SCORE

সর্বশেষ

সবাইকে পাশে চাইলেন মাশরাফি

দলের অন্যতম প্রধান অংশ তিনিও। তবে টি-২০ থেকে অবসর গ্রহণ করায় নিদাহাস ট্রফিতে দলের সঙ্গে থাকেননি মাশরাফি বিন মুর্তজা। মঙ্গলবার ডিপিএলে রেকর্ড গড়া পারফরমেন্সের পর আলো কেড়ে নিলেন দিনের। ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন। সেখানে আহ্বান জানালেন সবাইকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পাশে থাকার।

বিপিএল দিয়ে দুঃসময় কাটানোর প্রত্যাশায় মাশরাফি

দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে তিন সিরিজে হার দিয়ে গত বছরের সমাপ্তি, এরপর টানা তিন সিরিজে পরাজয় শ্রীলঙ্কার কাছে। টানা ছয়টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জয়হীন থাকা বাংলাদেশ এখন নেই প্রত্যাশিত ফর্মে। দলের এই দুঃসময়ে সবাইকে ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে পাশে থাকার আহ্বান মাশরাফির।

Also Read - দাঙ্গার প্রভাব পড়বে না নিদাহাস ট্রফিতে

তিনি বলেন, ‘এই দুর্দিনে দলের পাশে সবাইকে থাকতে হবে। আমাদের সবাইকেই ক্রিকেটারদের নিয়ে, দল নিয়ে উদ্দীপনামূলক কথা-বার্তা বলা উচিৎ এবং সবারই ক্রিকেটারদের পাশে থাকা উচিৎ। সময়টা ভালো যাচ্ছে না। এখান থেকে ঘুরে দাঁড়াতে শুরুর দিকে একটি-দুটি জয় রাখতে পারে খুব বড় ভূমিকা।’

উত্থানের পথে ভালো সময়ের পাশাপাশি খারাপ সময় আসাও স্বাভাবিক। অনেকের মতেই, বিগত কয়েক বছর দুর্দান্ত খেলা বাংলাদেশ দলের এখন সেই খারাপ সময়টুকুই চলছে। আর এই খারাপ সময়ে দলকে অনুপ্রেরিত করার তাগিদ কিংবদন্তী এই ক্রিকেটারের। সাংবাদিকদের মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের এখন এগিয়ে যাওয়ার সময়। এই পথে কখনও থমকে দাঁড়াতে হয়, গতিপথ শ্লথ হয়ে যায়। আমাদেরও হয়তো তাই হয়েছে। তাই বলে এগিয়ে যাওয়ার ইচ্ছাটা, আকাঙ্ক্ষাটা রাখতে হবে অটুট। আমরা যারা দলের বাইরে, দেশবাসী, সমর্থক এবং মিডিয়া- সবাই আসুন দলকে অনুপ্রাণিত করি, তাদের পাশে থাকি।’

নিদাহাস ট্রফিতে এশিয়ার দুই পরাশক্তি ও সাবেক দুই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা ও ভারতের বিপক্ষে ভালো করতে হলে বেশ ভালো করে লড়াই করতে হবে বাংলাদেশকে। এই আসরকে সামনে রেখে অন্য সবার মতো মাশরাফিও ইতিবাচক প্রত্যাশাই করছেন। তবে এজন্য দলের উপর যাতে চাপ না পড়ে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতেও জানালেন তিনি, ‘প্রত্যাশা তো আছে অবশ্যই ভালো কিছু। তবে, ভালো খেলতে হবে- এই চাপটা যেন আমরা খেলোয়াড়দের ওপর না দেই। আমি, আপনি, সমর্থক, মিডিয়া- সবাই যদি ভালো খেলার চাপ দেই, তাহলে সেই চাপে দল আরও গোলমেলে হয়ে যাবে।’

খেলোয়াড়দের উপর থেকে চাপ সরানোর উপায় হিসেবে মাশরাফি বলেন, ‘যেহেতু আমরা হারের মধ্যে রয়েছি। দলের খেলোয়াড়দের বোঝাতে হবে, না পারলে সমস্যা নেই। তবে, স্লোগান উঠুক ভালো খেলার সর্বোচ্চ চেষ্টাটা যেন থাকে।’

মঙ্গলবার মাশরাফি যখন ডিপিএলে প্রদর্শন করছেন আগুন ঝরা পারফরমেন্স, ঠিক একই সময়ে শ্রীলঙ্কায় জাতীয় দল জিতেছে প্রস্তুতি টি-২০ ম্যাচে। ঐ ম্যাচে জিতেছেও টাইগাররা। এতে খুশি বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়ক, ‘শুনে খুশি লাগছে যে, প্র্যাকটিস ম্যাচে আমরা বড় ব্যবধানে জিতেছি। লিটন, মুশফিক এবং মাহমুদউল্লাহ রান পেয়েছে। বিদেশের মাটিতে কোনো প্রস্তুতি ম্যাচে জয় জায়গামত ভালো খেলতে সহায়তা করে।’

মাশরাফির মতে, এসব প্রস্তুতি ম্যাচ মূল লড়াইয়ে ভালো করতে সাহায্য করে। তিনি বলেন, ‘গত বছর আমরাও ওয়ানডে সিরিজের আগে এই কলম্বো ক্লাব মাঠে একটি প্রস্তুতি ম্যাচে মাত্র ২ রানে হেরেছিলাম, এক পাহাড়সমান স্কোরের পিছু নিয়ে। সেটা আমাদের ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভালো খেলতে সাহস জুগিয়েছিল।’

অনেকের মতে, দেশের মাটিতে সর্বশেষ ত্রিদেশীয় সিরিজ, টেস্ট ও টি-২০ সিরিজে বাংলাদেশের ব্যর্থতার অন্যতম কারণ ঘরের মাঠে খেলার চাপ। নতুন বছরে ভালো শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার কাছে বারবার ব্যর্থ হয়ে ভালো শুরুটা ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশ। মাশরাফিও মনে করছেন, চাপই বাংলাদেশের ভালো খেলার পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমিও একমত, হয়তো কিছুটা চাপে ছিলাম। প্রথম চাপ ছিল ফাইনাল খেলার। পরের চাপ ছিল, যে করেই হোক ফাইনালে জিততে হবে। এ রকম চাপ অনেক সময় ভালো খেলায় বাধা হয়ে দাঁড়ায়।’

আরও পড়ুনঃ  দুই প্রাইমের লড়াইয়ে নায়ক মার্শাল আইয়ুব

Related Articles

পারিশ্রমিক না পেয়ে বিসিবির শরণাপন্ন কলাবাগানের ক্রিকেটাররা

‘লাইফ স্টাইলে পরিবর্তন এনে ভুল শুধরাতে চাই’

কলাবাগানের তিন ক্রিকেটারকে পারিশ্রমিক না দেয়ার অভিযোগ

অসুস্থ রুবেল, দোয়া চাইলেন সবার কাছে

বোলিং অ্যাকশন নিয়ে বাড়ছে সচেতনতা