বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ ভারতীয় ক্রিকেটাররাও

ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ধুঁকতে থাকা দলটার আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে দরকার ছিল একটি জয়। সেই এক জয়ের সন্ধানে শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফি খেলতে এসেছিল বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টের শুরুতেই আক্ষেপটা যেন আরও বাড়ল দলের। ভারতের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ছন্নছাড়া ব্যাটিংয়ে বোঝাই গিয়েছিল আত্মবিশ্বাসের অভাব ক্রিকেটারদের মাঝে।

ভারতের বিপক্ষে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ১৩৯ রানেই আউট হয়েছিলো টাইগাররা। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাজে বোলিংয়ে রান তুলেছিল ২১৪। লঙ্কানদের দেওয়া এত বড় টার্গেট হয়ত অনেকেই ভেবেছিল এই ম্যাচও বাজেভাবে হারবে দল। তবে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের বডি ল্যাংগুয়েজ যেন অন্য কথা বললো।

Also Read - নিদাহাস ট্রফির পরই নতুন কোচ!

লিটন কুমার দাস ও তামিম ইকবালের দুর্দান্ত শুরু যেন আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছিল। দলের হয়ে বাকি কাজটা করে দিলেন মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ। মুশফিকের অপরাজিত ৭২ রানে রেকর্ড গড়ে রান তাড়া করে ম্যাচ জিতে নেয় বাংলাদেশ। যা কিনা  অনেকের কাছে ছিল কল্পনার বাইরে।

বাংলাদেশের এমন পারফরম্যান্সে মুগ্ধ পুরো ক্রিকেট বিশ্ব। অবশ্য মুগ্ধ হওয়ারই কথা। আগের ম্যাচে বাজেভাবে হারা দলটি এভাবে ঘুরে দাঁড়াবে কেউ কল্পনাই করেনি। দলের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ আগের ম্যাচে জয়ী দল ভারতও। বাকিরা যখন বাংলাদেশকে প্রশংসার জোয়ারে ভাসাচ্ছিল তাঁর ব্যতিক্রম ছিল না ভারতও।

রবিবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে আসেন ভারতের পেসার জয়দেব উনাদকাট। সেখানে ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি। এত বড় টার্গেট তাড়া করে জেতা মোটেও সহজ নয় জানান তিনি। সেই সাথে মুশফিকের ইনিংসও বেশ উপভোগ করেছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা।

‘সত্যি বলতে, যেকোন দলের বিপক্ষে ২১৫ রান তাড়া করে জেতা সহজ কথা নয়। এই ধরণের পরিস্থিতে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন ঠিকভাবে করতে হয়। বাংলাদেশ সেটি দারুণভাবে করেছে। টি-টোয়েন্টির জন্য মুশফিকের ইনিংসটা ছিল পারফেক্ট। আমরা সবাই দারুণ উপভোগ করেছি ম্যাচটা। এই ধরণের ম্যাচ টুর্নামেন্টের জন্যই মঙ্গল।’

উল্লেখ্য, নিদাহাস ট্রফিতে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচ খেলতে আগামী বুধাবার ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে ৬ উইকেটে হেরেছিল টাইগাররা। সিরিজে টিকে থাকতে হলে জয়ের বিকল্প নেই বাংলাদেশের।

আরও পড়ুনঃ এই মুশফিক, সেই মুশফিক