SCORE

সর্বশেষ

বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে উইন্ডিজের দাপুটে জয়

২০১৭ সালে হারিকেনে বিধ্বস্ত হওয়া স্টেডিয়ামের সংস্কারের জন্য তহবিল সংগ্রহের ম্যাচে আইসিসি বিশ্ব একাদশকে ৭২ রানে হারিয়েছে উইন্ডিজ ক্রিকেট দল।

এক ফ্রেমে বিশ্ব একাদশ ও উইন্ডিজ স্কোয়াডের ক্রিকেটাররা।
এক ফ্রেমে বিশ্ব একাদশ ও উইন্ডিজ স্কোয়াডের ক্রিকেটাররা। ছবিঃ আইসিসি

আগে ব্যাট করে উইন্ডিজের দেওয়া ২০০ রানের লক্ষ্যমাত্রায় ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে এসে বিশ্ব একাদশ কিংবা সমর্থক কারোরই আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি তামিম ইকবাল। ক্রিজে এসে থিতু হওয়ার আগে লুইসের দুর্দান্ত ক্যাচে রাসেলের করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে ফিরতে হয় তাকে। আউট হওয়ার আগে করেন ৮ বল মোকাবেলায় মাত্র ২ রান।

বিশ্ব একাদশের হয়ে ব্যাটিংয়ে তামিম।
বিশ্ব একাদশের হয়ে ব্যাটিংয়ে তামিম। ছবিঃ আইসিসি

তামিমের ব্যর্থতার পর নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি লুক রনকি, স্যাম বিলিংস (৪), দীনেশ কার্তিক (০), শোয়েব মালিকের (১২) কেউই। ফলে উইন্ডিজের বোলারদের বোলিং তোপে ৪৫ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে বিশ্ব একাদশ।

Also Read - টস জিতে বিশ্ব একাদশের ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত

এমতাবস্থা থেকে দলকে লড়াইয়ে ফেরানোর জন্য সর্বোচ্চটা উজাড় করে দিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যেতে থাকেন আফ্রিদি ও থিসারা পেরেরা। আফ্রিদির চোট সমস্যা থাকায় লড়াইয়ের দায়িত্বটা একটু বেশিই নিজের কাঁধে নিয়ে ব্যাট করতে থাকেন পেরেরা। মারমুখী ব্যাট চালিয়ে ৬ চার ও ৩ ছয়ে মাত্র ২৮ বলে তুলে নেন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় অর্ধশতক। দলীয় ৯৩ রানের সময় আফ্রিদি পলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে নার্সের তালুবন্দী হলে বিচ্ছিন্ন হয় দু’জনের মধ্যকার ৪৮ রানের জুটি।

এরপর সাজঘরে ফিরেন অনেকটা একা হাতে বিশ্ব একাদশের জন্য লড়তে থাকা পেরেরা। দলীয় ১০১ রানে ৩৭ বলে ৭ চার আর ৩ ছয়ে ৭১ রান করা পেরেরাকে ফিরিয়ে দিয়ে উইলিয়ামস ম্যাচটা নিজেদের দখলে নিয়ে যান। বিশ্ব একাদশের বাকি ব্যাটসম্যানরা প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যাট করতে না পারলে শেষ পর্যন্ত ৭২ রানের পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় দলটিকে।

উইন্ডিজের বোলারদের মধ্যে উইলিয়ামস ৩টি, বদ্রি ও রাসেল দুটি করে তাছাড়া পল ও ব্র্যাথওয়েট ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

এর আগে ইংল্যান্ডের বিখ্যাত ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত লর্ডসে উইন্ডিজের বিপক্ষে টস জিতে আগে বল করার সিদ্ধান্ত নেন আইসিসি বিশ্ব একাদশের অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি।

প্রতিপক্ষ শিবিরের অধিনায়কের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে উইন্ডিজের হয়ে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে ক্রিজে আসেন ক্রিস গেইল ও এভিন লুইস। ইনিংসের শুরু থেকেই বুঝে-শুনে ব্যাট চালাতে থাকেন দুই ব্যাটসম্যান। স্বভাবসুলভ ব্যাট করে ঝড়ো গতিতে লুইস রান তুলতে থাকলেও, গেইল অনেকটাই স্বভাববিরোধী আচরণে ব্যাট করতে থাকেন।

অর্ধশতক করার পথে শট খেলছেন লুইস।
অর্ধশতক করার পথে শট খেলছেন লুইস। ছবিঃ আইসিসি

এর ফল দেখা যায় স্কোরবোর্ডেও। মাত্র ২৩ বল খেলে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের তিন নম্বর অর্ধশতক পূর্ণ করে লুইস যখন আরও ভয়ঙ্কর রূপ ধারণের পথে তখন ২৫ বল খেলে ১৮ রানে অপরাজিত থাকেন গেইল। তবে ঝড়ো ব্যাট করতে থাকলেও অর্ধশতক করার পর স্কোরকে বেশি বড় করতে ব্যর্থ হন লুইস। নিজের প্রথম ওভারে বল করতে এসে লুইসের কাছে ছক্কা খেলেও, ঐ ওভারেই ২৬ বলে ৫৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলা ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরান আফগান এ স্পিনার।

দলীয় ৭৫ রানে লুইসকে হারানোর পর স্বরূপে ফেরার আগেই সাজঘরে ফিরেন গেইল। শোয়েব মালিকের একাদশতম ওভারের প্রথম বল ব্যাকফুটে গিয়ে খেলার চেষ্টায় ব্যাটে-বলের সংযোগ না হলে বোল্ড হয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন ২৮ বলে ১৮ রান করা গেইল। নিজের জাত চেনাতে এদিন ব্যর্থ হন আন্দ্রে ফ্লেচারও। আফ্রিদিকে ডাউন দ্যা উইকেটে খেলতে এসে স্টাম্পড হলে উইন্ডিজের ১০০ রানে পতন ঘটে তৃতীয় উইকেটের। সেই সাথে থামে ৯ বলে ৭ রান করা ফ্লেচারের ইনিংসও।

বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে খোলসবন্দী গেইল।
বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে খোলসবন্দী গেইল। ছবিঃ আইসিসি

ম্যাচে উইন্ডিজদের চেপে ধরার প্রচেষ্টা এরপর ভেস্তে দেন স্যামুয়েলস ও দীনেশ রামদিন। চতুর্থ উইকেট জুটিতে ৩৩ বলে ৫২ রান যোগ করে দলকে বড় পুঁজির ভিত গড়ে দেন এ দুই ব্যাটসম্যান। ইনিংসের ১৭তম ওভারে অর্ধশতক থেকে ৭ রান দূরে থাকা স্যামুয়েলসকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করে রশিদ সাজঘরে ফেরালে থামে তার ২২ বলে ৪৩ রানের ঝড়ো ইনিংস। ২ চার ও ৪ ছক্কায় ইনিংসটি সাজান স্যামুয়েলস।

এরপর ক্রিজে এসে আধিপত্য বিস্তার করে দ্রুত গতিতে রান তুলতে থাকেন আন্দ্রে রাসেল। রশিদ খানের ব্যক্তিগত শেষ ও ইনিংসের ১৯তম ওভারে রামদিন ও রাসেল মিলে ২৪ রান নিয়ে দলকে ২০০ রানের মাইলফলক স্পর্শের স্বপ্ন দেখান। শেষ পর্যন্ত তা না সম্ভব হলেও ঠিকই ২০০ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছুঁড়ে দেন বিশ্ব একাদশকে।

উইন্ডিজের বোলারদের মধ্যে ৪৮ রান দিয়ে রশিদ ২টি, আফ্রিদি ৩৪ রান খরচায় ১টি ও শোয়েব মালিক ৩১ রানের বিনিময়ে শিকার করেন ১টি উইকেট।

স্কোরকার্ড-

আরও পড়ুনঃ “এ গর্ব বাংলাদেশের”

Related Articles

স্কটল্যান্ড-আয়ারল্যান্ডের কাছে ক্ষমা চেয়েছে আইসিসি

বল টেম্পারিং: চান্দিমালকে অভিযুক্ত করল আইসিসি

অপরিবর্তিত রইল আইসিসি আম্পায়ারদের এলিট প্যানেল

দক্ষিণ আফ্রিকায় নতুন টি-২০ লিগ

আবারও সবচেয়ে ধনী ক্রিকেটার কোহলি