Scores

আইসিসির ওপর চটেছে বিসিসিআই

বিশ্ব ক্রিকেটে সবচেয়ে প্রভাবশালী ক্রিকেট বোর্ড হিসাবে পরিচিত বিসিসিআই। ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির সাথে মাঝে মাঝেই ভারতীয় বোর্ডটির মতবিরোধ দেখা যায়। এবারে আইসিসির নতুন নতুন টুর্নামেন্ট প্রস্তাবনার বিপক্ষেও সরাসরি কথা বললো বিসিসিআই।

ট্যাক্স নিয়ে দর কষাকষি; মুখোমুখি আইসিসি-বিসিসিআই

টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন্স কাপ ও ওডিআই চ্যাম্পিয়ন্স কাপ নামে দুইটি নতুন টুর্নামেন্ট চালুর কথা জানিয়েছে আইসিসি। এই টুর্নামেন্ট দুইটি ছেলে এবং মেয়ে উভয়ের ক্ষেত্রেই আয়োজন করা হবে। কিন্তু আইসিসির এই প্রস্তাবে রাজি নয় প্রভাবশালী বোর্ডগুলো। বিসিসিআইয়ের এক কর্মকর্তা তো সরাসরিই বললেন, বিসিসিআই ও ইসিবির (ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড) বিপক্ষে দাঁড়াচ্ছে আইসিসি।

Also Read - ভেট্টোরির সাথে চুক্তি পরিবর্তন করতে চায় বিসিবি


তার ভাষায়, ‘আমি বুঝছি না তারা কেন বিসিসিআই ও ইসিবির বিপক্ষে দাঁড়াচ্ছে। আইসিসির এই পুরো পরিকল্পনা অপ্রয়োজনীয়। আমি প্রশ্ন তুলছি এই প্রস্তাব নিয়ে।’

বিসিসিআইয়ের এই কর্মকর্তার মুখে অবশ্য এই প্রস্তাবে রাজি না থাকার পেছনে বোর্ডের নিজস্ব লাভ-লোকসানের কথাও উঠেছে। দ্বিপাক্ষিক সিরিজ কিংবা ফ্র্যাঞ্চ্যাইজি টুর্নামেন্টগুলো সময়ের অভাবে আয়োজন করা না লেগে আর্থিক ক্ষতি হয়ে যাবে বোর্ডগুলোর।

তিনি বলেন, ‘আমরা এই ব্যাপারে খুব পরিষ্কার অবস্থানে আছি। দেখা গেল, কোনো গুরুত্বপূর্ণ বোর্ড এই প্রস্তাবে আগ্রহ দেখাল না, তখন আইসিসি কী করবে? আসরগুলো কী আইসিসির একার? এভাবে প্রতিবছর আইসিসির আসর করাটায় আসলে ক্রিকেটকে বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া নয়, এটা আইসিসিকে বুঝতে হবে। দ্বিপাক্ষিক খেলাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এসব আসরগুলো আইপিএল, বিগ ব্যাশ ও দ্বিপাক্ষিক সিরিজে প্রভাব ফেলবে, হয়তো কোনো সময়ই থাকবে না ওগুলোর জন্য। আর খেলোয়াড়েরাও আর কত খেলতে পারে?’

অবশ্য বিসিসিআইয়ের এই যুক্তিও ভুল নয়, প্রতিবছর বৈশ্বিক আসর হলে সেটার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে যাবে,

‘এভাবে প্রতিবছর আইসিসি আসর আয়োজন করলে আপনি বিশ্বকাপ জেতার উত্তেজনাও হারিয়ে ফেলবেন। কোনো কিছুই অতিরিক্ত ভালো না। আপনি একবার বিশ্বকাপ জেতার পরে আবার চার বছর অপেক্ষা করেন পরবর্তীটার জন্য। কিন্তু যখন এই ধরনের টুর্নামেন্ট প্রতিবছর হবে, আপনি আগ্রহ হারাবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘তাছাড়া আপনি কতজন সম্প্রচারক পাবেন? আর কত টাকায় বা খরচ করবেন ক্রিকেটের পেছনে?’

প্রসঙ্গত, ২০২৩ ও ২০২৭ সালে নারী ওডিআই চ্যাম্পিয়ন্স কাপ এবং ২০২৪ ও ২০২৮ সালে সালে নারী টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন্স কাপ আয়োজন করার কথা জানানো হয়েছে। তাছাড়া ২০২৫, ২০২৯ সালে নারী ওডিআই বিশ্বকাপ এবং ২০২৬ ও ২০৩০ সালে নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

ছেলেদের টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন্স কাপ ২০২৪ ও ২০২৮ সালে, ২০২৫, ২০২৭, ২০২৯ ও ২০৩১ সালে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল, ২০২৫ ও ২০২৯ সালে ওডিআই চ্যাম্পিয়ন্স কাপ, ২০২৬ ও ২০৩০ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৭ ও ২০৩১ সালে ওডিআই বিশ্বকাপ রাখা হয়েছে আইসিসির নতুন প্রস্তাবনায়। এছাড়া ২০২৩ সালে ওডিআই বিশ্বকাপ তো আগেই ঠিক করা আছে।

টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন্স কাপ টুর্নামেন্টগুলোতে র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ১০ দল খেলবে। যেখানে মোট ম্যাচ আয়োজন করা হবে ৪৮টি। ওয়ানডে চ্যাম্পিয়ন্স কাপে খেলবে র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ৬ দল।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

ক্রিকেট ভক্তদের দুঃসংবাদ দিল আইসিসি

বিশ্বকাপের ভাগ্য নির্ধারণ চলতি মাসেই

বন্ধ হয়ে গেল আইসিসিও

করোনার প্রভাবে আইসিসির বোর্ড সভা স্থগিত

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে আইসিসির রসিকতা!