আলোচনা-সমালোচনায় ব্যাটিং লাইনআপ

Sri Lanka v Bangladesh - 2015 ICC Cricket World Cup

মোঃ সিয়াম চৌধুরী

Advertisment

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ অভিযানে আগে থেকেই একটা উদ্বেগ হয়ে ছিল ব্যাটিং। ভিন্ন কন্ডিশনে বোলিংটা খারাপ না হলেও বাউন্সি উইকেটে গতি আর শর্ট বলকে ব্যাটসম্যানরা কীভাবে মোকাবেলা করবেন, সেটা নিয়ে কম জল্পনাকল্পনা হয়নি।

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে পা রাখার পর ব্যাটিংটা দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে আছে এখনও। প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে ছিল রানখরা। অন্য দেশের ব্যাটসম্যানরা যেখানে রানের ফোয়ারা ছোটাচ্ছেন, সেখানে বড় স্কোর না করার ‘ধারাবাহিকতা’টা এখনও ধরে রেখেছে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। তবে অনভ্যস্ত উইকেটে খেলার চেয়ে এখন বড় দুশ্চিন্তা ব্যাটিং লাইনআপ।

কারো কাছে একেবারে অদ্ভুত, কারো কাছে হাস্যকর, কেউ বা আবার আখ্যা দিচ্ছেন ‘অপরিকল্পিত’ বলে। তবে সব কথার মূলকথা, ব্যাটসম্যানদের আসল পজিশন অনুযায়ী মিলছে না বিশ্বকাপের লাইনআপে তাঁদের অবস্থান। সর্বশেষ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বড় রান তাড়া করার ম্যাচে অদ্ভুত ব্যাটিং অর্ডার দেখে ক্রিকেটপ্রেমি ও সমর্থকদের মুখে এখন সবচেয়ে উচ্চারিত আলোচনার বিষয় বাংলাদেশের ব্যাটিং ‘লাইনআপ’।

দীর্ঘদিন বাজে ফর্মের সাথে লড়াই করে দাপুটে ব্যাটিং নিয়েই ফিরেছিলেন, কিন্তু ইনজুরির আক্রমণে নিস্তেজ হয়ে গেছেন আবারও। সুস্থ হয়ে ফেরার পর প্রস্তুতি ম্যাচে ঝলক দেখালেও সাম্প্রতিককালের মতো আবারও বিশ্বকাপের মতো ব্যর্থ বড় মঞ্চে। ফলে তামিমকে অনেকেই মনে করছেন মূল অপরাধী। আনঅফিসিয়াল, অফিসিয়াল ও আন্তর্জাতিক ম্যাচ মিলিয়ে গত এক মাসে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ৬টি (অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পরিত্যক্ত ম্যাচ ছাড়া) ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ, যার মধ্যে ৪টিতে খেলেছেন তামিম এবং ৩টিতেই ব্যর্থ হয়েছেন নিজের আসল রূপ প্রদর্শন করতে। ইনজুরি থেকে ফেরার ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রস্তুতি ওয়ানডেতে ৮১ রানের ইনিংস খেলেছেন… এবং স্কোরকার্ড বলছে, দ্রুত দুটি উইকেট হারালেও সেই ম্যাচে খারাপ ছিল না বাংলাদেশের ব্যাটিং। মাহমুদুল্লাহকে সাথে নিয়ে পাকিস্তানের পেসারদের শক্ত হাতে সামলেছেন, দুজনের রানই ছিল আশির কোটায়। ফলে টপ অর্ডার নিয়ে দুশ্চিন্তা দূর হওয়ার পথে বলেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু এর পরের ৩টি ম্যাচে ব্যর্থ তামিম, সেই সাথে ব্যর্থ টপ অর্ডারও।

সমালোচনার তিরে বিদ্ধ হচ্ছেন আরেক নিয়মিত ওপেনার এনামুল হক বিজয়ও। অনেকে তাঁকে এখন ‘নিয়মিত ওপেনার’ না রেখে চাইছেন ওয়ান ডাউনে দেখতে, কেউ কেউ আবার বিশ্রাম দিতে চাচ্ছেন দুয়েকটি ম্যাচের জন্য! প্রথম তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচে রান ছিল সাকুল্যে ১৩। এর পরের ৩টি ম্যাচে করেছেন যথাক্রমে ২৫, ২৯ ও ২৯। রান বিবেচনায় সংখ্যাগুলোকে ‘মোটাতাজা’ মনে হলেও এনামুলের দুর্বলতা ফুটিয়ে তুলছে তাঁর স্ট্রাইকরেট। মোট ১৭০ বল মোকাবেলা করে রান ৮৩, স্ট্রাইকরেট ৪৮.৮২। যে কন্ডিশনে প্রায় প্রতি ম্যাচেই প্রথমে ব্যাট করা দলের রান তিনশো ছাড়াচ্ছে, সেই কন্ডিশনের একজন ব্যাটসম্যানের স্ট্রাইকরেট একশো’র অর্ধেকেরও কম, ভাবা যায়!

এই মুহূর্তে ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে বেশীরভাগ সমর্থকের কাঠগড়ায় এই দুই ব্যাটসম্যান। দুজনের একজনকে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের ‘পদ’ থেকে সরিয়ে দ্বিতীয় বা তৃতীয় উইকেটে ট্রান্সফার করে এই মুহূর্তে সৌম্য সরকারকে ব্যাটিং উদ্বোধনে ঠেলে দিয়ে আদর্শ টপ অর্ডার কল্পনা করছেন অনেকেই।

bowled_550

বিশ্বকাপ আসরের মূল পর্বের আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কা ম্যাচের পর বিস্ময় জাগাচ্ছেন মুমিনুল হক। তবে বিস্ময়টা যতটা না তাঁর কার্যকারিতায়, তার চেয়েও বেশী দলে মুমিনুলের ভূমিকায়। আদর্শ টেস্ট ব্যাটসম্যান, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। ছোটোখাটো শরীর নিয়ে রেকর্ডের পর রেকর্ড গড়ে ব্র্যাডম্যানদের পাশে নাম বসিয়ে বেশ কয়েকবার অবাক করেছেন ক্রিকেট বিশ্বকে। তবে শর্ট বল খেলায় অপারদর্শিতার পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়া নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে ওয়ানডেতে তাঁর সাফল্যটা দল ঘোষণার পর থেকেই ছিল সমালোচকদের চায়ের কাপের ঝড় হয়ে। ঝড় তুফানে রূপ নিয়েছে স্পেশালিষ্ট ব্যাটসম্যান মুমিনুলকে প্রথম ম্যাচে ৯ নাম্বারে (!) ব্যাটিংয়ে তোলায়। মাশরাফি বিন মুর্তজার পর ব্যাট হাতে ক্রিজে নেমে তেমন কিছু করতে পারেননি, করার সুযোগও ছিল না। বাস্তবিক অর্থে তাই শুধুই একজন ‘ফিল্ডার’ হিসেবে মুমিনুলের দলে উপস্থিতিটা অনেককে বিস্ময়ের পাশাপাশি হাঁসির খোরাকও হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শুধু ব্যাটসম্যানরাই নন, ব্যর্থতার কারণ হিসেবে দায়ী টীম ম্যানেজমেন্টের অদ্ভুত চিন্তাধারাও। গত ২-৩ বছরের পারফরমেন্স বিবেচনায় নিঃসন্দেহে দলের সেরা দুই ব্যাটসম্যান সাকিব ও মুশফিক। কিন্তু সাকিব ব্যাট হাতে নামছেন মোটের উপর অর্ধেক ওভার যাওয়ার পর, আর দেশসেরা ব্যাটসম্যান মুশফিক তো হয়ে উঠছেন একজন ‘মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান’ই। টপ অর্ডার হুরমুরিয়ে ভেঙে পড়ুক আর না পড়ুক, এই দুজনকেই প্রতি ম্যাচে সামাল দিতে হচ্ছে ব্যাটিং বিপর্যয়। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে ‘এশিয়া কাপের ভূত’ ভর করার পর বাংলাদেশ পরিত্রাণ পেয়েছে এই দুজনের ব্যাটে চড়েই। কিন্তু দলের সেরা দুই ব্যাটসম্যানকে যে পজিশনে খেলনো হচ্ছে, তা নিয়ে অনেকের মনেই রয়েছে নীরব প্রতিবাদ।

বিশ্বকাপ অভিযানের মোট ৬টি ম্যাচের ৫টিতে মুশফিক ব্যাট হাতে নেমেছেন ৬ষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে। পরিস্থিতি বিবেচনায় দ্রুত উইকেট পতন আর শেষদিকে রান তোলার প্রবণতা বিচার করলে পজিশনটা তবুও মেনে নেওয়া যাচ্ছে, কিন্তু শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৫ উইকেট পড়ার পর মাঠে মুশফিকের প্রবেশ হতাশার পাশাপাশি জন্ম দিয়েছে হেঁয়ালিরও। শেষদিকে মাঠে নেমে চাপের মুখে সেরা ব্যাটসম্যান কতটুকু খেলতে পারবেন, তারও আগে আসছে এই প্রশ্ন যে- এমন অবস্থায় তাঁকে সঙ্গ দেওয়ার মতো ব্যাটসম্যানই বা উইকেটে থাকবেন কি না। স্লগ ওভারগুলোতে স্ট্রোকের ফুলঝুরি ফোটানোর পাশাপাশি প্রয়োজন পড়ে বাউন্ডারিরও, মুশফিককে চতুর্থ বা পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে নামিয়ে সেক্ষেত্রে সাকিবকে মুশফিকের পরের ব্যাটসম্যান হিসেবেই রাখতে চান অনেকে।

টীম ম্যানেজমেন্ট-এর ভাষ্য অনুসারে, ‘ব্যাটিং কন্ডিশনে’ বেশী ব্যাটসম্যান ও ‘পেস বোলিং কন্ডিশনে’ বেশী পেসার খেলিয়ে অ্যাডভান্টেজ নিতে চায় বাংলাদেশ। কিন্তু মুমিনুল, তামিম কিংবা এনামুলের দৃষ্টিকটু পারফরমেন্স আর ব্যাটিং পজিশন ধুলো ছিটিয়ে দিচ্ছে টীম ম্যানেজমেন্টের যুক্তির জলে।

সাব্বির আর নাসিরের প্রতিদ্বন্দ্বিতা ঘরোয়া ও বয়সভিত্তিক ক্রিকেট থেকেই, এবার তা সুদূর জাতীয় দলের ক্ষেত্রে। তবে মুমিনুলের বদলে দলে সাব্বির আর নাসির দুজনকেই নেওয়া যেতে পারে- এমন অভিমত অনেকের।

ব্যাটিং অর্ডারকে কাঁটাছেঁড়া আর যোগ-বিয়োগ করে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক ম্যাচের অপেক্ষায় এখন সবাই।

 

1 COMMENT

  1. Want To Win Or Not With Scotland !!!

    Play With This Squad and Win Other Wise Only We Can Pray But…

    1. Shakib Al Hasan (Opening Batsman& Bowler)
    2.Mushfikur Rahim (Opening Batsman & Wicket Keeper)
    3.Nasir Hossain ( 3rd to Bat)
    4. Mominul Islam (4th to Bat )
    5. Mohammad Mahmullah ( 5th to Bat and Bowler)
    6. Souyma Sarkar (6th to Bat)
    7. Sabbir Rahman (7th to Bat)
    8.Mashrafe Mortaza( 8th to Bat & Captain& Right Arm Medium Bowler)
    9.Shafiul Islam ( 9th to Bat & Right Arm Medium Bowler)
    10. Rubel Hossen (10th to Bat & Right Arm Medium Bowler)
    11.Taijul Islam ( 11th to Bat & Slow Left Arm orthodox)