SCORE

সর্বশেষ

ইমরুলের সেঞ্চুরিতে দক্ষিণাঞ্চলের লিড

দক্ষিণাঞ্চলের বিপক্ষে ১৪৬ রানে পিছিয়ে ২য় দিন শেষ করেছে উত্তরাঞ্চল। হাতে রয়েছে দশ উইকেট।

Imrul-Kayes-fall-in-injury-again

শেষ প্রহরে ব্যাট করতে নেমে ১৭৮ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা উত্তরাঞ্চল ব্যবধান কমিয়ে এনেছে ১৪৬ রানে। মিজানুর রহমান ১৭ ও জুনায়েদ সিদ্দিকী ১৪ রানে ব্যাট করছেন। এর আগে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে বুধবার ১ উইকেটে ১১৫ রান নিয়ে দিন শুরু করে দক্ষিণাঞ্চল। প্রথম ঘণ্টা অনায়াসে কাটিয়ে দেন জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া আগের দিন ফিফটি পেয়ে যাওয়া দুই ব্যাটসম্যান এনামুল ও ইমরুল।

Also Read - আফগানিস্তান সিরিজের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছেন সাব্বির

প্রথম দিনের শেষ দিকে দ্রুত রান তুলে ইমরুলকে ছাড়িয়ে যান এনামুল। দ্বিতীয় দিন প্রথম ঘণ্টায় আবার এগিয়ে যান ইমরুল। স্পিনে তার ফুটওয়ার্ক ছিল দারুণ। উইকেটের চারপাশে শট খেলেছেন। উত্তরাঞ্চলের কোনো বোলারই অসুবিধায় ফেলতে পারেন নি তাঁকে।

সোহরাওয়ার্দী শুভর শর্ট বলে চার হাঁকিয়ে ১৪৭ বলে শতকের মাইলফলক স্পর্শ করেন ইমরুল। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে এটি তার ১৭তম শতক। এরপর বেশিক্ষণ টিকেননি বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। দ্রুতই ফিরে যান ফরহাদ রেজার অফ স্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা মারতে গিয়ে।

লাঞ্চের আগে দ্বিতীয় শেষ ওভারে ইমরুলের বিদায়ে ভাঙে ১৮৪ রানের জুটি। সঙ্গীর বিদায়ের সাথে সাথে লাঞ্চের পর প্রথম ওভারেই ওপেনার এনামুল ফিরে যান অলরাউন্ডার ফরহাদ রেজার শিকার হয়ে। স্টাম্পের বল ফ্লিক করতে গিয়ে ব্যাটে খেলতে পারেননি দক্ষিণাঞ্চলের ওপেনার। ৮৯ রান করে হয়ে যান এলবিডব্লিউ। আগের দিন সাবলীল ব্যাটিং করা এনামুল এদিন স্বচ্ছন্দ ছিলেন না। রানের জন্য সংগ্রাম করতে হয়েছে তাকে। তার ১৭৩ বলের ইনিংসটি গড়া ৭ চার ও দুই ছক্কায়।

ছন্দে থাকা দুই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান তুষার ইমরান ও মোহাম্মদ মিঠুনের ব্যাটে তিনশ ছাড়ায় দক্ষিণাঞ্চলের সংগ্রহ। চমৎকার ব্যাটিং করতে থাকা মিঠুনকে এলবিডব্লিউ এর ফাঁদে ফেলে ৯৫ রানের জুটি ভাঙেন জাতীয় দলের দরজায় কড়া নাড়ানো আরিফুল হক।

বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের বলে একবার জীবন পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান। বেরিয়ে এসে বাঁহাতি স্পিনারকে উড়িয়ে মারার চেষ্টায় মিড অফে ধরা পড়েন বদলি ফিল্ডার সানজামুল ইসলামের হাতের তালুতে।

অন্য সতীর্থদের মতো উইকেট ছুড়ে আসেন অভিজ্ঞ তুষার ইমরানও। বোল্ড হন ফরহাদ রেজার বেশ বাইরের বল স্টাম্পের দিকে টেনে এনে। ১৩১ বলে খেলা তুষারের ৬৫ রানের ইনিংসে ৬টি চারের পাশে ছক্কা একটি। বড় ইনিংস প্রত্যাশা ছিল তাঁর কাছ থেকে। ব্যাটিংয়ে সুবিধা করতে পারেননি মাশরাফি বিন মুর্তজা। রেজার লেগ স্টাম্পের বাইরের বলে ফিরে যান ধীমান ঘোষকে ক্যাচ দিয়ে। পরের ওভারে ফিরে নাহিদুল ইসলামকেও কট বিহাইন্ড করেন রেজা। এই উইকেটের পরই ৮ উইকেটে ৩৬৫ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেন নুরুল।

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সপ্তমবারের মতো পাঁচ উইকেট পেলেন রেজা। ৫৭ রানে ৫ উইকেট নিয়ে তিনিই দলের সেরা বোলার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

উত্তরাঞ্চল ১ম ইনিংস: ১৮৭

দক্ষিণাঞ্চল ১ম ইনিংস: (প্রথম দিন শেষে ১১৫/১) ১০৫ ওভারে ৩৬৫/৮ ইনিংস ঘোষণা (এনামুল ৮৯, সৌম্য ১২, ইমরুল ১০৭, তুষার ৬৫, মিঠুন ৪৯, নুরুল ১৫, নাহিদুল ১৫, মাশরাফি ৩, রাজ্জাক ৪*; শফিউল ১/৫৯, আরিফুল ১/৫০, রেজা ৫/৫৭, তাইজুল ১/১২২, শুভ ০/৫৭, ফরহাদ ০/১৫)

উত্তরাঞ্চল ২য় ইনিংস: ৮ ওভারে ৩২/০ (মিজানুর ১৭*, জুনায়েদ ১৪*; মাশরাফি ০/২৪, রাজ্জাক ০/৮)

আরো পড়ুনঃ ‘রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে দৌড়াতেও শিখে যাবে বাংলাদেশ’

Related Articles

টেস্ট ক্রিকেটের কাঠিন্য মানতে নারাজ ইমরুল

‘সমর্থন দিন, গালি দিয়েন না’

যে কারণে বাদ তাসকিন-ইমরুল-সোহান

বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে লিটন!

রাজ্জাকের স্পিন ঘূর্ণিতে চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণাঞ্চল