SCORE

সর্বশেষ

শহীদের বোলিংয়ে বিধ্বস্ত গাজী গ্রুপ

গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সকে গুড়িয়ে দিয়েছেন লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের পেসার মোহাম্মদ শহীদ। শহীদের বোলিং তোপে পড়ে ১৫২ রানেই অলআউট হয়ে গিয়েছে গাজী গ্রুপ। চার উইকেট নিয়ে গাজী গ্রুপকে বিধ্বস্ত করেছেন মোহাম্মদ শহীদ।

মোহাম্মদ শহীদ।

ফতুল্লায় সুপার লিগের ম্যাচে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। অধিনায়কের সিদ্ধান্ত যে ভুল হয়নি তা দ্বিতীয় ওভারেই প্রমাণ করেন মোহাম্মদ শহীদ। নিজের প্রথম এবং ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই দলকে সফলতা এনে দেন মোহাম্মদ শহীদ। মোহাম্মদ নাইমের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান গাজী গ্রুপের ওপেনার ইমরুল কায়েস। রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফিরেন তিনি।

এরপর ওপেনার মেহেদি হাসান আর মুমিনুল হকের জুটিটাও দীর্ঘ হয়নি। তাদের ১৭ রানের জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ শরীফ। ৯ বলে ৬ রান করে শরীফের বলে অভিষেক মিত্রের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন মুমিনুল।

Also Read - মুস্তাফিজের সাথে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অংশ নাফিস ইকবালও!

লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন ওপেনার মেহেদি হাসান। দলের রানের চাকা সচল রাখেন তিনি। তাকেও ফেরান মোহাম্মদ শহীদ। নিজের বলে নিজে ক্যাচ নিয়ে দলীয় ৩৮ রানের মাথায় আঘাত হানেন শহীদ। ৪ চারে ২৮ বলে ২১ রান করে ফিরে যান ওপেনার মেহেদি।

৩৮ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যায় গাজী গ্রুপ। চতুর্থ উইকেটে জহুরুল ইসলাম এবং জাকের আলি ৫১ রানের জুটি গড়েন। তাদের প্রতিরোধ ভাঙেন পারভেজ রাসুল। এ ভারতীয় স্পিনারের বলে আউট হন জহুরুল। ৩ চারে ৪৯ বলে ৩১ রান করেন তিনি। নিজের পরের ওভারে জহুরুলকে সঙ্গ দেয়া জাকেরের উইকেটও শিকার করেন পারভেজ। ৪৩ বল মোকাবেলা করে ৩০ রান করেন জাকের।

বিপর্যয় কাটিয়ে উঠা শুরু করলেও পারভেজ রাসুল দুই ওভারে দুই উইকেট নিয়ে আবারো বিপদে ফেলে দেয় গাজী গ্রুপকে। ৯৩ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি গাজী গ্রুপ।

দলীয় ১০২ রানের মাথায় বিদায় নেন নাদিফ চৌধুরী (৭)। আসিফ হাসানের বলে ফিরে যান তিনি। রানের গতিও কমতে থাকে গাজী গ্রুপের। সপ্তম উইকেটে ৬৭ বলে ২৯ রান তুলে গাজী গ্রুপ। ৪৩ বলে ১৭ রান করে আসিফ হাসানের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন আসিফ আহমেদ। আবু হায়দার রনি ৩ রান করে আউট হন মোহাম্মদ শহীদের বলে। লোয়ার অর্ডারে নাঈম হাসান অবদান রাখেন ২৩ রান করে। ১৪৯ রানের মাথায় শহীদের চতুর্থ শিকার হন তিনি। ১৫২ রানের মাথায় আবু নাসেরকে আউট করে গাজী গ্রুপকে গুটিয়ে দেন মোশাররফ।

১০ ওভারে মাত্র ২৬ রানের বিনিময়ে ৪ উইকেট শিকার করেন মোহাম্মদ শহীদ। দুইটি করে উইকেট লাভ করেন পারভেজ রাসুল এবং আসিফ হাসান। একটি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ শরীফ এবং মোশাররফ হোসেন।

১৫৩ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। দলীয় ১২ রানের মাথায় বাঁহাতি পেসার আবু হায়দার রনির বলে বোল্ড হন আবদুল মজিদ। ৪ রান করেই সাজঘরে ফিরেন আবদুল মজিদ। শুরুতে মজিদকে হারালেও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়তে হয়নি তাদের।

এরপর মোহাম্মদ নাইম এবং অভিষেক মিত্র ৩ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক বিপর্যয় সামাল দেন। দ্রুত গতিতে রান তুলতে থাকেন দুই ব্যাটসম্যান। দলের নেট রান রেট বাড়িয়ে নেওয়াই যেন ছিল লক্ষ্য। ৫ চার আর ২ ছক্কায় ৩৪ বলে ৪৫ রানের এক দ্রুত গতির ইনিংস খেলেন মোহাম্মদ নাইম। ৪৫ রান করে টিপু সুলতানের বলে আউট হন নাইম।

এরপর অভিষেক মিত্রকে নিয়ে হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম। মুশফিক ও অভিষেকের নিরবিচ্ছিন্ন ৭৩ রানের জুটিতে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। ২৩ তম ওভারেই লক্ষ্য টপকে যায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। মুশফিকদের হাতে তখনো বাকি ছিল ইনিংসের ১৬৩ টি বল। ৫ চার আর ২ ছক্কা হাঁকানো অভিষেক মিত্র ৬১ বল মোকাবেলা করে ৫৭ রান করে অপরাজিত থাকেন। মুশফিকুর রহিম অপর প্রান্তে ৩২ বলে ৩০ রান করে অপরাজিত ছিলেন। তার ইনিংসে ছিল তিনটি চার। আট উইকেটের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।

চার উইকেট শিকার করে ম্যাচসেরা হন লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের পেসার মোহাম্মদ শহীদ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :  গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স ১৫২/১০, ৪৫.৪ ওভার
জহুরুল ৩১, জাকের ৩০, নাঈম হাসান ২৩
মোহাম্মদ শহীদ ৪/৩৭, আসিফ হাসান ২/১৭, পারভেজ ২/২৭

লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ ১৫৩/২, ২২.৫ ওভার
অভিষেক ৫৭*, মোহাম্মদ নাইম ৪৫, মুশফিক ৩০*
টিপু সুলতান ১/২২, আবু হায়দার ১/২৯

ফলঃ লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ আট উইকেটে জয়ী।
ম্যাচসেরাঃ মোহাম্মদ শহীদ।


আরো পড়ুন : খেলাঘরের বিপক্ষে আবাহনীর বড় জয় 


 

Related Articles

জয়ের ছন্দ ধরে রেখেছে শেখ জামাল

রাজার ব্যাটে চড়ে গাজী গ্রুপের জয়

অলরাউন্ডার মেহেদির সুবাদে জিতল গাজী গ্রুপ

লো-স্কোরিং ম্যাচে মোহামেডানকে হারাল গাজী

চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে শেখ জামালের বিশাল জয়