অস্ট্রেলিয়ার অ্যাশেজ পুনরুদ্ধার

0
948

বৃষ্টিবিঘ্নিত পার্থ টেস্টে সফরকারী ইংল্যান্ডকে ইনিংস ও ৪১ রানের ব্যবধানে হারিয়ে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই ২০১৫ সালে ইংলিশদের কাছে খোয়ানো অ্যাশেজ পুনরুদ্ধার করলো স্টিভেন স্মিথের নেতৃত্বাধীন অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল।

Advertisment

আগের দুই টেস্টে দাপুটে জয়ের পর সিরিজের তৃতীয় টেস্টের চতুর্থ দিনেই সিরিজ জয়ের সুবাস পাচ্ছিল স্বাগতিক অজিরা। যদিও বৃষ্টি বাগড়ায় পরে শঙ্কাও জেগেছিল এই টেস্টের চূড়ান্ত ফলাফল নিয়ে।

চতুর্থ দিনের পর পঞ্চম দিনের ম্যাচের বেশ কিছু অংশ চলে যায় বৃষ্টির অনুকূলে। প্রায় তিন ঘন্টা পর শুরু হওয়া পঞ্চম দিনের খেলায় তৃতীয় টেস্ট ড্র করার জন্য দ্বিতীয় ইনিংসে অন্তত ৭০ ওভার ক্রিজে টিকে থাকতে হতো সফরকারী ইংলিশদের। তবে তা আর সম্ভব হয়নি। দ্বিতীয় ইনিংসে ২১৮ রানে ইংল্যান্ডের ইনিংস থামলে নিশ্চিত হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার সিরিজ জয় আর অ্যাশেজ পুনরুদ্ধারের নতুন কীর্তি।

যদিও দলের পরাজয় এড়াতে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে লড়ে গেছেন ডেভিড মালান। প্রথম ইনিংস ১৪০ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলার পর দ্বিতীয় ইনিংসে তার ব্যাট থেকে এসেছে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। ৫৪ রান করে জশ হ্যাজলউডের বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলে ১৯৬ রানে সপ্তম উইকেটের পতন ঘটে সফরকারীদের। তার আউটের পর দলের শেষ দিকের ব্যাটসম্যানরা প্রতিরোধ গড়তে ব্যর্থ হলে সিরিজ হার এড়াতে অকৃতকার্য হয় ইংল্যান্ড।

দলীয় ২১৮ রানে ক্রিস ওকস, প্যাট কামিন্সের বলে উইকেটের পেছনে টিম পেইনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলে ২০১৫ সালে ইংল্যান্ডের কাছে হারানো ভস্মাধার (অ্যাশেজ) দুই বছর ব্যবধানে ঘরের মাঠে আবারও পুনরুদ্ধার করে অজিরা।

এমন জয়ের পেছনে ব্যাটসম্যানদের পর দূর্দান্ত বল করে অসামান্য অবদান রাখেন অজি বোলাররা। দ্বিতীয় ইনিংসে সবচেয়ে সফল ছিলেন হ্যাজলউড। ৪৮ খরচায় ৫ উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ৫টি মেডেন ওভার নেন তিনি। তার সাথে নাথান লায়ন ও প্যাট কামিন্স সমান দুটি করে উইকেট নিয়ে দলের জয়ে ভূমিকা পালন করেন।

প্রথম ইনিংসে অনবদ্য ২৩৯ রানের ইনিংস খেলে দলকে রান পাহাড়ের চূড়ায় নিয়ে যাওয়ার ফলস্বরূপ ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতে নেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ।

 


আরও পড়ুনঃ টেস্টে ফেরার আশা মাশরাফির