Scores

আইপিএলে আমি প্রচুর সম্মান পেয়েছি : নাফিস

অভিনব এক ভূমিকায় ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) কাজ করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ব্যাটসম্যান নাফিস ইকবাল। জাতীয় দলের বর্তমান ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের বড় ভাই নাফিস খেলোয়াড়ি জীবনের পর ক্রিকেট ম্যানেজমেন্টে মনোযোগ দেন। সেই সুতো ধরেই ২০১৮ সালে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স তাকে মুস্তাফিজুর রহমানের দোভাষী হিসেবে নিয়োগ দেয়।

আইপিএলে আমি প্রচুর সম্মান পেয়েছি নাফিস

দোভাষীদের কাজ মূলত নির্দিষ্ট খেলোয়াড়ের কথা টিম ম্যানেজমেন্টকে আর টিম ম্যানেজমেন্টের কথা খেলোয়াড়ের কাছে অনুবাদ করে পৌঁছে দেওয়া। কিন্তু ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ফ্র্যাঞ্চাইজি দল মুম্বাই নাফিসকে সার্বক্ষণিক দলের সাথে রেখেছে, এমনকি টিম মিটিংয়েও তিনি উপস্থিত থাকতেন।

Also Read - বর্ণবৈষম্যের প্রতিবাদে সরব চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স







সম্প্রতি বিডিক্রিকটাইম এর সাথে লাইভ আলাপচারিতায় নাফিস আইপিএলের মধুর গল্প তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘পার্টি হত, বিভিন্ন গেম হত। টিম বন্ডিং সেশন হয় ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকের বাসায়। কয়েকটা গ্রুপ করে ট্রেজার হান্ট খেলা হত। আমার দলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ম্যানেজার ছিল, আরও ২-১ জন খেলোয়াড় ছিল। আমরা সেই গেমে প্রথম হয়েছিলাম। অনেক ব্যস্ত সূচি থাকত। তবে দল খেলোয়াড়দের যত্ন রাখার দিকে খেয়াল রাখত। প্রচুর খেলা, আজ এখানে কাল ওখানে। ধকল ছিল, কিন্তু কখনো তারা এটা শরীরের উপর আসতে দেয়নি। সবকিছু দারুণভাবে ব্যবস্থাপনা করত।’ 

আইপিএলে নাফিস যে সম্মান পেয়েছেন, তা শুনে প্রীত হবেন যেকোনো বাংলাদেশিই। নাফিস যে প্রত্যাশার চেয়েও বেশি ভালোবাসা পেয়েছেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সে, তা স্পষ্ট তার কথাতেই। তিনি জানান, ‘ওখানে অনেক বাঙালি কাজ করেন, তাদের কাউকে মুস্তাফিজের দোভাষী বানাতে পারত। কিন্তু তারা সাবেক একজন বাংলাদেশি ক্রিকেটার চেয়েছে। মাহেলা (মাহেলা জয়াবর্ধনে) আমাদের সাথে খুলনা টাইটান্সে কাজ করেছিল। সে আমাকে মুম্বাইয়ের জন্য নির্বাচিত করে। মুম্বাইয়ের সাথে আমার ২১ দিন কাজ করার কথা ছিল, কিন্তু আমাকে পুরো মৌসুমই রেখেছে। এটা শুধু ওদের স্বার্থে নয়, আমার স্বার্থও চিন্তা করেছে।’





আইপিএলে আমি প্রচুর সম্মান পেয়েছি নাফিস‘তারা জানত আমি এখন ম্যানেজমেন্ট লাইনে আছি। আমাকে ওদের সব জায়গায় প্রবেশাধিকার দিয়েছিল। টিম মিটিং বা যেখানে আমাকে দরকার নেই, ঐখানেও তারা আমাকে কাজ করার সুযোগ দিয়েছিল। কখনো বল ধরার সুযোগ দিয়েছে, মানে মাঠে কাজ করার। আমি ওখানে গিয়ে অনেক সম্মানিত বোধ করছিলাম। খেলোয়াড়, স্টাফ এমনকি দল মালিকরাও অনেক সম্মান করেছে।’– বলেন নাফিস।

ভারতের ধনকুবের মুকেশ আম্বানির ছেলে আকাশ আম্বানি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক। তার মত বড় মাপের ব্যক্তিত্বও নাফিসকে যথাযোগ্য সম্মান দেখাতে কার্পণ্য করেননি। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের সাথে যুক্ত শচীন টেন্ডুলকার নাফিসের কথা ভুলেননি। এই বিষয়গুলো অবাক করার পাশাপাশি সম্মানিত করেছে নাফিসকে।

তিনি বলেন, ‘শচীনের সাথে কয়েকবার দেখা হয়েছে, কথা বলার সুযোগ হয়েছে। প্রথম দিন বলেছিলাম- আপনি হয়ত আমাকে চিনতে পারেননি, আপনি যে ম্যাচে সর্বোচ্চ স্কোর করেছিলেন ঐ ম্যাচে আমি অভিষেক ফিফটি করেছিলেন। উনি বললেন- হ্যাঁ নাফিস আমি তোমাকে চিনি! আমি খুবই অবাক হয়েছিলাম। আকাশ আম্বানির সাথে যখন প্রথম কথা হয়… সেই আমাকে বলেছিল- এই নাফিস, কেমন আছো? নাম ধরে… দলের একজন মানুষকে সম্মান জানানোর জন্য তারা তাদের প্রস্তুতি রেখেছিল। শুধু হাই-হ্যালো বললেই কিন্তু পারত। নাম বলাতে গুরুত্ব পাওয়া যায়। তাদের এই জিনিসগুলা অনেক ভালো। খুব ভালো লেগেছে আমার। প্রচুর সম্মান পেয়েছি ওখানে।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

 

Related Articles

১২৬ রান করেও জিতল পাঞ্জাব

বরুণের আসর-সেরা বোলিংয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ল দিল্লির

যাই স্পর্শ করি সোনা হয়ে যায় : ধাওয়ান

বিদায় মেনে নিয়েছেন ধোনি

চেন্নাইয়ের প্রতিরোধহীন পরাজয়ে আবারো শীর্ষে মুম্বাই