SCORE

সর্বশেষ

সাকিবদের হারিয়ে ফাইনালে চেন্নাই

আইপিএলের প্রথম কোয়ালিফায়ারে সাকিব আল হাসানের সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পেল চেন্নাই সুপার কিংস। টান টান উত্তেজনার এ ম্যাচের খেলা গড়িয়েছে শেষ ওভার পর্যন্ত। ফাফ ডু প্লেসিসের অর্ধশতক আর শেষদিকে শার্দুল ঠাকুরের ছোট্ট কিন্তু গুরুত্বপুর্ণ ইনিংসের সুবাদে লো স্কোরিং এ ম্যাচে দুই উইকেটের জয় পেয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস।

ফাইনাল নিশ্চিতের পর চেন্নাই শিবিরে উল্লাস।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়েতে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। শুরুটা মোটেও সুখকর ছিল না তাদের জন্য। ইনিংসের প্রথম বলেই বোল্ড হন শিখর ধাওয়ান। দ্বিতীয় উইকেটে শ্রীভাতস গোস্বামি এবং কেন উইলিয়ামসন ৩২ রানের জুটি গড়েন। দ্রুত গতিতে রান তুলছিলেন কেন উইলিয়ামসন। গোস্বামিকে ফিরিয়ে দিয়ে এ জুটি ভাঙেন লুঙ্গি এনগিডি। ২ চারে ৯ বলে ১২ রান করে বিদায় নেন গোস্বামি। পরের ওভারে ফিরে যান উইলিয়ামসনও। ৪ চারে ১৫ বলে ২৪ রান করে শিকার হন শার্দুল ঠাকুরের। দারুণ ক্যাচ নেন উইকেটরক্ষক মহেন্দ্র সিং ধোনি।

Also Read - সাকিবের পাশে থিতু হতে চান অপু

এরপর ব্যাটিংয়ে আসেন সাকিব আল হাসান। শুরুতে দৃঢ়তার সাথে ব্যাটিং করলেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি সাকিব। ১০ বলে ১২ রান করে ডোয়াইন ব্রাভোর লেগ স্টাম্পের বল খেলতে গিয়ে ক্যাচ দেন মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। তার ইনিংসে ছিল দুটি চার।

৫০ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। এরপর মন্থর হয়ে যায় রানের গতি। চাপে পড়া সানরাইজার্স হায়দরাবাদ পঞ্চম উইকেটে ২৯ বলে করে ১৯ রান। ১৬ বলে ৮ রান করে জাদেজার শিকার হন মানিশ পান্ডে। ইউসুফ পাঠান ২৯ বলে করেন ২৪ রান। শেষদিকে ঝড় তোলেন কার্লোস ব্র্যাথওয়েট। ব্র্যাথওয়েট আর ভুবনেশ্বর কুমারের জুটিতে ভর করে একশ’ রান পার করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

১ চার আর ৪ ছক্কায় ২৯ বলে ৪৩ রানের ইনিংস খেলেন ব্র্যাথওয়েট। শেষ বলে আউট হওয়া ভুবনেশ্বর কুমার করেন ১১ বলে ৭। ১৩৯ রানের স্বল্প পুঁজি পায় সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

স্বল্প পুঁজি নিয়েও দারুণ লড়াই করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ইনিংসের প্রথম ওভারেই আঘাত হানেন পেসার ভুবনেশ্বর কুমার। রানের খাতা খোলার আগে ফিরে যান ওপেনার শেন ওয়াটসন। এরপর ঝড় তোলেন সুরেশ রায়না। তবে সেই ঝড় দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। ৪ চারে ১৩ বলে ২২ রান করে সিদ্ধার্থ কাউলের বলে বোল্ড হন রায়না। রায়নাকে বোল্ড করার পরের বলে আম্বাতি রাইডুকেও বোল্ড করেন কাউল। টানা দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে যেন চেন্নাই সুপার কিংসকে খাদের কিনারায় ঠেলে দেন কাউল।

অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি নামেন পাঁচে। বেশ মন্থর ব্যাটিং করেন তিনি। ধীরলয়ের ইনিংসটি ছিল ১৮ বলের। রান করেন ৯। দলীয় ৩৯ রানের মাথায় রশিদ খানের বলে বোল্ড হন ধোনি।

একাদশতম ওভারে বোলিংয়ে এসে ছয় রান দেন সাকিব। পরের ওভারে রশিদ খান ফিরিয়ে দেন ডোয়াইন ব্রাভোকে। ব্রাভো বিদায় নিলে চেন্নাই সুপার কিংসের একমাত্র ভরসা হিসেবে টিকে থাকেন ফাফ ডু প্লেসিস। তবু পাল্লা ভারী ছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের।

ব্রাভোর পর ২ রান করেই আউট হন জাদেজা। ম্যাচ থেকে যেন ছিটকে পড়ে চেন্নাই সুপার কিংস। এরপর চতুর্দশ ওভার থেকে দৃশ্যপট বদলাতে শুরু করে। সাকিবের করা ঐ ওভারে রান হয় ১৪। শেষ দুই বলে প্লেসিস নেন ১০। পরের ওভারে আরেক সঙ্গী দীপক চাহার ফিরে যান। একাই লড়ছিলেন প্লেসিস।

এ নিঃসঙ্গ যোদ্ধা একপ্রান্ত আগলে রাখেন। অন্য প্রান্তে উইকেট পতন চলছিল। শেষ তিন ওভারে ৪৩ রান প্রয়োজন ছিল চেন্নাইয়ের। ফাফ ডু প্লেসিসের তিন চার আর এক ছক্কার সুবাদে ঐ ওভারেই রান আসে ২০। পরের ওভারে শার্দুল ঠাকুর তিন চার হাঁকিয়ে চেন্নাই সুপার কিংসের জয়ের সম্ভাবনা প্রবল করেন। ১৮ ও ১৯ তম ওভার মিলে ৩৭ রান করে চেন্নাই সুপার কিংস।

শেষ ওভারের প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে ফাইনালে নিয়ে যান ফাফ ডু প্লেসিস। ৪২ বলে ৬৭ রান করে অপরাজিত থাকেন প্লেসিস।

স্কোরকার্ড-

আরও পড়ুনঃ সাকিবের পাশে থিতু হতে চান অপু

 

Related Articles

ইয়ো ইয়ো টেস্টে বাদ পড়লেন ভারতের স্টার ক্রিকেটার

কোহলি নন, মোহাম্মদ নবীর প্রিয় ডি ভিলিয়ার্স

পরিবারের সান্নিধ্যে ঈদ, তবু মুস্তাফিজের আক্ষেপ

ভাগ্যকেই দোষারোপ করছেন মুস্তাফিজ

ঈদের পর অনুশীলন শুরু করবেন মুস্তাফিজ