ইডেনে শেখ হাসিনার নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণে বিশেষ প্রতিনিধি দল

0
569

টি-টোয়েন্টিতে চোখে চোখ রেখে দাপট দেখালেও টেস্টে এসে বিবর্ণ বাংলাদেশ দল। মাঠের ক্রিকেটে টাইগারদের ভারত সফর খানিক রঙ হারালেও ইডেন গার্ডেন্স টেস্টকে সামনে রেখে উৎসবে মাতোয়ারা দুই দেশই। কলকাতার মাটিতে হতে যাওয়া এই ম্যাচে উপস্থিত থাকবেন খোদ বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যেকারণে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে ভেন্যু পর্যবেক্ষণে বিশেষ নিরাপত্তা প্রতিনিধি দল।

প্যারাসুট থেকে নেমে কোহলি-মুমিনুলের হাতে তুলে দেওয়া হবে বল

Advertisment

বলা যায় ঐতিহাসিক মাহেন্দ্রক্ষণের সামনে দাঁড়িয়ে ইডেন গার্ডেন্স। আগামী ২২ নভেম্বর হতে যাওয়া ম্যাচ দিয়েই প্রথমবারের মত দিবারাত্রির টেস্ট খেলতে নামবে ভারত আর বাংলাদেশ। একই সাথে উপমহাদেশে প্রথমবারের মত ফ্লাডলাইটের আলোর নিচে মাঠে গড়াবে কোন আন্তর্জাতিক টেস্ট ম্যাচ। এই টেস্টে বাড়তি মাত্রা যোগ করতে বেশ তৎপর হয়েছেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি।

সৌরভের ঘরের মাঠে প্রথম গোলাপি বল টেস্টে ক্রিকেটের নন্দনকাননে আমন্ত্রিত অতিথির তালিকায় আছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। ইডেনের ঐতিহ্যবাহী বেল বাজিয়ে টেস্টের সূচনা করবেন শেখ হাসিনা। যার কারণে স্বাভাবিকভাবেই বেশ শক্ত থাকবে নিরাপত্তার ব্যবস্থা। ঠিক কতটা শক্ত থাকবে তা খতিয়ে দেখতে এরই মধ্যে সরজমিনে ম্যাচের ভেন্যু পরিদর্শন করতে গেছে এক বিশেষ নিরাপত্তা প্রতিনিধি দল।

বাংলাদেশের ডেপুটি হাই-কমিশনার তৌফিক হাসানের নেতৃত্বে স্পেশ্যাল সিকিউরিটি ফোর্সের ১১ জন অফিসার সহ মোট ২১ জনের একটি প্রতিনিধি দল সিএবি’তে একটি বৈঠক করেন সচিব অভিষেক ডালমিয়ার সঙ্গে। এছাড়াও ঐ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড ও সিএবি-র অন্যান্য সদস্যরা।

ম্যাচের প্রথম সেশনে প্রেসিডেন্ট বক্সে বসে খেলা দেখার কথা হাসিনার। ইডেনেই তিনি মধ্যাহ্নভোজ সারতে পারেন। হাসিনার জন্য শহরের একটি অভিজাত হোটেল থেকে খাবার আসবে। তবে সেই খাবার পরিবেশন করার আগে পরীক্ষা করে দেখবেন হাসিনার নিরাপত্তারক্ষীরা। এমনকি সিএবি’র কিচেনে সিসিটিভি বসাতে বলা হয়েছে। একই সাথে তিনি কোন পথ দিয়ে বিসি রায় ক্লাব হাউসে প্রবেশ করবেন, যে লিফটে চড়ে তিনি তিন তলায় উঠবেন, সেখানেও বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ম্যাচ চলাকালীন অর্থাৎ বেলা তিনটার পর হাসিনার হোটেলে ফিরে যাওয়ার কথা। কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেওয়ার পর ফের সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার সময় ইডেনে উপস্থিত হবেন তিনি। ডিনারের পর অংশ নেবেন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে। প্রথম দিনের খেলা শেষে ক্রিকেটের নন্দনকাননে সম্মান জানানো হবে ২০০০ সালে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে আয়োজিত প্রথম টেস্টে খেলা দুই দলের ক্রিকেটারদের।