম্বোর দুরত্ব মাত্র ১২০ কিলোমিটার। স্বভাবতই তাই নিদাহাস ট্রফির আয়োজন নিয়ে শঙ্কা জাগছেই। তবে কলম্বোয় সবকিছুই চলছে আগের মতো। দাঙ্গার রেশ এখনও ছুঁয়ে যায়নি কয়েকদিনের ক্রিকেট উৎসবের আয়োজক শহরটিকে।

অবশ্য ক্যান্ডি থেকে দাঙ্গা আর কোথাও ছড়িয়ে পড়বে না বলে প্রত্যাশা শ্রীলঙ্কার সরকারের। একই প্রত্যাশা ক্রিকেট বোর্ডেরও। শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী আশলে ডি সিলভা বলেন, ‘ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে কলম্বোতে। তাই সব কিছু সূচি অনুযায়ী চলবে।’

বাংলাদেশ দলের সদস্যরাও এখন অবস্থান করছেন কলম্বোতে। দলের সাথে রয়েছেন নির্বাচক হাবিবুল বাশারও। তিনিই জানালেন, এখনও কলম্বোয় সবকিছু রয়েছে স্বাভাবিক।

বাশার বলেন, ‘ক্যান্ডির ঘটনা শুনেছি। কিন্তু সিসিসিতে ম্যাচ শেষে আজ হোটেলে ফিরলাম, বাড়তি কোনো পাহারা চোখে পড়েনি। এখানে সব স্বাভাবিকই আছে।’

এদিকে দলের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত কোনো খারাপ পরিস্থিতি কিংবা নিরাপত্তার বাড়াবাড়ি কোনোটারই প্রয়োগ ঘটতে দেখা যায়নি। তিনি বলেন, ‘কোনো অস্বাভাবিক দৃশ্য দেখিনি। স্বাভাবিক যে নিরাপত্তা দেওয়ার কথা, সেটিই দিচ্ছে।’

তবে টিম হোটেল থেকে বের হওয়ার সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অবহিত করতে বলা হয়েছে। সুজন বলেন, ‘তারা বলেছে, টিম হোটেল থেকে কোথাও যেতে হলে তাদের যেন জানানো হয়। বাড়তি পুলিশ, সেনা কিছুই তো দেখলাম না। সব স্বাভাবিকই আছে।’

আরও পড়ুনঃ দুই প্রাইমের লড়াইয়ে নায়ক মার্শাল আইয়ুব

Related Articles

মতামত: কবে শিখবো টি-টোয়েন্টি?

“ক্রিকেটে এসব ঘটেই”

ওয়ালশও দেখভাল করছেন রিয়াদদের ব্যাটিং

ওয়ালশই থাকছেন হেড কোচ

“ফিটনেসের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো”