SCORE

‘আমার দুই বছর টেস্ট খেলার সামর্থ্য আছে’

বাংলাদেশের সর্বকালের অবিসংবাদিত সেরা পেসার তিনি। সাকিব আল হাসানের পর অনেকে তাকেই মনে করেন দেশের ক্রিকেটের সেরা খেলোয়াড়। কিন্তু সেই মাশরাফি বিন মুর্তজার ক্যারিয়ারে ইনজুরি যে পরিমাণ ভুগিয়েছে, এমনটি ঘটেছে খুব কম পেশাদার ক্রিকেটারের সাথেই।

ইনজুরির ছোবলেই মাশরাফি ছেড়েছেন টেস্ট ও টি-২০। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এখন খেলছেন শুধু ওয়ানডে। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে লঙ্গার ভার্শন খেলছেন ফাঁকফোকর পেলেই। সেই জায়গা থেকেই মাশরাফির দিকে তেড়ে আসে প্রশ্ন- কেন খেলছেন না টেস্ট?

Also Read - ঢাকার বাইরে এইচপি ক্যাম্পের ভাবনা

টেস্টে মাশরাফির মতো অভিজ্ঞ বোলার খুবই প্রয়োজন বাংলাদেশের। নিজের টেস্ট খেলার সামর্থ্য এখনও আছে, এটি জানেন মাশরাফিও। বিসিএলের দ্বিতীয় দিনের খেলার ফাঁকে সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত ক্রিকেটার বলেন,বয়স ৩৫ এর কাছে গেলেও যে ফিটনেস আছে তাতে আরও দুই বছর টেস্ট খেলার সামর্থ্য আছে আমার। এটা আমি বুঝতে পারি। বিশেষ করে ফিটনেস যে অবস্থায় আছে তাতে পারব। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে যে, পারফর্ম তো করে খেলতে হবে। এর জন্য তো আমার একটা উপায় বের করতে হবে।

মাশরাফি বলেন,শুধু তো নতুন বলে বোলিং করলে হবে না। ওয়ানডের মতো টেস্টে আপনাকে আক্রমণ করবে না। এখানে উইকেট বের করতে আপনাকে উপায় বের করতে হবে। আর নতুন বলের পর পুরান বলে আরও লম্বা সময় খেলা হয়। সেই সময়ে বোলিং করার উপায় বের করতে হবে। সেই পর্যায় না গিয়ে টেস্টে ফেরার ব্যাপারে বলা বা মন্তব্য করা কঠিন।

সবকিছু মিলিয়ে মাশরাফি টেস্টে ফেরার সিদ্ধান্ত নিতে আগ্রহী নন এখনই, ‘ওই লম্বা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গেলে তখন আমি বুঝতে পারব। তখন বিভিন্ন পথ বের হবে যে, আমি এভাবে (উইকেট) বের করতে পারব। তার আগ পর্যন্ত তো বলা কঠিন।’

তবে তাই বলে লুকিয়ে রাখেননি টেস্ট নিয়ে তার ফ্যান্টাসির কথা। মাশরাফি বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেটের কথা বললে, আমার ইচ্ছা আছে। তবে এভাবে হুটহাট করে হবে না। আমি তো (প্রথম শ্রেণির ম্যাচ) খেলি নির্দিষ্ট একটা চিন্তা থেকে। একটা ম্যাচে যদি ২৫-৩০ ওভার বোলিং করি, তাহলে আমার পরের চার-পাঁচ সপ্তাহের ওয়ার্কআউটটা হয়ে যায়। আমি কিন্তু ওই মানসিকতা থেকেই খেলি।

আরও পড়ুনঃ মাগুরা থেকে ক্রিকেট বিশ্বের সুপারস্টার!

Related Articles

কাঠগড়ায় এবার ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েজ’ পদ্ধতি

৬ মাসেও পরিশোধ হয়নি অলকদের বকেয়া

বদলে যাচ্ছে লঙ্গার ভার্সনের চেহারা

“ভালো করার স্পৃহা থাকতে হবে”

“আব্বা থাকলে সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন”