আফগানিস্তানের বিপক্ষে কাল মাঠে নামছে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ-আফগানিস্তানের মধ্যে তিন ম্যাচের একদিনের সিরিজ শুরু হচ্ছে আগামীকাল (রবিবার)। প্রথমবারের মতো এই দুই দল দ্বি-পাক্ষিক সিরিজে অংশ নিচ্ছে। দীর্ঘ ১০ মাস পর একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এর আগে টানা পাঁচটি দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ জিতেছিলো বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়েকে ৫-০ তে হারানোর পর একদিনের ক্রিকেট বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিলো বাংলাদেশে। তারপর দেশে ফিরে পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিন আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টানা সিরিজ জিতেছে টাইগাররা। দীর্ঘ বিরতির পর আগের সাফল্য ধরে রাখতে চাইবে টাইগাররা। এদিকে ২০১৬ সালে সব ফরমেট মিলিয়ে ২৩ টি ম্যাচের ১৬ টিতে জিতেছে আফগানিস্তান। বাংলাদেশের সাথে সেই ধারাবাহিকতায় বজায় রাখতে চাইবে সফরকারীরা।

PREVIEWMAIN 1
বাংলাদেশ সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলো মার্চ-এপ্রিলে ভারতে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। এরপর থেকেই আর কোনো সিরিজে অংশ নেয় নি টাইগাররা। তাই, আসন্ন ইংল্যান্ড সিরিজের আগে আফগানিস্তান সিরিজ অনেক গুরুত্ব পাবে। আন্তর্জাতিক ম্যাচ না খেললেও ঘরোয়া আসরে ব্যস্ত ছিলো টাইগাররা। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে অংশ নিয়ে দেশের শীর্ষ পর্যায়ের ক্রিকেটাররা ভালো পারফর্ম করেছেন। সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল, মাশরাফি বিন মর্তুজা সবাই ভালো ফর্মে ছিলেন। বাংলাদেশ দলের জন্য সুখবর, নিষিদ্ধের বেড়াজাল থেকে মুক্তি হয়েছেন পেসার সেনসেশন তাসকিন আহমেদ। গতকাল (শুক্রবার) ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন ত্রুটিমুক্ত বলে জানিয়েছে।

Advertisment

এদিকে বাংলাদেশের সাথে এই সিরিজে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার নুর আলি জার্দান, জাভেদ আহমাদি, হামিদ হাসান এবং শাপুর জর্দানকে দলে রাখেনি আফগানিস্তান। ভারতে করা আফগানিস্তানের তিন সপ্তাহের ক্যাম্পে যেসব তরুণ ক্রিকেটার ভালো করেছিলো তাদেরকে সুযোগ দেয়া হয়েছে। শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিসিবি একাদশের সাথে প্রস্তুতি ম্যাচে আলো ছড়িয়েছেন এই ক্রিকেটাররা। অনুর্ধ্ব-১৯ দলের রশীদ খান, করিম জানাতদের মতো ক্রিকেটারদের অভিজ্ঞ আসঘার স্টানিকজাই ও মোহাম্মদ নবীদের অগ্রদূত হতে হবে।

 

বর্তমান আইসিসি ক্রিকেট র‍্যাংকিংয়ে ৯৮ পয়েন্ট নিয়ে সাত নাম্বারে আছে বাংলাদেশ। অন্যদিকে র‍্যাংকিংয়ে দশ নাম্বারে থাকা আফগানদের সংগ্রহ ৪৯ পয়েন্ট।

এর আগে একদিনের ক্রিকেটে মাত্র দুইবার দেখা হয়েছিলো এই দুই দলের। সেখানে ফলাফল ১-১।  ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে ২০১৪ সালের এশিয়া কাপে প্রথম দেখায় বাংলাদেশকে ৩২ রানে হারিয়েছিলো আফগানরা। ২০১৫ বিশ্বকাপে সেই হারের প্রতিশোধ নেয় বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরায় অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে টাইগারদের জয়ে ১০৫ রানের।

সম্ভাব্য বাংলাদেশের একাদশঃ ১। তামিম ইকবাল, ২। সৌম্য সরকার, ৩। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, ৪। মুশফিকুর রহিম, ৫। সাকিব আল হাসান, ৬। মোসাদ্দেক হোসেন/নাসির হোসেন, ৭। সাব্বির রহমান, ৮। মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), ৯। রুবেল হোসেন, ১০। তাইজুল ইসলাম, ১১। তাসকিন আহমেদ।

সম্ভাব্য আফগানিস্তানের একাদশঃ ১। মোহাম্মদ শাহজাদ, ২। নওরোজ মঙ্গল, ৩। রহমত শাহ, ৪। হাশমতউল্লাহ শাইদি, ৫। আসঘার স্টানিকজাই (অধিনায়ক), ৬। মোহাম্মদ নবী, ৭। নাজিবুল্লাহ জাদরান, ৮। রশীদ খান, ৯। মিরওয়াইস আশরাফ, ১০। দৌলৎ জাদরান, ১১। করিম জানাত।

খেলা শুরুঃ দুপুর ২ টা ৩০ মিনিটে
ভেন্যুঃ মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম।

উল্লেখ্য, বৃষ্টির কারণে সিরিজের কোনো ম্যাচের ফলাফল না আসলে খেলা হবে রিজার্ভ ডে’তে। সিরিজের প্রতিটি ম্যাচের জন্য একদিন করে রিজার্ভ ডে রাখা হয়েছে।