‘আইপিএলে চড়া মূল্য মানেই ভালো পারফরম্যান্স না’

0
595

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ২০২০ সালের আসরের নিলামে আকাশছোঁয়া মূল্যে প্যাট কামিন্সকে দলে ভিড়িয়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)। কিন্তু মূল্য অনুযায়ী পারফরম্যান্স দিয়ে প্রত্যাশা পূরণ করতে তিনি ব্যর্থ হয়েছিলেন। এবারের আসর শুরু হওয়ার আগে তিনি নিজেই বললেন চড়া মূল্য মানেই সবকিছু খেলোয়াড়ের মর্জিমাফিক হবে এমন হয়।

'আইপিএলে চড়া মূল্য মানেই ভালো পারফরম্যান্স না'

Advertisment

২০২০ সালের নিলামে কামিন্সকে কেকেআর দলে ভিড়িয়েছিল ১৫ কোটি ৫০ লাখ ভারতীয় রুপিতে। গত আসরের নিলামে সেটাই ছিল সর্বোচ্চ মূল্য। কামিন্সকে নিয়ে কেকেআরের প্রত্যাশা আকাশছোঁয়া ছিল বিধায় তারা তাকে আকাশছোঁয়া মূল্য দলে ভিড়িয়েছিল। এই অজি ক্রিকেটারের মূল কাজ যেটা, অর্থাৎ বোলিং, সেটাই ব্যর্থ হলেও ব্যাট হাতে কিছু ম্যাচে চমক দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সবমিলিয়ে পারফরম্যান্স খুব একটা ভালো ছিল না।

যে খেলোয়াড়দের মূল্য অনেক বেশি, কিন্তু মাঠে পারফরম্যান্স সেভাবে দেখাতে পারেন না, স্বাভাবিকভাবেই তাদের নিয়ে সমালোচনা হয়। গত আসরে কামিন্সও সমালোচনার তীরে বিদ্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু একজন ক্রিকেটারের মূল্য অধিক মানেই যে পারফরম্যান্স সবসময় তার পক্ষেই কথা বলবে- এমনটা নয়। সেই কঠিন বাস্তবতায় আরেকবার সবাইকে মনে করিয়ে দিয়েছেন কামিন্স।

তিনি বলেন, ‘আপনি যেখানেই পেশাদার ক্রিকেট খেলেন না কেন সবসময়ই অনেক চাপ থাকে। যখন আপনি একটা ম্যাচ ভালো খেলবেন, তখন পরের ম্যাচেও ভালো করার চাপ থাকবে। আবার যখন ভালো খেলতে পারবেন না, তখনও পরের ম্যাচে ভালো পারফর্ম করার চাপ থাকবে।’

‘আমার মনে হয় নিলাম আরেকটি চাপ সৃষ্টি করে। চড়া মূল্যে বিক্রি হওয়া মানে এই না যে হঠাৎ করেই বল বেশি সুইং করবে কিংবা উইকেট সবুজ হয়ে যাবে; সীমানাও বড় হয়ে যাবে না। মাঠ সেই একই থাকবে তাই আমাকে চেষ্টা করতে হবে আমি কত ভালো করতে পারি। আমি মনে করি, আমি থাকাকালীন কেকেআরের সাফল্য এনে দিতে এমন কিছুই করা হবে।’

২০২০ সালের আসরে কেকেআরের পক্ষে ১৪টি ম্যাচ খেলেছিলেন কামিন্স। শিকার করেন ১২টি উইকেট এবং ইকোনমিক রেট ৭.৮৬।