SCORE

সর্বশেষ

রাজার ব্যাটে চড়ে গাজী গ্রুপের জয়

সিকান্দার রাজার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ভর করে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সুপার লিগে খেলাঘর সমাজ কল্যাণ সমিতির বিপক্ষে জয় পেয়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। দুই অর্ধশতকে ভর করে খেলাঘরকে ৩০৫ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছিল গাজী গ্রুপ। ২৭০ রান করেই গুটিয়ে যায় খেলাঘর।

সিকান্দার রাজা। ফাইল ছবি।

সাভারে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। ব্যাটিংয়ে নেমে দুই ওপেনার জহুরুল ইসলাম এবং ইমরুল কায়েসের জুটি দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। দলীয় ১২ রানের মাথায় তাদের ওপেনিং জুটি ভাঙেন তানভীর ইসলাম। তানভীর ইসলামের বলে ৮ রান করে বোল্ড হন গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম।

দ্বিতীয় উইকেটের জুটিতে ৯৬ রান যোগ করেন মুমিনুল হক এবং ইমরুল কায়েস। তাদের জুটিতে প্রাথমিক বিপর্যয় কাটিয়ে উঠে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। এ জুটিতে ভর করে ঘুরে দাঁড়ায় তারা। ৬ চার এবং ৩ ছক্কায় সাজানো ৫৬ বলে ৬৩ রানের এক অসাধারণ ইনিংস খেলেন ইমরুল কায়েস। দলীয় ১০৮ রানের মাথায় তাকে বোল্ড করেন তানভীর ইসলাম।

Also Read - মাশরাফিদের বিপক্ষেও জয় তুলে নিলো সোহানরা

অর্ধশতক থেকে মাত্র তিন রান দূরে থেকে বিদায় নেন মুমিনুল হক। ৬৯ বলে ৪৭ রানের ইনিংস খেলে আউট হন মুমিনুল। নিজের বলে নিজেই ক্যাচ ধরে মুমিনুলকে সাজঘরে ফেরান মাসুম খান। এরপর সিকান্দার রাজা এবং আসিফ আহমেদ ৫৫ রানের জুটি গড়েন। ৪ চারের সাহায্যে ৩৭ বলে ৩২ রান করেন আসিফ। আসিফকে ফিরিয়ে এ জুটি ভাঙেন তানভীর ইসলাম।

আসিফের সাথে জুটি ভাঙার পর নাদিফ চৌঢুরীকে নিয়ে হাল ধরেন সিকান্দার রাজা। দুজন মিলে জুটি গড়েন ৭১ রানের। তাদের জুটি বড় স্কোরের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সকে। ৮৪ বলে ৯০ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন সিকান্দার রাজা। তার ইনিংসে ছিল ৭ চার আর ৪ ছক্কা। দলীয় ২৫৮ রানের মাথায় মোহাম্মদ সাদ্দামের শিকার হন এ জিম্বাবুইয়ান।

জাকের আলিকে নিয়ে আরো ৪০ রান যোগ করেন নাদিফ চৌধুরী। শেষ ওভারে মাসুম খানের বলে আউট হন নাদিফ। ৩৫ বলে ৪১ রানের এক ইনিংস কেলেন তিনি। এক চার আর তিন ছক্কায় এ ইনিংস সাজান নাদিফ।  এক চারে ৬ বলে ১১ রান করে নাদিফ।  বাঁহাতি স্পিনার তানভীর ইসলাম তিন উইকেট শিকার করেন।

রান তাড়া করতে নেমে দুই ওপেনার রবিউল ইসলাম রবি এবং মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন দলকে দারুণ এক ভিত গড়ে দেন। রানের চাকা সচল রেখে এগিয়ে যান দুই ওপেনার। দুই ওপেনারই স্পর্শ করেন অর্ধশতক। তাদের এ জুটিতে ভর করে কোনো উইকেট না হারিয়েই শতরানের চৌকাঠ পার করে খেলাঘর।

দলীয় ১০৮ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় খেলাঘর। নাঈম হাসানের বলে বোল্ড হন রবিউল ইসলাম রবি। ৯ চার এবং ১ ছক্কা সমৃদ্ধ ৬৩ বলে ৬৭ রানের এক ইনিংস খেলেন রবি। রবির বিদায়ের পর আল মেনারিয়াকে সাথে নিয়ে হাল ধরেন অঙ্কন। অঙ্কন আর মেনারিয়া যোগ করেন ৩১ রান। থিতু হলেও বড় স্কোড় গড়তে পারেননি মেনারিয়া। ৩ চারে ২৩ বলে ২৫ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন মেনারিয়া।

প্রথম দুই উইকেট পতনের পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে খেলাঘর। দলীয় ১৭৩ রানের মাথায় বিদায় নেন অঙ্কন।  ৯৪ বলে ৬৯ রান করে মুমিনুল হকের বলে জাকের আলিকে ক্যাচ দেন তিনি। এরপর ১৯৩ রানের মাথায় রান আউট হন নাজিমুদ্দিন (১২)।  এর এক বল পরেই বিদায় নেন রাফসান আল মাহমুদ। ২০ রান করে এলবিডব্লিউ হন আবু হায়দার রনির বলে। ১৯৩ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে খেলাঘর।

সাদ্দাম ও মাসুম খান মিলে যোগ করেন ২৮ রান। ১২ রান করে মেহেদি হাসানের শিকার হন সাদ্দাম।  একাই লড়ে যান মাসুম খান। তাকে সঙ্গ দিতে পারেনি কেউ। বল কমতে থাকলেও রানের গতি বাড়িয়ে পরিস্থিতির চাহিদা মেটাতেও ব্যর্থ হন খেলাঘরের ব্যাটসম্যানরা। ২ চার আর ৩ ছক্কায় ৪১ বলে ৪৪ রানের ইনিংস খেলেন মাসুম খান। তবে সেটি হারের ব্যবধানই কমায়। ২৭০ রান করে অবশেষে অলআউট হয় খেলাঘর। তাদের লেজ গুড়িয়ে দেয় আবু হায়দার রনি আর মেহেদি হাসান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর ঃ গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স ৩০৪/৬, ৫০ ওভার
সিকান্দার রাজা ৯০, কায়েস ৬৩, মুমিনুল ৪৭, নাদিফ ৪৫
তানভীর ৩/৪৩, মাসুম ২/৭৩, সাদ্দাম ১/৬০

খেলাঘর সমাজ কল্যাণ সমিতি ২৭০/১০, ৪৯.৪ ওভার
অঙ্কন ৬৯, রবি ৬৭, মাসুম ৪৪, মেনারিয়া ২৫
আবু হায়দার ৩/৪৩, মেহেদি ২/৪৫, মুমিনুল ১/৩৫


আরো পড়ুন : সুপার লিগে জয়ে ফিরল মুশফিকরা 


 

Related Articles

খেলাঘরের বিপক্ষে আবাহনীর বড় জয়

ফরহাদ রেজার ঝড়ে বিধ্বস্ত খেলাঘর

ডিপিএলে জয় পেয়েছে রূপগঞ্জ , খেলাঘর ও অগ্রণী ব্যাংক

কলাবাগানকে ১৫ রানে হারিয়েছে খেলাঘর

জোড়া সেঞ্চুরিতে খেলাঘরের বড় জয়