Scores

আকরাম-ইনজামামদের ফাঁসি চাইলেন কাদির

পাকিস্তানের সাবেক তারকা ক্রিকেটার ওয়াসিম আকরাম, ইনজামাম-উল-হক, মোশতাক আহমেদ এবং আরও অনেকে ম্যাচ-ফিক্সিংয়ের মতো জঘন্য কাজে জড়িত ছিলেন বলে দাবি করেছেন তিন কিংবদন্তির সতীর্থ আবদুল কাদির।
ওয়াসিম বা ইনজামাম নন, ওয়াকার ইউনুসের বিপক্ষে ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগ ছিল।
ম্যাচ ফিক্সিং নিয়ে পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের বিপক্ষে অভিযোগ নতুন নয়। অনেক তারকা পাকিস্তানি ক্রিকেটার ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িত_ এমন প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও শাস্তি দেওয়া হয়নি। বিচারপতি মালিক মোহাম্মদ কাইয়ুমের তদন্ত প্রতিবেদনে আতাউর রহমান এবং সেলিম মালিকের নাম এসেছিল। তাদের শাস্তিও দেওয়া হয়।
কিন্তু কিংবদন্তি পেসার ওয়াসিম আকরাম এবং ইনজামাম-উল-হক শাস্তির মুখোমুখি হননি। তখন মাফ পেয়ে এই দুই তারকার ব্যাপারে এবার মুখ খুলেছেন কিংবদন্তি স্পিনার আবদুল কাদের। অথচ নব্বইয়ের দশকে কেবল ওয়াসিম বা ইনজামাম নন, ওয়াকার ইউনুসের বিপক্ষে ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে তদন্ত হয়েছিল।

মালিক মোহাম্মদ কাইয়ুম তদন্তে ওয়াসিম, ওয়াকার এবং ইনজামামের বিপক্ষে কোনো প্রমাণ পাননি। ফলে তারা শাস্তির হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন। তবে কাইয়ুম কমিশন তখন ওয়াসিম আকরামকে অধিনায়কত্বের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার সুপারিশ করেছিল। ওয়াসিমের অধিনায়কত্বও চলে যায়। কিন্তু বড় কোনো শাস্তি হয়নি।



আরও দেখুন- রিয়াদ, মমিনুলকে বাদ দেয়া জরুরি ছিল



আবদুল কাদির বলেছেন, ‘কাইয়ুম কমিশনের সুপারিশ কখনোই পুরোপুরি বাস্তবায়িত হলো না কেন?’ এরপর সেলিম মালিক এবং আতাউর রহমানের প্রসঙ্গ টেনে কাদির বলেন, ‘এই দুজনেও হয়তো বেঁচে যেত, যদি তারা তখন তাদের সেরা ফর্মে থাকত। ক্যারিয়ারের শেষ বেলায় দাঁড়িয়ে থাকার কারণে সেলিম মালিক ও আতাউর রহমানকে বলির পাঁঠা বানিয়ে শাস্তি দেওয়া হয়েছিল। আমাদের দেশের রেওয়াজই এমন। ছোটখাটো অপরাধীকে শাস্তি দিয়ে বড় অপরাধীদের ছেড়ে দেওয়া হয়। ওয়াসিম, ওয়াকার, ইনজামাম ও মুশতাকরা কখনও না কখনও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের হয়ে কাজ করেছে। এটাই বাস্তবতা। আমার প্রশ্ন ব্যাপারটা এমন হলে কাইয়ুম কমিশনের সুপারিশ কীভাবে বাস্তবায়িত হলো?’

Also Read - মাগুরায় সাকিবের প্রশংসায় প্রধানমন্ত্রী


আবদুল কাদেরের আগে পাকিস্তানের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান জাভেদ মিয়াঁদাদও ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকাদের ফাঁসি চেয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই এটা বন্ধ করতে হবে। কেন আপনি কঠিন পদক্ষেপ নিতে পারবেন না? আপনার উচিত যারা ফিক্সিং করছেন, তাদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া।’
  • মাকসুদুল হক, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম।
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

সাকিবের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন ডমিঙ্গো

পিসিবির বিরুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতার অভিযোগ আর্থারের

ওয়াসিমকে কোচ করার পরামর্শ মিয়াঁদাদের

ওয়াসিম আকরামকে অপমান, ওয়ালশের সমালোচনা

নিউজিল্যান্ডকে হারাতে ‘অদ্ভুত যোগসূত্র’ খুঁজছেন ওয়াসিম