আশা বাঁচিয়ে রাখলো বরিশাল বুলস

emrit

রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে সহজ জয় পেয়েছে বরিশাল বুলস। ১৭ রানের এ জয়ের ফলে আশা জিইয়ে রয়েছে তাদের। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে টপকে এখন তারা পয়েন্ট টেবিলের ছয়ে।

শুরুতে তেমন ভালো করতে পারেনি বুলস ।দলীয় ৭ রানে মেহেদি হাসান মিরাজের বলে ক্যাচ আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান মেন্ডিস। মালান কে সঙ্গ দেন ফজলে মাহমুদ। তারা দুজনে গড়ে তুলে ১০০ রানের জুটি। মালান আর ফজলের জুটিতে লড়াকু স্কোর গড়ার পথে হাঁটে বরিশাল।

Also Read - নারী কেলেঙ্কারিতে ডোয়াইন ব্রাভো?


৬ চার ও ৩ ছক্কায় ৩৩ বলে ৫৬ রান করে রান আউট হন মালান। ফজলে মাহমুদের ব্যাট থেকে আসে ৪৬ রান। তার ইনিংসে ছিল চারটি বাউন্ডারি ও দুই ছয়।

এরপর হাল ধরেন থিসারা পেরেরা। মুশফিককে সাথে নিয়ে এগিয়ে যান তিনি। মুশফিক ও পেরেরা আরো ৩৬ রান যোগ করেন। ৮ বলে ৮ রান করে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ফিরলেও পেরেরা করেন ২৯ রান। শেষদিকে ব্যাট হাতে ঝড় তুলেন নাফিস। তার ছয় বলে ১৬ রানের ছোট্ট ঝড়ে ১৬১ রান করে বরিশাল বুলস।

মমিনুল হক ও নুরুল হাসান সোহানের ব্যাটে জবাবটা ভালোই দেয় রাজশাহী কিংস। ওপেনিং জুটিতে তারা রান তোলে সাতাশ। রানের চাকাও ছিলো বেশ সচল। তাদের জুটি ভাঙেন মনির হোসেন। ফেরান নুরুলকে। পরের ওভারে এমরিটের বলে সাব্বির রহমানও বিদায় নেন। এখান থেকেই শুরু রাজশাহী কিংসের পথ হারানো।

mushi appealনিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তারা। হয়নি বড় কোনো জুটি। রানের চাকাটাও ছিল মন্থর। ৫৩ রানের মাথায় এনামুল হক মুমিনুলকে ফেরালে বিপদে পড়ে যায় ড্যারেন স্যামির দল। ধীরে ধীরে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় তারা। রকিবুল হাসানও পারেননি বড় স্কোর গড়তে। এক প্রান্ত আগলে রাখেন সামিত প্যাটেল। তবে তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি কেউ। ফ্রাঙ্কলিন ১৯ আর ফরহাদ আউট হয়ে যান ৪ রান করে। সামিত প্যাটেলের ৬২ রানের ইনিংস শুধু হারের ব্যবধান কমায়। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ১৪৪ রান করতে সক্ষম হয় রাজশাহী।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ বরিশাল বুলস ১৬১/৪, ২০ ওভার
মালান ৫৬, ফজলে ৬৩, পেরেরা ২৯*
সামি ১৬/১, ফরহাদ ৩২/১

রাজশাহী কিংস ১৪৪/৭, ২০ ওভার
এমরিট ২৭/৩, এনামুল হক ৬/১

ম্যাচসেরাঃ রায়াদ এমরিট

বিপিএলের সর্বশেষ পয়েন্ট তালিকা-

-আজমল তানজীম সাকির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন