Scores

আবাহনী চ্যাম্পিয়ন

ব্যাট হাতে তামিম ইকবালের শতক আর বোলিংয়ে সাকলাইন সজীবের সাত উইকেট- দুই মিলে যেন সোনায় সোহাগা! আবাহনীর কাছে পাত্তাই পেল না প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাব। ১১৫ রানের জয় ছিনিয়ে নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলো আবাহনী। প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে আবাহনীর ম্যাচ নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হলেও বিসিবি এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছে ম্যাচের পয়েন্ট ভাগাভাগি করে নিবে দুই দল। তাই শিরোপা নিজেদের করে নেওয়ার পথে আর বাধা থাকল না তামিমদের।

আবাহনী লিমিটেড

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় আবাহনী। ইনিংসের তৃতীয় বলে রুবেল হোসেনের বলে রানের খাতা খোলার আগেই ফিরে যান লিটন দাস। ্তারপর তামিম ইকবাল নাজমুল হোসেন শান্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলেন। ৫০ রানের জুটি গড়েন দুজন। ১৭ রান করে নাজমুল ইসলামের বলে আউট হন নাজমুল হোসেন। দিনেশ কার্তিক (২৫) হাল ধরলেও নিজের স্কোর বড় করতে পারেননি। ৯৭ রানের মাথায় নাজমুলের বলে বোল্ড হন তিনি।

Also Read - নারী দলের প্রধান নির্বাচক আতহার আলী খান


কার্তিকের বিদায়ের পর মোসাদ্দেককে নিয়ে এগিয়ে যান তামিম। দুজন মিলে ১৭৩ রানের বিশাল জুটি গড়ে তুলেন।মারমুখী হয়ে ব্যাটিং করছিলেন দুজনই। ১১ চার ও ৪ ছক্কায় ১৩২ বলে ১৪২ রান করেন তামিম ইকবাল। দলীয় ২৭০ রানের মাথায় উন্মুক্ত চান্দের বলে আউট হন তামিম। আর ৩ চার ও ৫ ছক্কায় ৭৪ বলে ৭৮ রানের ইনিংস খেলে আউট হন মোসাদ্দেক। শেষদিকে ছোট ছোট ঝড় তুলেন সাকিব আল হাসান ও আবুল হাসান। সাকিব করেন ৭ বলে ১২ ও আবুল করেন ১০ বলে ২৬ রান। এর সুবাদে ৩১৬ রানের পুঁজি পায় আবাহনী।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার মেহেদী মারুফ ও উন্মুক্ত চান্দ ভালোই শুরু করেন। ৭২ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন দুজন। চান্দকে (২৩) আউট করে আবাহনীকে প্রথম সাফল্য এনে দেন তাসকিন আহমেদ। ্তারপর আবাহনীর স্পিনার সাকলাইন সজীবের কাছে আত্মসমর্পণ করতে থাকে প্রাইম ব্যাঙ্ক। ১১৫ রানের মাথায় জনি তালুকদারকে (১৩) বোল্ড করেন সাকলাইন। নিজের পরের ওভারে আউট করেন নুরুল হাসানকে (৯)। তারপরের ওভারে সজীব আউট করেন মেহেদী মারুফকে। প্রাইম ব্যাঙ্কের  এ ওপেনার করেন ৬৯ রান।

মারুফকে ফেরানোর পরের বলে তাইবুরকেও আউট করেন সজীব।  সাব্বির  রহমানকে (১২) আউট করেন তাসকিন।। সজীবের বোলিং তোপে পড়ে ছিটকে যায় প্রাইম ব্যাঙ্ক।

প্রাইম ব্য্যাঙ্কের অধিনায়ক শুভাগত হোম প্রতিরোধ গড়ে তুললেও তা শুধু হারের ব্যবধান কমায়। ৯ রান করে রায়হান ও ০ রান করে রুবেল এলবিডব্লিউ হন সজীবের বলে। ৩৩ বলে ৫১ রান করা শুভাগত হোমকে আউট করে সপ্তম উইকেট শিকার করেন সজীব। ইনজুরির কারণে ব্যাটিংয়ে নামেননি নাজমুল হোসেন।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

আবাহনী ৩১৬/৭ (৫০ ওভার)
তামিম ১৪২, মোসাদ্দেক ৭৮
চান্দ ৫৯/৩, রুবেল ৬৯/২

প্রাইম ব্যাঙ্ক ২০১ (৩৭.২ ওভার)
মারুফ ৬৯, হোম ৫১
সজীব ৫৮/৭, তাসকিন ৪৫/২

ম্যাচসেরাঃ তামিম ইকবাল

-আজমল তানজীম সাকির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে মাশরাফি

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতলো ভারত

মেডিকেল রিপোর্টের উপরেই নির্ভর করছে সাকিবের এনওসি

শঙ্কা কাটিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলছেন মুস্তাফিজ

দুদকের শুভেচ্ছাদূত হলেন সাকিব