Scores

আশরাফুলের প্রিয় চার জয়

বাংলাদেশ ক্রিকেটের উত্থানের শুরুর দিকের নায়ক ছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। যদিও ভুলের শিকার হয়ে এখন হারিয়ে গিয়েছেন জাতীয় দলের থেকে কিন্তু ভক্তদের মনে মণিকোঠায় এখনো তার জায়গা অটুট। বাংলাদেশের এই সাবেক অধিনায়ক জানিয়েছেন তার প্রিয় ৪টি ম্যাচের কথা।

আশরাফুলের কাছে প্রিয় ৪টি জয়ী ম্যাচ

২০০৫ সালে কার্ডিফে অস্ট্রেলিয়াকে প্রথমবারের মতো হারিয়ে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে ব্যাট হাতে শতক হাঁকিয়েছিলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। সেই ম্যাচটি বাংলাদেশ ক্রিকেটের ইতিহাসে নিঃসন্দেহে স্মরণীয় একটি ম্যাচ। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২৪৯ রান জড়ো করে অস্ট্রেলিয়া। রিকি পন্টিং, অ্যাডাম গিলক্রিস্ট, ম্যাথু হেইডেন, মাইক হাসি, জেসন গিলেস্পি, গ্লেন ম্যাকগ্রাদের বিপক্ষে ২৫০ রানের লক্ষ্যও সহজ ছিল না বাংলাদেশের জন্য।

Also Read - করোনায় বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব স্থগিত







ম্যাচটিতে ৪ বল হাতে রেখেই ৫ উইকেটের জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ১০১ বলে ১০০ রান করেছিলেন আশরাফুল। এই ম্যাচটিকে নিজের প্রিয় ম্যাচের তালিকায় প্রথমেই জায়গা দিয়েছেন তিনি। ক্রীড়াভিত্তিক সংস্থা পাওয়ারপ্লে কমিউনিকেশনস-এর এক সরাসরি আড্ডায় যোগ দিয়ে আশরাফুল বলেন,

‘অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটি অবশ্যই প্রথম সারিতে থাকবে আমার কাছে। তারপর ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে আমরা যেই ম্যাচটা জিতেছিলাম ওটা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেও ম্যাচ জিতেছিলাম ও বিশ্বকাপে। সেই ম্যাচটাও থাকবে।’






২০০৭ বিশ্বকাপের সময় ওয়ানডেতে শীর্ষ দল ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। সেই দলটাকে বাংলাদেশ হারিয়েছিল ৬৭ রানের বড় ব্যবধানে। ম্যাচটাতে আশরাফুল ম্যাচ সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার ব্যাট থেকে এসেছিল ৮৩ বলে ৮৭ রান। একই বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচটাতে ৫ উইকেটের জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে ৮ রান করে অপরাজিত থেকে মাঠ ছিলেন এই ব্যাটসম্যান।

২০০৭ সালেই প্রথমবারের মতো আয়োজিত হয়েছিল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এই সংস্করণে বরাবরই সেরা দল ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সেবার পরাজিত করেছিল বাংলাদেশ। ম্যাচটাতে বাংলাদেশের অধিনায়ক ছিলেন আশরাফুল। এই ম্যাচের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন,

‘টি-২০ বিশ্বকাপে আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়েছিলাম। ওইসময় ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে হারাব ভাবলেও অবাক লাগতো। ওই ম্যাচে তো বাংলাদেশের অধিনায়ক ছিলাম আমি; চিন্তায় ছিলাম কাকে রেখে কাকে আউট করব!’

‘কারণ আমাদের ম্যাচের আগের ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই শতাধিক রান করেছিল। তখন ভাবছিলাম আমাদের বিপক্ষে কত রান করবে আল্লাহই জানে। আমাদের রাসেল প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই ক্রিস গেইলকে আউট করে দিয়েছিল। আমি এবং আফতাব (আহমেদ) একটা ভালো জুটি গড়েছিলাম।’

বাংলাদেশের ৬ উইকেটের জয়ের সেই ম্যাচটাতে ঝড়ো ২৭ বলে ৬১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন আশরাফুল। আফতাব আহমেদের ব্যাট থেকে এসেছিল ৪৯ বলে ৬২ রান।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

টেস্টে ক্রিকেটারদের অনীহা আহত করে নির্বাচকদের

ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে বিপিএল আয়োজনের চেষ্টা করবে বিসিবি

মুশফিক-তামিমদের সাথে সাক্ষাতে গ্যারি কারস্টেন

প্রিমিয়ার লিগের ভাগ্য অজানা সিসিডিএমের

বৈরুতের বিস্ফোরণে মুশফিক-রিয়াদদের শোক