SCORE

সর্বশেষ

ভাবনায় সাব্বির-তাসকিন আর পাওয়ার প্লে

নিদাহাস ট্রফির প্রস্তুতিটা ভালই হয়েছে টাইগারদের। শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাট হাতে নিজেদের ভালোভাবেই ঝালাই করে নিয়েছে বাংলাদেশ। ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমদুউল্লাহ আর মুশফিকের দুর্দান্ত দুই ইনিংসে ৪০ রানের বড় জয় আগামীকালের ম্যাচের আগে টনিকের মতো কাজে দিবে এমন আশা করাই যায়। তবে এমন দারুণ প্রস্তুতির মাঝেও ব্যাট হাতে সাব্বিরের আবারো ব্যর্থতা ভাবনার অবকাশ রেখেই গেল। তাসকিন বল হাতে বেশ ভাল করেছেন, তবে সাম্প্রতিক ফর্ম বিবেচনায় তার পরিপূর্ণ ফিরে আসার অপেক্ষায় থাকবে পুরো দল। তবে সবচেয়ে বড় ভাবনার বিষয় হলো পাওয়ার প্লে।

 

Also Read - শুরুতে উইকেট হারানো ভাবাচ্ছে বাশারকে

প্রস্তুতি ম্যাচে নির্ধারিত ২০ ওভারে প্রথমে ব্যাটিং করে বাংলাদেশ ১৮৬ রান সংগ্রহ করে। এই বিশাল রান দেখেও একটা খটকা কিন্তু থেকেই গেছে। আর তা হলো ইনিংসের শুরুতে ১৪ রানের মধ্যে সৌম্য সরকার ও সাব্বির রহমানের দ্রুত আউট হয়ে যাওয়া। আসিথার বলে বোল্ড হন সৌম্য। আর তিনে নেমে সাব্বির ১০ বলে ১ রান করে দৃষ্টিকটু শট খেলে উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেন। অফস্টাম্পের বাইরের বলে তার খেলা ওই শট এককথায় বেপরোয়া। তবে সেদিন লিটন দাস দাঁড়িয়ে যাওয়ায় শুরুর ধাক্কা তবু সামলানো গেছে। ফলে পাওয়ার প্লেতে লিটন-মুশফিক জুটিতে ৬ ওভারে ৫১ রান আসে। এই পঞ্চাশ রানের জুটিতে লিটনের একার অবদান ৪০। ৪ চার ও ৩ ছক্কায়, ১৮ বলে ৪০ রান তুলেছেন লিটন। ৪৪ বলে ৬৫ রান মুশফিকের আর মাহমুদউল্লাহর ৪৩ এসেছে ২৭ বলে। সব মিলিয়ে ব্যাটিংটা ভালই হয়েছে। তবে খচখচানি শুধু সাব্বিরকে নিয়েই।

 

Image result for sabbir rahman

সাব্বিরের উপর এমনিতেই অনেক চাপ। সম্প্রতি ঘরের মাঠে প্রত্যাশিত পারফর্ম করতে পারেননি মারমুখী এ ব্যাটসম্যান। যে কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে জাতীয় দলের বাইরে ছিলেন তিনি। তার উপর শৃঙ্খলাজনিত সমস্যাতো আছেই। পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলতে গিয়েও কিছু না করতেই দলে স্থান পেয়েছেন তিনি। ফলে তার কাছ থেকে প্রত্যাশা একটু বেশিই থাকবে। টি-টোয়েন্টির ৩৪ ম্যাচ খেলে ২৬.৬৪ গড়ে ৭৪৬ রান করেছেন সাব্বির। ফলে তার ব্যাটিং যোগ্যতা নিয়ে কারও প্রশ্ন নেই। কিন্তু একের পর এক ব্যর্থতা আর মাঠের বাইরের কীর্তি তাকে সমালোচনার শিকার হতে বাধ্য করছে। চলতি ত্রিদেশীয় সিরিজ তাই তার জন্য একপ্রকার অগ্নিপরীক্ষা। এখানে ব্যর্থ হলে দলে তার অবস্থান নিশ্চিতরূপে বিপদে পড়ে যাবে। এমনিতেই বাজে ফর্ম সত্ত্বেও তাকে দলভুক্ত করায় দেশের অনেক ক্রিকেটভক্তরা নির্বাচকদের উপর ক্ষুব্ধ। ফলে জবাবটা তাকে মাঠেই দিতে হবে। সাকিবের অনুপস্থিতে তিনে ব্যাটিং করার সুযোগ হয়তো পেতেই পারেন সাব্বির। কিন্তু তার মূল্যায়নের মূল্য তাকেই দিতে হবে।

অপরদিকে অনেকটা চমক হিসেবে দলে জায়গা পেয়েছেন পেসার তাসকিন আহমেদ। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়ে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলে মোট ৭ ম্যাচে সাকুল্যে ২ উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। সেই ভয়াবহ বিপর্যয় শেষে তার দলে স্থান পাওয়াই মুশকিল হয়ে গিয়েছিল। টিম ম্যানেজমেন্ট তাকে ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় ও শ্রীলঙ্কা সিরিজে স্কোয়াডে রাখেননি। বেশ কিছুদিন দলের বাইরে থাকার পর নিদাহাস ট্রফি দিয়ে ফিরছেন তিনি। প্রস্তুতিও ভালই হয়েছে। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটে ৪ ম্যাচ খেলে ৬ উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। শ্রীলঙ্কায় পেস বোলারদের জন্য বাড়তি সুবিধা থাকছে, যে কারণে তাসকিনের দলভুক্তি। তারপর গত প্রস্তুতি ম্যাচেও বল হাতে ৩ ওভারে ১৬ রান দিয়ে ২ উইকেট পেয়ছেন তিনি। এমন দারুণ প্রস্তুতির পর মূল মঞ্চে ভাল করবেন এমনটাই সবার প্রত্যশা। তিনি নিজেও রবিবার ঢাকা ছাড়ার পূর্বে বলে গেছেন, সামর্থ্যের ১২০% দিবেন তিনি। দেখা যাক, দুঃসময় ভুলে দলের জন্য কি ভূমিকা রাখেন তিনি। স্পিনে ভারত-শ্রীলঙ্কা দুই দলই ভাল, ফলে পেস বোলারদের উপর বাড়তি দায়িত্বের চাপ তাসকিনকেও সামলাতে হবে।

 

Image result for Taskin ahmed

তৃতীয় প্রসঙ্গ পাওয়ার প্লে। টি-টোয়েন্টিতে পাওয়ার প্লে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ইনিংসের প্রথম ৬ ওভারে রান তুলতে না পারলে পরে সেটা কভার করা মুশকিল হয়ে পড়ে। বাংলাদেশ বহু ম্যাচে পাওয়ার প্লে’তে উইকেট হারানো আর দ্রুত গতিতে রান তুলতে না পারায় ম্যাচ হেরেছে। গতকাল শ্রীলঙ্কা-ভারতের ম্যাচ দেখলেও বুঝা যায় পাওয়ার প্লের গুরুত্ব। পাওয়ার প্লেতে কাল ভারত তুলতে পেরেছে ২ উইকেটে ৪০, অপরদিকে শ্রীলঙ্কা ২ উইকেটে ৭৫ রান তুলেছে। জয়ের ভিত্তি আসলে সেময়ই তৈরি হয়ে গেছে। কালকের ম্যাচ শেষে দুই দলের হয়ে সংবাদ সম্মেলনে সেকথা বলে গেছেন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৯০ রান করা ভারতীয় ওপেনার শিখর ধাওয়ান ও যার ব্যাটে ভর করে জয়ের পথে হেঁটেছে শ্রীলঙ্কা সেই কুশল পেরেরা। পাওয়ার প্লে’তে দ্রুত রান তুলতে পারলে প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলা সহজ হয় আর এসময়ে উইকেট ফেলতে পারাও জয়ের জন্য সহায়ক। ঠিক এই বিষয়েই বাংলাদেশ কিছুটা পিছিয়ে। তবে কালকের ম্যাচ দেখে নিশ্চয়ই এই বিষয়টা নিয়ে ভাবতে বসেছেন টাইগাররা।

প্রস্তুতি ম্যাচে জয় দিয়ে শুরু করে আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশ। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং- এই তিন বিভাগেই ভাল করলেও সাব্বিরের ব্যাটিং কিছুটা অনিশ্চয়তা রেখে দিয়েছে। বাজে ফর্মের কারণে দল থেকে বাইরে থাকা তাসকিন সে তুলনায় বেশ আশা জাগানিয়া বোলিং করেছেন। পাওয়ার প্লে নিয়ে যে ভাবনা তাতে এই দুজনই রাখতে পারেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। ব্যাট হাতে পাওয়ার প্লেতে সাব্বিরের বিধ্বংসী ব্যাটিং আর বল হাতে তাসকিনের জ্বলে উঠা তাই অতীব জরুরী।

– মোয়াজ্জেম হোসেন মানিক

আরও পড়ুনঃ শুরুতে উইকেট হারানো ভাবাচ্ছে বাশারকে

Related Articles

বিছানা থেকেই উঠতে পারছি না: তাসকিন

শীঘ্রই ইনজেকশন দেওয়া হবে তাসকিনকে

যে কারণে বাদ তাসকিন-ইমরুল-সোহান

সৈকতে অনুশীলন করবেন তাসকিন-রাহী-রাব্বিরা

২৪ সদস্যর এইচপি দল ঘোষণা