SCORE

Trending Now

সিনিয়রদের বিশ্রামে রেখে আফগান বধ সম্ভব?

নিদাহাস ট্রফি শেষ। এরপর আবার জুনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ভারতের দেরাদুনে তিন ম্যাচের সিরিজ খেলেবে টাইগাররা। আসন্ন এই সিরিজ উপলক্ষ্যে দলের সিনিয়রদের বিশ্রামে রাখার চিন্তা করছে বিসিবি। মূলত জুন থেকে টানা ব্যস্ত ক্রিকেট সূচির কথা ভেবেই এমন ভাবনা। দলের তরুণদের যাচাই করার উপলক্ষ্য। কিন্তু আফগানিস্তান মোটেও সহজ প্রতিপক্ষ নয়। এইতো সেদিন কঠিন পরিস্থিতি থেকে বিশ্বকাপ খেলা নিশ্চিত করেছে তারা। তাই, এমন এক লড়াকু দলের বিপক্ষে সিনিয়রদের অনুপস্থিতিতে জয় সম্ভব হবে কিনা সেটাই ভাবনার বিষয়।

এবারের ডিপিএলে খেলা হচ্ছে না সাকিব-তামিম-রিয়াদের

আফগানদের বিপক্ষে সিরিজটি নিয়ে দোলাচলে ছিল বিসিবি। যে দল বিশ্বকাপে সুযোগ না পাওয়ার পর্যায়ে চলে গেছে তাদের বিপক্ষে খেলে খুব একটা লাভ হবে কিনা এটা ভেবেই দ্বিধা ছিল। কিন্তু আফগানিস্তান তাদের লড়াকু মানসিকতার উদাহরণ দেখিয়ে কঠিন রাস্তা পেরোতে সক্ষম হয়েছে। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে তারা অনেকটা ভাগ্যের পরশ পেয়েছে সত্য। প্রথম তিন ম্যাচেই হেরে গ্রুপ পর্ব থেকেই ছিটকে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল দলটির। নেপাল, হংকং, স্কটল্যান্ডের মতো দলের কাছেও হেরেছে তারা। কিন্তু অবিশ্বাস্যভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর রূপকথা রচনা করে অবশেষে বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে আফগানরা। আয়ারল্যান্ডকে সুপার সিক্সের ম্যাচে ৫ বল বাকি থাকতে ম্যাচ জিতে বাঁধভাঙ্গা উল্লাসে মেতেছে যুদ্ধপীড়িত দেশটির ক্রিকেটাররা। যদিও এই পথে ভাগ্য সুপ্রসন্ন ছিল তাদের। আর তাদের সঙ্গে বিশ্বকাপের মঞ্চে হাজির হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজও।

Also Read - দায়িত্ব থেকে সরানো হল স্মিথ-ওয়ার্নারকে

ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রসঙ্গ আনার কারণ একটাই, এই দলের বিপক্ষেই আবার জুনে খেলবে বাংলাদেশ। সেই সফরের জন্য সিনিয়রদের বিশ্রামের কথা ভাবেনি, ভেবেছে আফগানদের বিপক্ষে সিরিজ নিয়ে। আদতে এই দুই দলের তুলনা করলে আফগানিস্তানকেই এগিয়ে রাখতে হবে। বাছাইপর্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পরাস্ত করেছিলো আফগানিস্তান। বাছাইপর্বের ফাইনালেও মুখোমুখি হচ্ছে এই দুই দল। রশিদ খানদের এই দলটি যে এমন কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে মূল মঞ্চে হাজির হওয়ার টিকেট পাবে কেউ ভাবেনি। কিন্তু সেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছে তারা। দলে আছে বেশ কয়েকজন তারকা ক্রিকেটার। মোহাম্মদ নবী, দৌলত জাদরান, নওরোজ মঙ্গল, মোহাম্মদ শাহজাদ, আসগর স্ট্যানিকজাইয়ের মতো ক্রিকেটার আছে তাদের। অভিজ্ঞতার ভাণ্ডারও বেশ মজবুত দলটির। আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলা তাদের স্বভাবজাত। বাংলাদেশের মাটিতে সিরিজ খেলতে এসে ২-১ ব্যবধানে হেরে বসা দলটি কিছুদিন আগেও বিশ্বক্রিকেটকে চমকে দেওয়া ক্রিকেট খেলেছে। বিভিন্ন দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে তাদের ক্রিকেটারদের দাপটের সাথে খেলতে দেখা যায়। আইপিএলেও তাদের গুরুত্ব এখন আগের চেয়ে বেশী।

আফগান ক্রিকেটের উত্থানের গল্প সত্যিই রূপকথাকেও হার মানায়। অতি অল্প সময়েই পেয়েছে টেস্ট স্ট্যাটাস। অবিশ্বাস্য দ্রুততায় উন্নতির স্বীকৃতিস্বরূপ সুযোগ মিলে গিয়েছিল ২০১৪ সালের এশিয়া কাপেও। সে আসরে মোহাম্মদ নবীদের কাছে বাংলাদেশের হেরে যাওয়ার ইতিহাস মুছে যায়নি। ২০১৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তাদের মাঠে গিয়েই হারিয়ে এসেছে আফগানিস্তান। আর এবার খাঁদের কিনারা থেকে বিশ্বকাপের মঞ্চে। তুলনায় বাংলাদেশ দলটিও অনেক এগিয়েছে। এইতো বছরখানেক আগেই নিজের মাটিতে হেসেখেলে বড় বড় দলকে পরাস্ত করেছে বাংলাদেশ। জিতেছে বাইরের মাটিতেও। তবে এখন দৃশ্যপট ভিন্ন। সদ্য সমাপ্ত নিদাহাস ট্রফিতে আলো ছড়ালেও গত প্রায় এক বছর টাইগারদের ঠিক যেন খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। দীর্ঘ পরাজয়ের তালিকা শেষ হয়েছে নিদাহাস ট্রফিতে। কিন্তু এখনো সেই পুরনো বাংলাদেশকে পুরো মাত্রায় দেখা যায়নি। তবে আশার কথা অবশেষে জয়ের দেখা পেয়েছে। এখন সামনে আরও জয় দরকার পূর্ণ আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে।

আফগানিস্তানের বাংলাদেশ সফরের একটি ওয়ানডের মুহূর্ত

নিদাহাস ট্রফিতে ভারত যেমন সিনিয়রদের বিশ্রাম দিয়েছিল, বিসিবিও আফগানিস্তানের বিপক্ষে একই পথে হাঁটতে চাইছে। কিন্তু ভারতের রিজার্ভ বেঞ্চ কতো ভাল সেটা তারা দেখিয়েছে। বাংলাদেশের অবস্থা মোটেও তেমন নয়। বলা হচ্ছে, জুন থেকে টানা খেলার মধ্যে থাকবে জাতীয় দল। ফলে এই সিরিজে নতুনদের বাজিয়ে দেখতে চাইছে বিসিবি। এখন দেখার বিষয় কাদের সুযোগ হয় দলে। তরুণদের নিয়ে কিছুটা পরীক্ষা-নিরীক্ষা ঘরের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এবং নিদাহাস ট্রফিতেও করা হয়েছে। ফল খুব একটা সুখকর হয়নি। সিনিয়রদের ছাড়া এই দলটি যে অতীব দুর্বল তা মনে হয় আর বলে দিতে হবেনা। বলা হচ্ছে সিনিয়রদের ক্লান্তির কথা। টানা খেলা থাকলে ক্লান্তি আসবেই। আগামী কয়েকদিন তাদের কিছুটা ফুরসত মিলবে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, সিনিয়রদের ছাড়া দলটি আফগানদের বিপক্ষে কেমন করবে? সিনিয়রদের মধ্যে সাকিব, মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহকে নিয়েই হয়তো ভাবছে বিসিবি। এই সিনিয়রদের কাঁধে সওয়ার হয়েই এতোটা পথ পাড়ি দিয়েছে বাংলাদেশ। এই কয়জন ছাড়া বাংলাদেশ দল কি ভাল কিছু করতে পারবে?

আগেই বলেছি আফগানিস্তান সহজ প্রতিপক্ষ নয়। সিনিয়র নির্ভর দলকে সিনিয়রবিহীন অবস্থায় আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলতে পাঠালে ফলাফল কি হবে কে জানে? ভারতের মাটিতে আফগানদের বিপক্ষে হার মানতে কষ্ট হবে। অনেক সমালোচনাও হতে পারে। ফলে ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। অনেক হারে জর্জরিত একটা দল কেবলই জয়ের সুবাস পেয়েছে, আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছে। আবারো হারের যাতনার ক্ষত সহজে শুকাবে না। দল পরিচালনায় সিনিয়রদের ভূমিকা মনে রেখে সবাইকে নয়, বরং দুই-একজন সিনিয়রকে বিশ্রামে রেখে দল গঠন মনে হয় উত্তম হবে।

– মোয়াজ্জেম হোসেন মানিক

আরও পড়ুনঃ দায়িত্ব থেকে সরানো হল স্মিথ-ওয়ার্নারকে

Related Articles

এখনও নাসিরের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়নি বোর্ড

ইয়াসিনের বোলিং ঘূর্ণিতে উড়ে গেলো পূর্বাঞ্চল

বিসিবির বেতনভুক্ত ক্রিকেটার হওয়ার প্রভাব কতটা?

মাশরাফিকে পাশে পাচ্ছেন সাব্বির-তাসকিনরা

মে মাসে আসছে নতুন কোচ