মাশরাফির আগুন ঝরা বোলিংয়ের পরও হারল আবাহনী

টানা ছয় ম্যাচে জয় নিয়ে আবাহনী যেন রীতিমতো উড়ছিল। সেই আবাহনীকে এবার মাটিতে নামিয়ে আনল প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। শুক্রবার আবাহনী লিমিটেডকে ৯ রানে হারিয়েছে দলটি।

মাশরাফির আগুন ঝরা বোলিংয়ের পরও হারল আবাহনী

সাভারের বিকেএসপিতে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে এদিন ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে প্রাইম ব্যাংক। শুরুটা ভালো হলেও লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের যোগ্য সমর্থন না পাওয়ায় নির্ধারিত ৫০ ওভারের ৪ বল আগেই ২৪৬ রানে অলআউট হয়ে যায় মনির হোসেনের দল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৪ রান আসে আল-আমিনের ব্যাট থেকে। এছাড়া তরুণ জাকির হাসান করেন ৬২ রান। আবাহনীর পক্ষে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা চারটি এবং এমএস গনি ও সাকলাইন সজীব দুটি করে উইকেট শিকার করেন। মাশরাফির বোলিং তোপেই ইনিংসের সবগুলো বল খেলতে পারেনি প্রাইম ব্যাংক।

Also Read - মোহামেডান-দোলেশ্বরের নাটকীয় ম্যাচ টাই!

২৪৭ রানের লক্ষ্য আবাহনীর মতো তারকাবহুল দলের জন্য ছিল মামুলীই। তবে শরীফুল ইসলামের বোলিং তোপে সেই মামুলী লক্ষ্য পূরণেই ব্যর্থ হয় পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দল। ১৭ রানের মধ্যেই এনামুল হক বিজয়, নাজমুল হোসেন শান্ত ও মোহাম্মদ মিঠুনের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় মাশরাফির দল। এরপর দলের হাল ধরেন ওপেনার সাইফ হাসান ও অভিজ্ঞ নাসির হোসেন। দুজনের ১২৭ রানের পার্টনারশিপ ভাঙার পর আবারও খেই হারিয়ে ফেলে আবাহনী। সাইফের ৭৫ ও নাসিরের ৬৫ রানের ইনিংসের পর বলার মতো রান পেয়েছেন কেবল মোহাম্মদ রাকিব ও অধিনায়ক মাশরাফি। দুজনের ব্যাট থেকে আসে যথাক্রমে ২৫ ও ২২ রান। শেষদিকে লোয়ার অর্ডাররা জ্বলে উঠতে না পারায় নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারানো আবাহনী সংগ্রহ করে ২৩৭ রান। ফলে প্রাইম ব্যাংক পায় ৯ রানের লড়াকু জয়।

প্রাইম ব্যাংকের শরীফুল একাই চারটি উইকেট শিকার করেন। ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ও হয়েছেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

প্রাইম ব্যাংক ২৪৬ – ৪৯.২ ওভার (আল-আমিন ৮৪, জাকির ৬২; মাশরাফি ৯.২-০-৪১-৪)

আবাহনী ২৩৭/৯ (সাইফ ৭৫, নাসির ৬৫; শরীফুল ১০-১-৫১-৪)

ফল- প্রাইম ব্যাংক ৯ রানে জয়ী।

আরও পড়ুনঃ বিসিবিকে একহাত নিলেন বুলবুল