অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের ভিড় আলোচিত ঢাকা ডমিনেটর্সে

ঢাকার সবচেয়ে বড় তারকা ইনফর্ম পেসার তাসকিন আহমেদ। এছাড়া বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে আছেন এবারের বিশ্বকাপে পারফর্ম করা পাকিস্তানের শান মাসুদ।

অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের ভিড় আলোচিত ঢাকা ডমিনেটর্সে

তাহসিনা জামান
ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে -

আপডেট হয়েছে -

ড্রাফটের আগেই ঢাকা দলে ভিড়িয়েছিল দেশি ক্রিকেটার তাসকিন আহমেদ এবং বিদেশি দুই ক্রিকেটার চামিকা করুনারত্নে ও দিলশান মুনাবীরাকে। ড্রাফটেও বেশ আলোচিত দল গড়েছে ঢাকা। খরচের দিক তারা আছে দ্বিতীয় অবস্থানে। দেশি ক্রিকেটারদের পিছনে ঢাকার খরচ ২ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা ও বিদেশি ক্রিকেটারদের পেছনে ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা। এত খরুচে দল গড়ার পরও আছে নানান সমালোচনা।

মোহাম্মদ মিঠুন

তাসকিন ছাড়াও ঢাকায় বর্তমানে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে আছেন সৌম্য সরকার ও শরিফুল ইসলাম। আর দলে আসা-যাওয়ার মধ্যে থাকা আছেন মোহাম্মদ মিঠুন। জাতীয় দলের বাইরের যে দেশি ক্রিকেটারদের ঢাকা দলে ভিড়িয়েছে তারা এখন জাতীয় দল থেকে আছে যোজন যোজন দূরে। কেউ কেউ তো আবার জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্নই ছেড়ে দিয়েছেন। বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যাদের বলা হয়, জাতীয় দলের বাইরে থেকে এমন কোনো ক্রিকেটারকেই দলে ভেড়ায়নি ঢাকা।

এছাড়াও ড্রাফট থেকে দেশি ক্রিকেটার হিসেবে ঢাকা দলে ভিড়িয়েছে অলক কাপালি, মুক্তার আলি, আরিফুল হক, আরাফাত সানি, নাসির হোসেন, আল-আমিন হোসেন, মিজানুর রহমান, দেলোয়ার হোসেন ও আলোচিত ক্রিকেটার মনির হোসেনেক। বিদেশি ক্রিকেটার হিসেবে তারা ড্রাফট থেকে নিয়েছে পাকিস্তানের ইনফর্ম ব্যাটার শান মাসুদকে। জাতীয় দলে ব্রাত্য হওয়া আহমেদ শেহজাদও জায়গা পেয়েছেন ঢাকায়, এছাড়াও আফগান দলের বর্তমান ওপেনার উসমান গনি ও এখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে না খেলা পাকিস্তানের বোলার সালমান ইরশাদ।

ঢাকার পেস বোলিং ইউনিটে তাসকিনের সাথে থাকবেন শরিফুল, আল-আমিন, দেলোয়ার হোসেন ও সালমান। এছাড়া পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে আছেন মুক্তার আলি, আরিফুল হক ও সৌম্য সরকার। চামিকা করুনারত্নে এক বছর নিষিদ্ধ হওয়ায় এই পেসারকে আর পাবে না ঢাকা। বিপিএল শুরুর আগেই দেখা যেতে পারে তার বদলি ক্রিকেটারকে।

দলটির স্পিন আক্রমণের নেতৃত্বে থাকবেন বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি। আরো আছেন মনির হোসেন। বাঁহাতি স্পিনার মনির ঘরোয়া ক্রিকেটে অনিয়মিত ও পারফর্ম না করেও জায়গা পেয়েছেন ঢাকার স্কোয়াডে। তাকে নিয়ে আছে বিতর্কও। টি-টেন লিগে খেলার পর তার বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ের গুঞ্জনও উঠেছিল যদিও তা প্রমাণিত হয়নি। বিপিএলেও তাকে নিয়ে আছে বিতর্ক। পারফরম্যান্স ছাড়ায় দল পাওয়াও এক বিস্ময়। এছাড়া অলরাউন্ডার নাসির হোসেন ও দিলশান মুনাবীরা আছেন ডানহাতি অফব্রেক বোলার হিসেবে। লেগ স্পিনিং অলরাউন্ডার হিসেবে আছেন অলক কাপালি।

ঢাকার ব্যাটিংয়ে নেতৃত্ব দিবেন মিঠুন, সৌম্য, উসমান, দিলশান, শান মাসুদ, আহমেদ শেহজাদরা। উল্লেখ্য, উসমান, মুনাবীরা, শেহজাদ ও সৌম্য- চারজনই ওপেনিং পজিশনে ব্যাটিং করতে পারেন। শেহজাদ নিজের প্রাইম টাইমে বিপিএলে দুর্দান্ত সব ইনিংস খেলেছেন। হাঁকিয়েছেন সেঞ্চুরিও। তবে এখন তিনি আর আগের মতো ফর্মে নেই। এদিকে উসমান জাতীয় দলে থাকলেও তার স্ট্রাইকরেট কেবল ১১৮। জাতীয় দল থেকে বহুদূরে থাকা দিলশানের স্ট্রাইকরেট ১২৫। তবে ফর্মে আছেন শান মাসুদ। বিশ্বকাপেও নিজেকে প্রমাণ করেছেন এই পাকিস্তানি ব্যাটার।

অপরদিকে, ঢাকার লোয়ার অর্ডার সামলাবেন নাসির, কাপালি, মুক্তার, আরিফুলরা। চলমান বিসিএলে ফিফটি হাঁকিয়ে নাসির জানান দিয়েছেন তিনি ফুরিয়ে যাননি। তবে বাকিদের বর্তমান পারফরম্যান্স সন্তোষজনক নয়।

একনজরে ঢাকার স্কোয়াড- তাসকিন আহমেদ, দিলশান মুনাবীরা, মোহাম্মদ মিঠুন, সৌম্য সরকার, শরিফুল ইসলাম, আরাফাত সানি, নাসির হোসেন, আল আমিন হোসেন, শান মাসুদ, আহমেদ শেহজাদ, অলক কাপালি, মনির হোসেন খান, আরিফুল হক, মুক্তার আলী, মিজানুর রহমান, দেলোয়ার হোসেন, উসমান ঘানি, সালমান ইরশাদ।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।
সম্পর্কিত খবর