Scores

আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত রাসেলের খামার, ছিলেন প্রাণসংশয়ে

ঘূর্ণিঝড় আমফানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পুরো দেশ। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার সৈয়দ রাসেলও। তার এগ্রো ফার্মের জন্য তৈরি দুইটা ঘরের টিনের চালা উড়ে গেছে। ঝড়ে আটকা পড়েছিলেন তিনিও। সেই রাতে কোনরকম প্রাণে বেঁচেছেন রাসেল।

আমফানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ রাসেলের খামার

 

গত ২০ মে (বুধবার) বাংলাদেশে আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় আমফান। এর প্রাদুর্ভাবে বড় ধরণের ক্ষতি হয়েছে উপকূলীয় জেলাগুলোতে। এই ঘূর্ণিঝড়ের ফলে বেশ কয়েকজন মারাও গেছেন। ফসল সহ ক্ষতি হয়েছে মৌসুমি ফলের। এর প্রভাবে মোটা অঙ্কের ক্ষতি হয়েছে সৈয়দ রাসেলেরও।

Also Read - উইলিয়ামসনের হৃদয়ে গেঁথে আছে মিরপুরের কথা


নিজ জেলা যশোরে একটি এগ্রো ফার্ম তৈরি করেছেন রাসেল। ঝড়ের প্রভাবে সেই ফার্মের দুইটা ঘরের টিনের চালা উড়ে গেছে। ভেঙে পড়েছে সেখানকার গাছগাছালিও। ফার্মে থাকা গরুগুলো কোনরকমে বাঁচলেও আর্থিকভাবে ক্ষতি হয়েছে তার।

এ প্রসঙ্গে বিডিক্রিকটাইমকে রাসেল বলেন, ‘আমার এই ফার্মে দুইটা চালা আছে। একেকটা চালা লম্বায় প্রায় ৮০ ফুট। ঝড়ের ফলে দুইটা চালা উড়ে গেছে। যে চালার নিচে গরু থাকে, ওটার তো কোন অস্তিত্ব নাই, সব ভেঙে পড়েছে গরুর গায়ের উপরে। পরের দিন সকালে ওগুলো সব কেটে-ছিঁড়ে সরিয়ে তারপর গরু গুলো আমি বের করেছি।’

‘আল্লাহর অশেষ রহমতে গরু গুলোর খুব বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হয়নি। সর্বমোট ১৯টি গরু ছিল। সবগুলোই মোটামুটি ভালো আছে। শুধু একটা গরুর একটু ক্ষতি হয়েছে। সবকিছু আবার নতুন করে ঠিক করতে গেলে প্রায় ৫ লাখ টাকার মতো খরচ হবে।’- আরও বলেন তিনি।

ঝড়ের সময় নিজ ফার্মেই উপস্থিত ছিলেন রাসেল। ছিলেন উড়ে যাওয়া টিনের চালার নিচেই। পরে পরিস্থিতি বুঝে কোনরকম পালাতে পেরেছেন তিনি। তবে সেই রাতে রাসেলকে খুঁজে না পেয়ে আতঙ্কে ছিল পরিবারের মানুষজন।

আমফানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ রাসেলের খামার

রাসেল জানান, ‘ঝড়ের সময় আমি আমার খামারেই উপস্থিত ছিলাম। সেদিন ঝড়ের মাত্রা এত বেশি ছিল যে, আসলে সেখানে থাকার মত অবস্থা ছিল না। এমন হয় যে আমাদের সহ উড়িয়ে নিয়ে যায়। আমরা ওখানে তিনজন ছিলাম। আমার বন্ধু পরে বলে এখানে তো থাকা যাবে না।’

সে রাতের কী হয়েছিল জানান আতঙ্কিত রাসেল, ‘এর আগে সেখানকার নৈশ প্রহরী যিনি ছিলেন, উনি আমার কাছ থেকে দা নিয়ে গেছেন রাস্তায় পড়ে থাকা ডালপালাগুলো পরিষ্কার করার জন্য। সে যাওয়ার পরে যখন বুঝলাম অবস্থা বেগতিক, তখন তো আমরা চলে গেলাম নিরাপদ স্থানে। এটা আবার উনি জানে না।’

‘উনি যখন এসে আমাদের খুঁজে পায়নি, পাশে আমার নানার বাড়ি ছিল সেখানে গেছে খোঁজ করতে। সেখানেও না পেয়ে সে বলেছে রাসেল হারিয়ে গেছে। পরে সবাই খোঁজাখুঁজি করেছে আমাদের। মসজিদেও যেয়ে খুঁজেছে। তখন রাত ২টার মত বাজে। পরে তো ঝড় থামলে আমরা বের হয়ে আসলাম। সবাই অনেক আতঙ্কিত ছিল।’– সাথে যোগ করেন তিনি।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

এশিয়া কাপের ভাগ্য চূড়ান্ত করল এসিসি

বিয়ে করলেন রাহী

ঢাকার বাইরের দুই ভেন্যুতে ডিপিএল শুরুর পরিকল্পনা বিসিবির

তামিমকে তাঁদেরও স্যালুট

পেসারদের ভিডিও কলে পরামর্শ দিচ্ছেন গিবসন