Scores

আমাদের ফাস্ট বোলাররা বিশ্বমানেরঃ নান্নু

বাংলাদেশ দলের পেসারদের ‘বিশ্বমানের ফাস্ট বোলার’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক ও সাবেক খ্যাতিমান ক্রিকেটার মিনহাজুল আবেদিন নান্নু।

আমাদের ফাস্ট বোলাররা বিশ্বমানেরঃ নান্নু

সম্প্রতি সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন ঐ সফরে বাংলাদেশের ম্যানেজারের দায়িত্ব পাওয়া এই বোর্ড কর্মকর্তা। এ সময় তিনি পেসারদের সম্পর্কে এমন ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

Also Read - বিগ ব্যাশে নাম লেখালেন রাশিদ


দক্ষিণ আফ্রিকায় উপমহাদেশের চেনা কন্ডিশন পাবে না টাইগাররা। ফলে তামিম-মুশফিকদের জন্য সেখানে ভালো করা কিছুটা কঠিন। তবে ব্যতিক্রম পেসারদের ক্ষেত্রে। দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেট পেসারদের জন্য স্বর্গ। সেখানে ভালো করার তাই দারুণ সুযোগ মুস্তাফিজ-রুবেল-তাসকিনদের। আর নান্নুর মতে, প্রোটিয়াদের বিপক্ষে তাদের মাটিতে ভালো করতে পারবেনও পেসাররা।

দক্ষিণ আফ্রিকান বোলারদের চেয়ে বাংলাদেশি বোলাররা পিছিয়ে থাকবে না উল্লেখ করে নান্নু বলেন, আমাদের ফাস্ট বোলাররাও কিন্তু বিশ্বমানের। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের চেয়েও আমরা খুব বেশি পিছিয়ে থাকবো না।

২০০৮ সালে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে শেষবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকা সফর করেছিল বাংলাদেশ। ঐ সফরে দুই টেস্টের দুটিতেই সফরকারী বাংলাদেশ হেরেছিল ইনিংস ব্যবধানে, কোনো জয় না পাওয়ার বিপরীতে হার বরণ করে নিতে হয়েছিল ওয়ানডে ও টি-২০তেও। নয় বছর পর আবারও দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এবার কেমন করবে টাইগাররা?

স্বভাবতই এই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সবার মনে। আর এর জবাবে নান্নু তুলে ধরলেন নয় বছর আগের বাংলাদেশের সাথে বর্তমান বাংলাদেশের পার্থক্য। তিনি বলেন, নয় বছর আগের আর এখনকার মধ্যে অনেক পার্থক্য আছে। দল এখন অনেক অভিজ্ঞ। অনেক ম্যাচ খেলেছে আমাদের দল। খেলোয়াড়দের কাছ থেকেও আমরা কিন্তু অনেক কিছু পেয়েছি। আর আমদের লাস্ট দুই বছরের পারফরম্যান্স ধরে রাখতে পারলে আমরা ভালো করবো।

দলের টপ অর্ডার নিয়ে নির্বাচকদের দুশ্চিন্তা থাকছে এই সিরিজেও। বিশেষ করে দুশ্চিন্তাটা ইমরুল কায়েসের ব্যাটিং পজিশন নিয়ে। আপাতত এই সম্পর্কে কিছু খোলাসা করে বলতে চাননি প্রধান নির্বাচক, এখন এই মুহূর্তে তো বলা ঠিক না। টিমের একটা প্ল্যান আছে। সেটা দক্ষিণ আফ্রিকাতে গিয়েই ঠিক হবে। তখনই বলা যাবে ইমরুল কোথায় খেলবে। তাছাড়া আমদের একটা প্রস্তুতি ম্যাচও আছে।

আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকার উদ্দেশে দেশ ছাঢ়বে টাইগাররা। সফরে স্বাগতিকদের বিপক্ষে দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টি-২০ খেলবেন মুশফিক-তামিমরা।

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

সাইফউদ্দিন নাকি আরিফুল— দ্বিধায় নির্বাচকরা

‘হাথুরুসিংহেকে ক্ষমতা দেওয়াই বুমেরাং হচ্ছে’

এমন পারফরম্যান্সেরর কারণ খুজঁছেন হাবিবুল

“২০০ রান তাড়ার মানসিকতা তৈরি হয়নি”

টি-২০ তে দ্রুততম শতকের মালিক হলেন মিলার