আইপিএলকে ‘ক্রিকেট’ বলেই মনে হয় না হোল্ডিংয়ের!

খেলোয়াড়ি জীবন শেষে ক্যারিবীয় কিংবদন্তি মাইকেল হোল্ডিং থিতু হয়েছেন ধারাভাষ্যে। মাইক্রোফোন হাতে তিনি দাপিয়ে বেড়ান বিশ্বজুড়ে সব ক্রিকেট মাঠে। তবে কখনও ধারাভাষ্য দিতে দেখা যায়নি ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল)। কারণ আইপিএলকে ক্রিকেট বলেই গণ্য করেন না তিনি!

আইপিএলকে 'ক্রিকেট' বলেই মনে হয় না হোল্ডিংয়ের!

Advertisment

বর্তমান সময়ে টি-টোয়েন্টি লিগগুলোর আবেদন চোখে পড়ার মত। বিশেষ করে ভারতের লিগ আইপিএলকে ঘিরে উৎসবের ঢেউ বয়ে যায় গোটা ক্রিকেট দুনিয়ায়। এই লিগে অংশ নিতে মুখিয়ে থাকেন ক্রিকেটার, কোচ, ধারাভাষ্যকার সবাই। কিন্তু আইপিএলসহ বিশ্বের টি-টোয়েন্টি লিগগুলোতে রাজ্যের অনীহা আর বিরক্তি হোল্ডিংয়ের।

তিনি বলেন, ‘আপনি যখন কোনো টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট জিতবেন, সেটা কিন্তু আপনাকে পুনরুজ্জীবিত করবে না। এমনকি এই ফরম্যাট ক্রিকেটও নয়! এই টি-টোয়েন্টির কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে শীর্ষ স্থান দখল করা খুব কঠিন হতে চলেছে।’

অথচ টি-টোয়েন্টি লিগগুলো এখন জনপ্রিয়তার শীর্ষে। অনেক ক্রিকেটার আন্তর্জাতিক খেলা রেখে মনোযোগ দিচ্ছেন টি-টোয়েন্টি লিগে। হোল্ডিং দাবি তুলেছেন, লিগগুলো যেন নিষিদ্ধ করা হয়, ‘বিশ্ব জুড়ে টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টগুলো নিষিদ্ধ করা করা উচিৎ। যখন একটি দরিদ্র দেশ, যারা ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং ভারতের মতো পারিশ্রমিক দিতে পারে না. তখন সেই দেশের খেলোয়াড়রা টি-টোয়েন্টি খেলতে যাবেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং অন্যরা সেটাই করছে।’

আইপিএলে কেন কখনও ধারাভাষ্য দেওয়া হয়নি, এমন প্রশ্নের জবাবে হোল্ডিং আইপিএলকে ক্রিকেট বলেই গণ্য করতে চাননি। তিনি উত্তর দিয়েছেন-

‘আমি শুধুমাত্র ক্রিকেটেই ধারাভাষ্য করি।’

হোল্ডিং অবশ্য টি-টোয়েন্টি প্রীতির পেছনে ক্রিকেটারদের দোষ দেখছেন না। তার মতে মাত্রাতিরিক্ত টাকার ছড়াছড়িই এমন পরিস্থিতির কারণ।

তিনি বলেন, ‘আপনি যখন ছয় সপ্তাহের মধ্যে ছয় লক্ষ থেকে আট লক্ষ ডলার উপার্জন করবেন, তখন আপনি কি করবেন? আমি ক্রিকেটারদের দোষ দিচ্ছি না। আমি প্রশাসকদের দোষ দিচ্ছি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে জয় পাচ্ছে। অথচ টেস্ট ক্রিকেট খেলার জন্য তাদের কখনও চাপ দেওয়া হয় না।’