Scores

আফিফ-লিটনের ব্যাটিং ঝড়ে প্লে-অফে রাজশাহী

রংপুর রেঞ্জার্সের বিপক্ষে ৪৭ রানে জিতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছিল রাজশাহী রয়্যালস। তবে দুই ম্যাচ বাদেই শীর্ষস্থান দখল করে ঢাকা প্লাটুন। আজ খুলনাকে ৬ উইকেটে হারিয়ে টেবিল সেরা হয় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। এক ম্যাচ পরেই সিলেটকে ৬ উইকেটে হারিয়ে রাজত্ব ফিরে পেয়েছে রাজশাহী। একইসাথে প্লে-অফে খেলাও নিশ্চিত করেছে দলটি।

আফিফ-লিটনের উদ্বোধনী জুটিতে মুগ্ধ বোপারা

এদিন আগে ব্যাট করে রাজশাহীর সামনে ১৪৪ রানের লক্ষ্য দাঁড় করে সিলেট থান্ডার। এই টার্গেট টপকাতে নেমে দলের হয়ে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে আসেন দুই ব্যাটসম্যান লিটন দাস ও আফিফ হোসেন। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে উদ্বোধনী জুটিতে মাত্র ৩৪ বলে ৫৯ রানের পার্টনারশিপ গড়েন দুজন।

Also Read - সিলেটের নিয়মরক্ষার ম্যাচে মিঠুনের ৩ রানের আক্ষেপ


রাদাফোর্ডের বলে আউট হওয়ার আগে ২০ বলে ৩৬ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে যান লিটন। ওপেনিং পার্টনারকে হারিয়ে দলীয় অধিনায়ক শোয়েব মালিককে নিয়ে রাজশাহীর রানের চাকা সচল রাখেন আফিফ। তবে খানিক পর আক্ষেপ নিয়ে ফিরতে হয় বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানকে। মাত্র ৪ রানের জন্য অর্ধশতকের দেখা পাননি তিনি।

আফিফ ৩০ বলে ৮টা চারের সাহায্যে ৪৬ রান করে রান আউট হলে মালিকও ফেরেন ২৭ রানে। শেষদিকে ইরফান শুক্কুরের ১০ ও মোহাম্মদ নেয়াওয়াজের অপরাজিত ১৭ রানের সুবাদে ২৯ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের জয় তুলে মাঠ ছাড়ে রাজশাহী রয়্যালস।

এই জয়ের ফলে ১০ ম্যাচে ৭ জয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফ নিশ্চিত করার পাশাপাশি ঢাকাকে সরিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেল পদ্মা পাড়ের দলটি।

এর আগে টসে জিতে আব্দুল মাজিদকে নিয়ে ইনিংস শুরু কর‍তে আসেন সিলেটের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক আন্দ্রে ফ্লেচার। তবে দলীয় ২৬ আর ৩৬ রানের মাথায় আউট হয়ে যান মাজিদ (১৬) এবং নতুন ব্যাটসম্যান জনসন চার্লস (৮)। এরপর মিঠুনকে নিয়ে ইনিংস মেরামতের কাজ করেন ফ্লেচার। পরে তিনিও ৩৩ বলে ২৫ রান করে রান আউট হলে হাত খুলে খেলতে শুরু করেন মিঠুন।

তবে চলতি বিপিএলে নিজের তৃতীয় ফিফটি থেকে মাত্র ৩ রান দূরে থাকতে মিঠুনও রান আউটের ফাঁদে পড়েন। আউট হওয়ার আগে ৩৮ বলের ইনিংসটি মিঠুন সাজিয়েছেন ৩টি চার ও ২টি ছয়ের সাহায্যে। শেষদিকে রাদারফোর্ডকে ২৫ ও নাজমুল হসেন মিলনের অপরাজিত ১৩ রানের কল্যাণে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রানের সংগ্রহ দাঁড় করে সিলেট থান্ডার।

ম্যাচে রাজশাহী রয়্যালসের হয়ে ২ উইকেট নেন লেগ স্পিনার অলক কাপালি। এছাড়াও মোহাম্মদ ইরফান ও আবু জায়েদ নিয়েছেন ১টি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

সিলেট থান্ডার: ১৪৩/ ৬ (২০ ওভার)
মিঠুন ৪৭, ফ্লেচার ২৫, রাদারফোর্ড ২৫; কাপালি ২/১৪, ইরফান ১/১৮।

রাজশাহী রয়্যালস: ১৪৫/৪ (১৫.১ ওভার)
আফিফ ৪৬, লিটন ৩৬, মালিক২৭; দেলোয়ার ২/১১, রাদারফোর্ড ১/৩১।

ফল: রাজশাহী ৬ উইকেটে জয়ী।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

আফিফ-সাইফউদ্দিনে নিজের বিকল্প দেখছেন রিয়াদ

রোমাঞ্চিত আফিফের আশা পূরণ

যে কারণে ওয়ানডে দলে ডাক পেলেন নাইম-আফিফ

বিপিএলের লিটন-আফিফকে হারিয়ে খুঁজছে বাংলাদেশ

রাজশাহীর বড় সংগ্রহ; মালিক পারলেও আফিফের আক্ষেপ