ফিক্সিংয়ে জড়িত গলের কিউরেটর!

ক্রিকেটের জঘন্যতম অপরাধগুলোর একটি হল ফিক্সিং বা পাতানো। এবার সেই ফিক্সিংয়ের অভিযোগ উঠেছে শ্রীলঙ্কার বিখ্যাত ক্রিকেট স্টেডিয়াম গলের কিউরেটর থারাঙ্গা ইন্ডিকার বিরুদ্ধে।

ফিক্সিংয়ে জড়িত গলের কিউরেটর!

থারাঙ্গা একইসাথে গল স্টেডিয়ামের সহকারী ম্যানেজারও। তার যোগসাজশে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে পৃথক দুটি ম্যাচে ফিক্সিং করে বাজীকররা।

Also Read - মুশফিকের পথচলার তেরো বছর

সম্প্রতি আলজাজিরার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৬ সালে অস্ট্রেলিয়া সিরিজে এবং ২০১৭ সালে ভারত সিরিজে এই ফিক্সিংয়ের কাণ্ড ঘটান থারাঙ্গা ইন্ডিকা। যাদের প্ররোচনায় তিনি এই ঘৃণিত কাজ করেছেন তারা হলেন- রবিন মরিস ও থারিন্দু মেন্ডিস। এর মধ্যে রবিন মরিস মুম্বাই এবং থারিন্দু মেন্ডিস কলম্বোর অধিবাসী। বাজীকর হলেও তাদের আরেকটি পেশা, দুজনই পেশাদার ক্রিকেটার!

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাজীকরের কথামত উইকেট বানিয়ে ২০১৬ সালে অস্ট্রেলিয়াকে বড় হারের লজ্জা দিয়েছিলেন থারাঙ্গা ইন্ডিকা। গলে অনুষ্ঠিত ঐ ম্যাচে উইকেট বুঝতে না পারায় প্রথম ইনিংসে ১০৬ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ১৮৩ রানে অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া। সফরকারীরা ঐ ম্যাচে ২২৯ রানের বিশাল পরাজয় বরণ করে নেয়। ফিক্সিংয়ের উদ্দেশ্য ছিল পাঁচ দিনের আগে খেলা শেষ করা।

এরপর ২০১৭ সালে ভারতের শ্রীলঙ্কা সফরের সময়ও ফিক্সিং করা হয়। বাজীকরের কথামত তৈরি করা হয় ব্যাটিং বান্ধব উইকেট। ঐ ম্যাচে ৬০০ রান করেছিল ভারত, স্বাগতিকদের বিপক্ষে জয় পেয়েছিল ৩০৪ রানের বড় ব্যবধানে।

রোববার (২৭ মে) বাংলাদেশ সময় বিকেল চারটায় এ নিয়ে পূর্ণাঙ্গ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করবে আলজাজিরা। যে প্রতিবেদন বা পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদনের যে ট্রিজার শোরগোল ফেলেছে, তা অনুযায়ী- মুম্বাইয়ের বাসিন্দা রবিন মরিস ম্যাচ গড়াপেটার কথা স্বীকার করেছেন। তার আগে ফিক্সিংয়ের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে তিনি গলের ম্যানেজার ও কিউরেটর থারাঙ্গা ইন্ডিকাকে ইঙ্গিত করে বলেন,  ‘আমরা যেমন উইকেট চাইবো ঠিক তেমন উইকেটই সে বানিয়ে দিবে। কারণ ও (ইন্ডিকা) আসল কিউরেটর। গলের সহকারী ম্যানেজার এবং কিউরেটর সে।’

আরও পড়ুনঃ রশিদকে নিয়ে ভাবতে মানা তামিমের